মেলায় বন্দিদের তৈরি ৭৫ ভাগ পণ্যই বেচা শেষ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৬ পিএম, ২৭ জানুয়ারি ২০১৯

ছেলে-মেয়ে, মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশী থেকে বিচ্ছিন্ন। চার দেয়ালের বন্দি থেকে এক সুতোর সঙ্গে আরেক সুতো বুনেছেন। এভাবেই বুনেছেন বাঁশ পাটের সিকা দোলনা।

এই দোলনা ৫৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ‘বাংলাদেশ জেল কারা পণ্য’ প্যাভিলিয়নে। রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের কোনো একজন বন্দি তৈরি করেছেন এই পণ্য।

দেশের ৬৮টি কারাগারের কারাবন্দির তৈরি পণ্য নিয়ে বসেছে বাংলাদেশ জেল কারা পণ্যের প্যাভিলিয়ন। এতে স্থান পেয়েছে প্রায় ২০০ ধরনের পণ্য। তাদের তৈরি পণ্য এই প্যাভিলিয়নে বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকায়।

jagonews

বাণিজ্য মেলায় কারাবন্দিদের পণ্য কিনতে খুঁজে খুঁজে কারা প্যাভিলিয়নে ভোক্তারা আসছেন বলে জানান প্যাভিলিয়ন ইনচার্জ ডেপুটি জেলার মিজানুর রহমান। তার দাবি, কারা পণ্যের মান ভালো হওয়াই এর কারণ।

মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমাদের প্যাভিলিয়নে কারাবন্দিদের তৈরি করা প্রায় দুইশ ধরনের পণ্য রয়েছে। এবারের মেলায় আমরা প্রায় ৫০ লাখ টাকা মূল্যের পণ্য এনেছিলাম। যার প্রায় ৭৫ ভাগই বিক্রি হয়ে গেছে।’

এই জেলার বলেন, ‘উদাহরণ দিই, একটি প্লাস্টিক স্পেশাল মোড়ার মূল্য ১২০০ টাকা। একটি মোড়া তৈরি করতে একজন কারাবন্দির ৪ থেকে ৫ দিন লেগে যায়। এতে খরচ অনেক বেশি পড়লেও তা আমরা স্বল্প মূল্যে বিক্রি করছি।’

jagonews

কারাবন্দিরা তাদের তৈরি পণ্যের লাভের অর্ধেক পাবেন বলেও জানান মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘সাজাপ্রাপ্ত কারাবন্দিরা আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করতে বাধ্য। এই কাজের অংশ হিসেবে তাদের দিয়ে বিভিন্ন রকমের কাজ করানো হয়। যেমন- আসবাবপত্র, নকশী কাঁথা, বিভিন্ন ধরনের শো-পিস, পাটের তৈরি ব্যাগ, পোশাক প্রভৃতি ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের পণ্য।’

এই জেলার বলেন, ‘বাণিজ্য মেলা ছাড়াও প্রতিটি কারাগারের সামনে একটি করে শো-রুম রয়েছে। সেখান থেকেও কারাবন্দিদের তৈরি পণ্য কেনা যায়।’

jagonews

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের বাণিজ্য মেলায় কারাবন্দিদের পণ্য নিয়ে ‘বাংলাদেশ জেল কারা পণ্য’ প্যাভিলিয়ন প্রথম এসেছিল। ওইবারই পণ্যের গুণগত মানের কারণে মিনি প্যাভিলিয়নগুলোর মধ্যে প্রথম হয়েছিল তারা।

প্রদীপ দাস/জেএইচ/আরআইপি

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]