প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কায় পণ্য রফতানি করছে নেসলে

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৫৬ পিএম, ১২ জুলাই ২০১৮

প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কায় নিজেদের পণ্য ‘নেসপ্রে’ রফতানির ঘোষণা দিয়েছে নেসলে। সুইজারল্যান্ডের বহুজাতিক খাদ্য উৎপাদনকারী এ প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের বাইরে শ্রীলঙ্কাকে একটি উপযুক্ত বাজার হিসেবে দেখছে। এ উদ্যোগে উভয় দেশই উপকৃত হবে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে আশা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে সম্প্রতি রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব শুভশীষ বসু ও শ্রীলঙ্কার হাই কমিশনার হিজ এক্সসিলেন্সি ক্রিসান্থে ডি সিলভা।

এছাড়া বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের সভাপতি মো. মাহফুজুল হক, ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি শেহজাদ মুনিম, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ এনামুল হক, মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এবং গ্লোবাল ব্যাংকিং ও অ্যাক্টিং সিইও মোহাম্মদ এনামুল হক বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব শুভশীষ বসু বলেন, আমার বিশ্বাস, নেসলে বাংলাদেশের পণ্যের সুনাম আমাদের দেশে এবং দেশের বাহিরে ছড়িয়ে রয়েছে। যা এই বিপুল বিদেশি বাজারকে আয়ত্ত করতে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করছে। এ রফতানি আমাদের দেশের জন্য একটি মাইলফলক হিসেবে গণ্য হবে।

নেসলে বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দীপাল আবেউইক্রেমা বলেন, আমরা দীর্ঘমেয়াদী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশে বিনিয়োগ চালিয়ে যাব। আমরা ব্যবসা বৃদ্ধি করতে এবং বাংলাদেশে বিভিন্ন উদ্যোগের মাধ্যমে সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে চাই।

শ্রীলঙ্কার হাই কমিশনার হিজ এক্সসিলেন্সি ক্রিসান্থে ডি সিলভা বলেন, নেসলে বাংলাদেশ লিমিটেডের এই একক উদ্যোগটি শ্রীলঙ্কান ও বাংলাদেশি মানুষের মধ্যে একটি সুস্থ ও শক্তিশালী সম্পর্ককে সুনিশ্চিত করে তুলবে।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ এনামুল হক বলেন, আমরা এখন বিশ্বায়নের যুগে বাস করি এবং নেসলে বাংলাদেশের এ প্রচেষ্টা এবং প্রক্রিয়াটি শ্রীলঙ্কায় রফতানির ক্ষেত্রে আগ্রহী সকলকে এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য উৎসাহ ও উদ্দীপনার মাধ্যমে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে।

ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি শেহজাদ মুনিম বলেন, উপমহাদেশে ৩পি -বিনম্রতা (পোলাইটনেস), অধ্যবসায় (পারসিস্টেন্সি) এবং ধৈর্যশীলতা (পেশান্টস) সকলের মধ্যে বৈচিত্র্য আনে এবং নেসলে এ পর্যন্ত এগুলো যথাযথ কার্যকরভাবে প্রয়োগ করেছে এবং এখানে তার পরিচয়ের প্রমাণ মেলে।

আরএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :