মুসলিম ইতিহাস থেকে আইইউটি গ্র্যাজুয়েটদের অনুপ্রেরণা নেওয়ার আহ্বান

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২৫ এএম, ২৪ মে ২০২২

মুসলিম উম্মাহর গৌরবময় ইতিহাস থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে মানবজাতির আর্থসামাজিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করার জন্য গ্র্যাজুয়েটদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, বিশ্বকে জানিয়ে দিন যে মুসলমানরা এখনো জ্ঞানের মশাল বহন করতে পারে।

সোমবার (২৩ মে) গাজীপুরের ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির (আইইউটি) ৩৪তম সমাবর্তনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান তিনি।

অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) অর্থায়নে পরিচালিত আইইউটির মূল উদ্দেশ হচ্ছে ওআইসি সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মানবসম্পদ উন্নয়নে বিশেষ করে প্রকৌশল, প্রযুক্তি এবং কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে অবদান রাখা।

ড. মোমেন ইসলামের গৌরবোজ্জ্বল দিনগুলোর কথা স্মরণ করে বলেন, ইসলামী স্বর্ণযুগে বিজ্ঞান, শিল্প ও সাহিত্যে মুসলিম পন্ডিতের উল্লেখযোগ্য অবদান আধুনিক সভ্যতার পথপ্রশস্ত করেছে। কিছু পশ্চিমা মিডিয়া প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আমরা সন্ত্রাসবাদী ও ধর্মান্ধ নই যেভাবে মিডিয়ার মাধ্যমে ইসলামফোবিয়ার ঢেউ সম্প্রতি আমাদের চিত্রিত করেছে।

করোনভাইরাস মহামারি সত্ত্বেও শিক্ষাবর্ষ সফলভাবে সমাপ্ত করার জন্য আইইউটি কর্তৃপক্ষকে অভিনন্দন জানান এবং ওআইসির জন্য বাংলাদেশ সরকারের অব্যাহত সহযোগিতা ও সহায়তার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এরপর তিনি শিক্ষার্থীদের হাতে সার্টিফিকেট এবং নিজ নিজ ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের ওআইসি ও আইইউটি স্বর্ণপদক তুলে দেন।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, আইইউটির ভাইস-চ্যান্সেলর, ওআইসি মহাসচিবের কার্যালয়ের প্রতিনিধিদল, কূটনৈতিক কোরের সদস্য এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

আইইউটি ওআইসি সদস্য দেশগুলো থেকে সরাসরি আর্থিক অনুদান পায় এবং এর ছাত্রদের বৃত্তি দেয়।

এমএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]