হিংসার আগুনে জ্বলছে দিল্লী, মানবতার বার্তা দিলেন নায়িকা নুসরাত

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদন ডেস্ক বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৪৭ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

হিংসার আগুনে জ্বলছে ভারতের রাজধানী দিল্লি। ১-২ নয়, ২১ জনের মৃত্যু কাঁপিয়ে দিয়েছে গোটা দেশকে। এই পরিস্থিতিতে মানবতার বার্তা দিলেন অভিনেত্রী ও তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহান।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে ট্যুইট করেছেন এই অভিনেত্রী। পোস্ট করা একটি ছবিতে তিনি লিখেছেন, ‘MUSLIM ও HINDU দুটো শব্দ। শব্দ দুটিতে নেই I আর U. অর্থাৎ দুটি শব্দ থেকেই এই দুটি অক্ষর সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।’

তলায় লেখা I আর U ছাড়া সবটাই অসম্পূর্ণ। ছবির সঙ্গে নুসরত লিখেছেন, ‘আমার দেশ জ্বলছে আর তাতে আমি কষ্ট পাচ্ছি। ভুলে গেলে চলবে না যে সবার আগে আমরা মানুষ।’ একই সঙ্গে গুজব কিংবা ভুয়ো খবর যাতে না ছড়ায় সেই বার্তাও দিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে, হিংসা না ছড়ানোর বার্তা আগেই দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লিতে শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখতে টুইট করেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বুধবার দুপুরে পর পর দুটি টুইট করেন মোদী প্রথম টুইটে তিনি লেখেন, দিল্লির বিভিন্ন এলাকায় যা ঘটছে শান্ত রাখতে পুলিশ ও অন্যান্য এজেন্সি কাজ করছে।

এর পরের টুইটটিতে নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমি দিল্লির ভাইবোনেদের শান্তি ও ভ্রাতৃত্ববোঝ বজায় রাখার আবেদন করছি। শিগগিরই শান্তি ও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসা খুব জরুরি।’

প্রসঙ্গত, গত রোববার থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) বিরোধীদের সঙ্গে দেশটির ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কর্মী সমর্থকদের সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজধানী নয়াদিল্লির বিভিন্ন অংশ। এই সহিংসতায় এখন পর্যন্ত ২১ জনের প্রাণহানি ও আরও দুই শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন।

সংঘর্ষকবলিত এলাকার কয়েকটি মসজিদে ভাঙচুর ও মুসলিমদের বাড়িঘর-দোকানপাটে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ উঠেছে নাগরিকত্ব আইনের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

এই পরিস্থিতির জন্য দিল্লির সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী কেন্দ্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে দায়ী করছেন। বুধববার সাংবাদিক বৈঠকে তিনি ঘটনার নিন্দা করে অমিত শাহের পদত্যাগ দাবি করেছেন।

এলএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]