ক্ষুদ্র শিল্পের ঋণে নিশ্চয়তা দিতে ২০০০ কোটি টাকার তহবিল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫৩ পিএম, ২৪ জুলাই ২০২০

চলমান করোনা পরিস্থিতিতে সৃষ্ট আর্থিক ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কয়েক দফায় এক লাখ তিন হাজার ১১৭ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। এর মধ্যে রয়েছে কুটির, ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি (সিএমএসএমই) খাতের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু ঋণের টাকা ফেরত না পাওয়ার আশঙ্কায় সিএমএসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের ঋণ দেয়ার আগ্রহ দেখাচ্ছে না দেশের ব্যাংকগুলো। তাই এসব ঋণে নিশ্চয়তা দিতে ২ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় এই সিদ্ধান্তের অনুমোদন হয়। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো সিএমএসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের যে ঋণ দেয়, এর নিশ্চয়তাদানকারী (গ্যারান্টার) হিসেবে থাকবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। অতীতে কোনো সময়ে ক্রেডিট গ্যারান্টি দেয়া হয়নি। এটি বাংলাদেশের জন্য একটি মাইলফলক। করোনায় দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তা কাটিয়ে উঠতে এই সুযোগ দেয়া হলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন হওয়া নীতিমালা অনুযায়ী, যেসব ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ১০ শতাংশের বেশি তারা এই সুবিধা পাবে না। ফলে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকের পাশাপাশি বেসরকারি অনেক ব্যাংকও এ সুবিধার বাইরে থাকবে। ব্যাংকগুলো কুটির, ক্ষুদ্র ও ছোট উদ্যোক্তাদের নতুন করে যেসব ঋণ দেবে, তার বিপরীতে নিশ্চয়তা নিতে পারবে। এ জন্য প্রথম বছরে ১ শতাংশ হারে গ্যারান্টি মাশুল দিতে হবে। পরের বছরগুলোতে ৫ শতাংশের নিচে খেলাপি ঋণ থাকা ব্যাংকগুলো দশমিক ৫ শতাংশ হারে মাশুল দেবে। এর বেশি খেলাপি থাকা ব্যাংক মাশুল দেবে দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে।

নীতিমালা অনুযায়ী, যেসব ঋণে নিশ্চয়তা দেয়া হবে, ওই ঋণের ওপর নিরাপত্তা সঞ্চিতি রাখতে হবে না। শুধু নতুন ঋণেই এই নিশ্চয়তা দেয়া হবে। নিশ্চয়তা থাকা কোনো ঋণ আদায়ের সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে আসলে পুরো টাকা ফেরত দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সিএমএসএমই খাতের জন্য যে ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা তহবিল, এ খাতের প্রণোদনার ঋণে নিশ্চয়তার মেয়াদ হবে ৩ বছর। প্রণোদনার বাইরে ঋণে নিশ্চয়তার মেয়াদ হবে ৫ বছর।

সিএমএসএমই খাতের প্রতিষ্ঠানকে চলতি মূলধন জোগান দিতে ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে সরকার। এতে উদ্যোক্তাদের সুদ সাড়ে ৪ শতাংশ। তবে ব্যাংকগুলো সিএমএসএমই খাতে ঋণ দিতে তেমন আগ্রহ দেখাচ্ছে না। তবে ঋণে নিশ্চয়তা দেয়ার উদ্যোগ এই খাতে ঋণ বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এমইউএইচ/এমএফ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]