কোরিয়াকে নিয়ে এখনো আশাবাদী জমি বিক্রি করে পতাকা বানানো মিন্টু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ০৯:২৮ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০২২
নিজের বাড়ি থেকে গ্রামের সড়ক ধরে শ্বশুরবাড়ি পর্যন্ত পতাকা টানিয়েছেন মিন্টু

কাতার ফুটবল বিশ্বকাপে এখনো জয় না পাওয়া দক্ষিণ কোরিয়াকে নিয়ে আশাবাদী দলটির অন্ধ ভক্ত আবু কাউসার মিন্টু। দ্বিতীয় পর্বে উঠবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরের সন্তান আবু কাউসার মিন্টু দক্ষিণ কোরিয়া থেকে প্রবাস জীবন শেষে দেশে ফিরেছেন ২০১৩ সালে। প্রবাস থেকে ফেরার দীর্ঘ ৯ বছরেও দেশটির প্রতি ভালোবাসা কমেনি তার। ফুটবল বিশ্বকাপকে সামনে রেখে আমবাগানের জায়গা বিক্রয় করেন এবং স্ত্রীর জমানো টাকাও তোলেন। পরে নিজের বাড়ি থেকে সড়কের পাশ দিয়ে শ্বশুরবাড়ি পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার লম্বা দক্ষিণ কোরিয়ার পতাকা টানিয়েছেন৷ এমন কাণ্ডে রীতিমতো দেশ-বিদেশের মিডিয়ায় ভাইরাল তিনি।

আবু কাউসার মিন্টুকে নিয়ে সর্বপ্রথম সংবাদ প্রকাশ করে জাগোনিউজ২৪.কম। এরপর থেকে বিবিসি, রয়টার্স, এএফপি, দক্ষিণ কোরিয়ার ও বাংলাদেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতি মিন্টুর ভালোবাসার বিষয়টি প্রকাশিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সন্ধ্যায় জাগো নিউজের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় মিন্টু বলেন, জাগো নিউজের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। তারা সংবাদ প্রকাশের পর আমি সারাবিশ্বে পরিচিতি পেয়েছি। দেশ-বিদেশ থেকে ফোন দিয়ে আমার খোঁজ নিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া দূতাবাস থেকে আমাকে ফোনে কল দিয়েছে। তারা জানিয়েছে, আমার পতাকা দেখতে আসবো। তবে কখন আসবেন তা জানায়নি।

বিশ্বকাপে দুই ম্যাচে খেলা শেষে এইচ গ্রুপে তৃতীয় স্থানে থাকা দক্ষিণ কোরিয়াকে নিয়ে এখনো আশাবাদের কথা জানিয়ে মিন্টু বলেন, কোরিয়া প্রথম ম্যাচে উরুগুয়ের সঙ্গে ড্র করেছে। দ্বিতীয় ম্যাচে ঘানার সঙ্গে ৩-২ গোলে পরাজিত হয়েছে। সামনে মাত্র একটি ম্যাচ বাকি আছে পর্তুগালের সঙ্গে। পয়েন্ট টেবিলে পর্তুগালের ৬, ঘানার ৩, দক্ষিণ কোরিয়ার ১ ও উরুগুয়ের ১ পয়েন্ট আছে। যদি পর্তুগালের সঙ্গে কোরিয়া জয় পায় এবং উরুগুয়ে ঘানার সঙ্গে জয়ী হয় তাহলে নকআউটে উঠবে তারা। কারণ দক্ষিণ কোরিয়ার গোল সংখ্যা বেশি, গোল শট বেশি এবং হলুদ কার্ডও কম। সবদিক বিবেচনায় দক্ষিণ কোরিয়া এখন পর্তুগালকে হারাবে।

আবুল হাসনাত মো. রাফি/এসজে/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।