অবশেষে ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:২৪ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

টানা চার কার্যদিবস দরপতনের পর মঙ্গলবার দেশের শেয়াবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার দেখা মিলেছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেড়েছে সবক’টি মূল্যসূচক। সেই সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ।

টানা দরপতনের মধ্য থেকে শেয়ারবাজারকে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় ফেরাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে ব্যাংক ও আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলো। বড় মূলধনী এই দুই খাতের সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়ায় ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে অন্য খাতের ওপরও। ফলে বেড়েছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম।

এদিন ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ২০ ব্যাংকের শেয়ার দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৫টির। আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বাড়ার তালিকায় স্থান করে নিয়েছে ১৬টি। বিপরীতে দাম কমেছে ৬টির। আর সব খাত মিলে ১৬৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমার তালিকায় স্থান করে নিয়েছে ১২৮টি। আর ৪১টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ায় ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ২৮ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৪৭২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দু’টি মূল্য সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ আগের দিনের তুলনায় ২ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৯০৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ২৬২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ায় বেড়েছে ডিএসইর বাজার মূলধনও। দিনের লেনদেন শেষ ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৯০ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা। যা আগের কার্যদিবস শেষে ছিল ৩ লাখ ৯০ হাজার ৬২৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ বাজারটির বাজার মূলধন বেড়েছে ১০৫ কোটি টাকা।

মূল্য সূচক ও বাজার মূলধনের পাশাপাশি বাজারটিতে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৭৩১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৬৯৬ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৩৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে এদিন ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে কেপিসিএল’র শেয়ার। কোম্পানিটির ৭৮ কোটি ২৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা অ্যাকটিভ ফাইনের ৬২ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২৩ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইফাদ অটোস।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- শাশা ডেনিম, বিবিএস কেবলস, ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স, সায়হাম টেক্সটাইল, সিঙ্গার বিডি, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল এবং নাহি অ্যালুমেনিয়াম।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএসসিএক্স ৩৯ পয়েন্ট কমে ১০ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২৭ কোটি ৮২ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২৫১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১২১টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১১০টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।

এমএএস/এসএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :