চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ করার দাবিতে তৃতীয় দিনেও অনশন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৪ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯

সরকারি চাকরির বয়সসীমা ৩৫ সহ চার দফা দাবি বাস্তবায়নে তৃতীয় দিনের মতো অনশন করছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র কল্যাণ পরিষদ। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কে ফুটপাতে তৃতীয় দিনের মতো গণঅনশন করছেন সাধারণ ছাত্র কল্যাণ পরিষদের নেতাকর্মীরা। দাবি আদায়ে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ না পাওয়া পর্যন্ত তারা অনশন চালিয়ে যাবেন বলে ঘোষণা দেন।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত তারা এ কর্মসূচি পালন করেন।

সাধারণ ছাত্র কল্যাণ পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক মুজাম্মেল মিয়াজী বলেন, বর্তমান সরকার কথা দিয়েছিল ক্ষমতায় আসলে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি করবে। কিন্তু দীর্ঘ এক বছর পার হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। ৪১তম বিসিএসে বয়সসীমা ৩৫ করার দাবি অন্তর্ভুক্ত করা না হলে লাখ লাখ যুবককে বঞ্চিত করা হবে।

তিনি আরও জানান, ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আগেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার দাবি জানানো হয়, কিন্তু বয়সসীমা পরিবর্তন না করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলেও আমাদের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।

movement01

চার দফা দাবি হচ্ছে- সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি করে ৩৫ বছরের উন্নীতকরণ, আবেদন ফি ৫০-১০০ টাকার মধ্যে নির্ধারণ, নিয়োগ পরীক্ষা জেলা কিংবা বিভাগীয় পর্যায়ে নেয়া এবং ৩-৬ মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্নসহ সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

ছাত্র কল্যাণ পরিষদের নেতারা জানান, আবেদনের বসয়সীমা ৩৫ অন্তর্ভুক্ত না করে ৪১তম বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় লাখ লাখ শিক্ষিত যুবসমাজ ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তাই নির্বাচনী ইশতেহার অনুসারে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ করার দাবি অন্তর্ভুক্ত করে পুনরায় ৪১তম বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দাবিতে আমরা অনশন করছি। আশা করি প্রধানমন্ত্রী ২৬ লাখ বেকার যুবকের কথা বিবেচনা করে আমাদের যৌক্তিক দাবি মেনে নেবেন। দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত গণঅনশন চলবে বলেও জানান তারা।

সংগঠনের সমন্বয়ক রেশমা আক্তার, উজ্জ্বল সরকার, নাজিম উদ্দিন, জিয়াউর রহমাম, এস এস সজীব আহমেদ, জিয়ারুর রহমানসহ শতাধিক চাকরিপ্রত্যাশী অনশনে অংশ নেন।

এমএইচএম/এএইচ/জেআইএম