শীতে মুখের ঘা রোধে নতুন প্রলেপ

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:২০ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮

শীতে প্রায় লোকেরই মুখে ঘা দেখা যায়। যা কথা বলা থেকে শুরু করে খাবার-দাবারে বিরূপ প্রভাব ফেলে। অনেকেই একে সিজনাল সমস্যা হিসেবে দেখেন। অনেকেই ঘরোয়া চিকিৎসা নিয়ে থেমে যান। বড়জোর চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। তবে এ সমস্যার সমাধান সামনে নিয়ে এসেছে চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। বিস্তারিত জানাচ্ছেন সত্যজিৎ পাল-

মুখের ঘায়ের চিকিৎসা করতে অভিনব জীবাণু ধ্বংসকারী (বায়োডিগ্রেডেবল) প্রলেপ (প্যাচ) উদ্ভাবন করেছেন বিজ্ঞানীরা। এই প্রলেপ মুখের ভেতর প্লাস্টার বা উপলেপনের মতো কাজ করে এবং মুখের ভেতর এঁটে থাকে। এভাবেই তা মুখের ঘায়ের চিকিৎসায় সাহায্য করে।

এই জীবাণু ধ্বংসকারী প্রলেপ আর্দ্র পিঠে এঁটে থাকতে পারে। এটি সরাসরি সফলভাবে মুখের ঘায়ে স্টেরয়েড অনুপ্রবেশ ঘটাতে পারে। প্রলেপটি মুখের ঘায়ের ক্ষত থাকাকালীন ক্ষতের চতুর্দিকে প্রতিরক্ষামূলক প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে পারে। এভাবে ক্ষত নিরাময় প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে।

> আরও পড়ুন- আপনি মানসিক রোগী কিনা বুঝবেন কিভাবে? 

গবেষকরা বলছেন, ‘এই প্রলেপের দীর্ঘসময় এঁটে থাকার সক্ষমতা ও উচ্চ নমনীয়তা রয়েছে। তাই এটি মুখ গহ্বরের ভেতর আর্দ্র পিঠে নিজেকে খাপ খাওয়াতে পারে।’

বায়োমেটেরিয়ালস জার্নালে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত গবেষণা প্রবন্ধের প্রধান লেখক ইংল্যান্ডের শেফিল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ক্লিনিক্যাল ডেন্টিস্ট্রির ক্রেইগ মার্ডক বলেন, ‘এই প্রলেপ মুখ গহ্বরের ভেতর প্লাস্টারের মতো কাজ করে। যার ফলে এটি সরাসরি কোন নির্দিষ্ট অংশকে লক্ষ্য করে কাজ করতে পারে। ঘায়ের চতুর্দিকে প্রতিরক্ষামূলক প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে পারে।’

আইএএনএসের বরাত দিয়ে দ্য ইকোনোমিক টাইমসের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, বর্তমান চিকিৎসা ব্যবস্থায় স্টেরয়েডসমূহ মাউথওয়াশ, ক্রিম অথবা অয়েন্টমেন্টের মাধ্যমে দেয়া হয়। কিন্তু এসব প্রায়ই মুখের ঘায়ের সাথে পর্যাপ্ত সময় পর্যন্ত লেগে থাকতে পারে না। তাই রোগ সারতে দেরি হয়।

> আরও পড়ুন- শিশুরা যে বিষয়গুলো জন্মের আগেই জেনে যায়! 

এই প্রলেপ মুখ গহ্বরের ভেতর শ্লৈষ্মিক ঝিল্লিতে (মিউকোসা) উদ্ভুত প্রদাহ চিকিৎসায় সহায়ক হতে পারে। যেমন- ওরাল লাইকেন প্ল্যানাস (ওএলপি) এবং রিকারেন্ট (পুনঃসঙ্ঘটনশীল) এপথাস স্টোমাটাইটিস (আরএএস), যা এপথাস আলসার নামেও পরিচিত।

oral

ক্রেইগ মার্ডক বলেন, ‘মুখের ভেতর দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহজনিত সমস্যা, যেমন- ওএলপি এবং আরএএস যা ক্ষয়কারক বেদনাদায়ক ক্ষত। এসব জীবন মানের ওপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলে। রোগীরা এই প্রলেপ মুখের ভেতর লাগাতে খুব স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। এর দীর্ঘসময় এঁটে থাকার কারণে যখন কার্যকর ফল লাভ করেন; তখন খুব পরিতৃপ্ত হন।’

এই প্রলেপ মুখের ঘায়ের চিকিৎসায় কার্যকরী ব্যবস্থা হতে পারে বলে জাগো নিউজের কাছে আশা প্রকাশ করেন মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তনুজ ভৌমিক।

লেখক: ফার্মেসি বিভাগ, প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, বনানী, ঢাকা।

এসইউ/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :