পাবনায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটে যাত্রীদুর্ভোগ চরমে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পাবনা
প্রকাশিত: ১০:৩৭ এএম, ০২ ডিসেম্বর ২০২২

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ সংশোধন, মহাসড়কে অবৈধ যান চলাচল বন্ধ ও জ্বালানি তেল এবং যন্ত্রাংশের অস্বাভাবিক মূল্য কমানোসহ ১০ দফা দাবিতে রাজশাহী বিভাগে শুরু হয়েছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট। এর অংশ হিসেবে পাবনা জেলায়ও দ্বিতীয় দিনের মতো ধর্মঘট চলছে।

শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সকাল থেকে পাবনা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালসহ জেলার বাসস্ট্যান্ডগুলো থেকে কোনো পরিবহন ছেড়ে যেতে দেখা যায়নি। এমনকি আসেওনি। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। এ সুযোগে কয়েকগুণ বেশি ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করছে তিন চাকার যানগুলো। তবে পাবনার ঢালারচর থেকে রাজশাহীর মধ্যে চলাচলকারী একমাত্র ট্রেনটি চালু আছে।

এদিকে বিএনপি নেতারা বলছেন, রাজশাহীর বিভাগীয় সমাবেশ বিঘ্নিত করতে উদ্দেশ্যমূলক এ ধর্মঘট।

ঢাকামুখী অনেকেই পাবনা শহর থেকে কাজীরহাট ফেরি ও লঞ্চঘাট পর্যন্ত যাচ্ছেন। এতে তাদের সময় ও অর্থ দুটোই বেশি লাগছে।

পাবনা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে আসা আবদুল খালেক নামে এক যাত্রী বলেন, ‘বাস টার্মিনালে এসে জানলাম পরিবহন ধর্মঘট। বগুড়ায় জরুরি মিটিং আছে। যেকোনো মূল্যে যেতে হবে। কিন্তু যানবাহন পাচ্ছি না।’

নায়েব আলী নামের একজন বলেন, ‘মাধবপুর নামক স্থান থেকে পৌর শহরের অটোরিকশা ভাড়া জনপ্রতি ৪০ টাকা। কিন্তু এখন নেওয়া হচ্ছে জনপ্রতি ৬০ টাকা। এটা জুলুম।’

jagonews24

সেলিনা খাতুন বলেন, ‘পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সড়কজুড়ে অটোরিকশা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালকদের ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য শুরু হয়েছে। গন্তব্যে দ্বিগুণ ভাড়া দিয়ে বাধ্য হয়ে যেতে হচ্ছে সবাইকে।’

এদিকে রাজশাহীর গণসমাবেশ ঠেকাতে এ ধর্মঘটকে সরকারের নীলনকশা ও ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদ খন্দকার বলেন, ছোট শিশুরাও জানে, সরকার ও সরকারের আজ্ঞাবহ লোকজন আমাদের ৩ ডিসেম্বরের গণসমাবেশ ঠেকাতে এ পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। এতে কোনো লাভ নেই, মানুষ রাস্তায় নেমে পড়েছেন। কোনো বাধাই তাদের আটকাতে পারবে না। সরকারের পতন হবেই।

তবে পাবনা মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মমিনুল ইসলাম মমিন জাগো নিউজকে বলেন, ১১ দফা দাবিতে আমরা আগেই আলটিমেটাম দিয়েছিলাম। রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের কাছে অভিযোগ দিয়েছিলাম। তারা পদক্ষেপ না নেওয়ায় আমাদের এ ধর্মঘট। সমাবেশ বন্ধের জন্য ধর্মঘট ডাকা হয়নি।


আমিন ইসলাম জুয়েল/এসজে/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।