ঈদের ছুটিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলবে পরিচ্ছন্নতা অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩১ পিএম, ০৭ আগস্ট ২০১৯

পবিত্র ঈদুল আজহায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১২ দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। তবে বন্ধ থাকলেও ডেঙ্গু প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান চলবে। বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে জারি করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এমন তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চলমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ডেঙ্গু প্রতিরোধের জন্য সর্বাত্মক চেষ্ট চালানো হচ্ছে।

school-03.jpg

ঈদুল আজহা উপলক্ষে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১২ দিন ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে শিক্ষক-কর্মচারীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন না। তবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানোর লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের একজন শিক্ষকের নেতৃত্বে কর্মচারী, স্কাউটস, বিএনসিসি ও শিক্ষার্থী সমন্বয়ে ছয় থেকে ১০ জনের একটি বা একাধিক টিম গঠন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, সকলের অনুপস্থিতিতে খেলার মাঠ, ফুলের টব, পানি জমে এমন যেকোনো পাত্রে এডিস মশার প্রজনন প্রক্রিয়া আরও বেগবান হতে পারে। এতে সরকার কর্তৃক গৃহীত ডেঙ্গু প্রতিরোধ কার্যক্রম ক্ষতিগ্রস্ত এবং ডেঙ্গুর আরও বিস্তার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই ছুটির মধ্যে শিক্ষক-কর্মচারীদের ছয়টি দায়িত্ব পালেনের নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

school-03.jpg

এসব দায়িত্বের মধ্যে রয়েছে- টিম গঠন করে বিদ্যালয় ও আশেপাশে যেসব জায়গায় স্বচ্ছ পানি জমার সম্ভাবনা থাকে সেসব স্থান চিহ্নিত করে প্রতিদিন একবার পরিস্কার করতে হবে; বাথরুমের বদনা ও বালতির পানি শূন্য করে উল্টিয়ে রাখতে হবে; হাইকমোডে হারপিক ঢেলে ঢাকনা বন্ধ করে রাখতে হবে; বাথরুমের প্যানে হারপিক ঢেলে বস্তা বা অন্য কিছু দিয়ে মুখ বন্ধ রাখতে হবে; কোনো স্থানে জমাটবদ্ধ পানি থাকলে লার্বিসাইড স্প্রে করতে হবে অথবা জমাট পানি নিষ্কাশন করতে হবে; আগামী ১২ ও ১৩ আগস্ট ছাড়া (ঈদের দিন ও পরের দিন) প্রতিদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অফিস কক্ষ খোলা রেখে রোস্টার ডিউটির মাধ্যমে টিমের শিক্ষক-কর্মচারীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে এবং ডেঙ্গু প্রতিরোধ কার্যক্রম টিমে নিয়োজিত শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কেউ ঈদের ছুটিতে গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

এমএইচএম/এমএআর/এমএস