বাজেটের পর শেয়ারবাজার নিয়ে বসবেন অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:২৬ পিএম, ১৭ মে ২০১৮
বাজেটের পর শেয়ারবাজার নিয়ে বসবেন অর্থমন্ত্রী

জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য আগামী ৭ জুন বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এরপর শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বসবেন তিনি। পুঁজিবাজারের মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের পরিকল্পনা ঠিক করতে এ বৈঠক করবেন বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার (১৭ মে) রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে ‘বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়ন’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো কাজ করছে। কিন্তু এটা তাদের কাজ না। পুঁজিবাজারই দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের উৎস হওয়া উচিত। আমাদের একটি ভালো পুঁজিবাজার স্থাপন করতে হবে, যা দীর্ঘ মেয়াদী অর্থায়নের উৎস হবে।

মুহিত বলেন, আগামী ৭ জুন আমি নতুন অর্থবছরের (২০১৮-১৯) বাজেট দেয়ার পর শেয়ারবাজার কিছু মেজর প্লেয়ারকে (শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট) ডাকবো, পুঁজিবাজারের মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের লক্ষ্যে। ভালো পুঁজিবাজারের উন্নয়নের জন্য আমরা কিছু কারার চেষ্টা করব।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) প্রশংসা করে তিনি বলেন, বিগত ৫ বছরে বিএসইসি শেয়ারবাজারের উন্নয়নে অনেক কাজ করেছে। এছাড়া এ বাজারকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে কাজ করে যাচ্ছে। শেষ ১০ বছরের মধ্যে শেষ দুই সপ্তাহে অত্যান্ত ব্যস্ত সময় পার করেছি। কারণ আমি আমার কেরিয়ারের ১০ম বাজেট দিতে যাচ্ছে। ৯টি বাজেট ইতোমধ্যে উপস্থাপন করেছি। আগামী মাসের ৭ জুন ১০ নম্বর বাজেট উপস্থাপন করব।

বিশ্ব ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর কিমইয়াও ফেন বলেন, রোহিঙ্গা বাংলাদেশের জন্য একটি দীর্ঘমেয়াদী সমস্যা। বিশ্বব্যাংক এ সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

jagonews24

বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়ানের জন্য পলিসি সহজ কারার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ। বিশ্বব্যাংক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সব সময় সহায়তা করবে।

আইএফআইসির কান্ট্রি ম্যানেজার ওয়েন্ডি জো ওয়েনার বলেন, চীনের দুই প্রতিষ্ঠান ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের কৌশলগত বিনিয়োগকারী হওয়া একটি ভালো সংবাদ। এ কৌশলগত বিনিয়োগকারী দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখবে।

কনফারেন্সে অন্যান্যদের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূইয়া, বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক খায়রুল হোসেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. ইউনুসুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এমএএস/আরএস/আরআইপি