শিল্পমন্ত্রীর সাথে চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির জরুরি মিটিং

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ২১ জুলাই ২০২০

বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলা সিনেমার অবস্থা খুব নড়বড়ে। যেমন কমছে হলের সংখ্যা তেমন বাড়ছে সিনেমা নির্মাণ ব্যয়। সব মিলিয়ে একটি খারাপ সময় পারছে করছে সিনেমাপাড়া।

এসব কিছুর মধ্যে আবার এফডিসিতে কিছুদিন ধরে চলছে পাল্টাপাল্টি অভিযোগের বন্যা এবং হচ্ছে বয়কট বয়কট খেলা।

এর মধ্যে ভালো খবর দিল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি। আজ মঙ্গলবার (২১ জুলাই) বিকেল ৫টায় শিল্পমন্ত্রী মো. হুমায়ুন মজিদ মামুনের বাসভবনে এক জরুরি সভায় বসেন এ সমিতির নেতারা। প্রযোজকদের সভাপতি খোরশেদ আলম খসরুসহ অন্যান্য সদস্য সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

খসরু জাগো নিউজকে জানান, মন্ত্রীর সঙ্গে চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়নে নানা বিষয় নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। সিনেমার ব্যবসাসমৃদ্ধ করতে নতুন কিছু প্রসঙ্গ উঠে এসেছে আলোচনায়।

এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, 'মাননীয় মন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির সৌহার্দ্যপূর্ণ আলোচনা হয়েছে। আলোচনায় চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারি ঋণের আওতায় স্বল্প সুদে ঋণ পাওয়া এবং শিল্পের সব সুবিধা পাওয়ার জন্য সফল আলোচনা হয়। ধন্যবাদ মাননীয় মন্ত্রী আমাদের সময় দেওয়ার জন্য।'

তিনি আরো বলেন, 'সিনেমাকে প্রথম শ্রেণির শিল্প হিসেবে মর্যাদা দেয়ার অনুরোধ করেছি। শিল্পীদের তো কিছু ক্যাটাগরি হয়। মন্ত্রী মহোদয় সিনেপ্লেক্সের জন্য তিনটি ইকোনমিক ডিজাইন চেয়েছেন। যেটি উনি পছন্দ করে শিল্প ব্যাংকে ঋণের সুবিধার জন্য সুপারিশ করবেন।

সিনেমা হল করার জন্য এবং সিনেপ্লেক্স করার জন্য চেয়ার, পর্দা, প্রজেক্টর থেকে শুটিংয়ের সব বিষয় শিল্পের আওতায় আনলে পরে মিনিমাম সুদে যেমন এখন ৩০ থেকে ৩৫% সুদ পরে ২-৩% সুদ পড়বে সেই জায়গাটাতে আমাদের প্রবেশ করানো হবে। মাননীয় মন্ত্রী আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন এবং আমরা বিশ্বাস করি সিনেমার সুদিন ফিরবেই।'

এলএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]