যোগ দিবস শুরু হয়েছিল যেভাবে

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৪৪ এএম, ২১ জুন ২০২১

প্রতিবছর ২১ জুন আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালিত হয় বিশ্বজুড়ে। যোগাভ্যাসের উপকারিতা অনেক, নিজেকে সুস্থ ও ফিট রাখতে হলে যোগের বিকল্প আর নেই। এ কারণেই বিশ্বব্যাপী যোগব্যায়াম জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ২০২১ সালের থিম হলো-‘সুস্থতার জন্য যোগ’। করোনা মহামারির এ সময় বিশ্ববাসীকে শরীরচর্চা ও সুস্থ রাখতে এই থিম একটি আশার আলো দেখাতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, মহামারির এ সময় যোগব্যায়ামের মাধ্যমে মানসিক ও শারীরিকভাবে সুস্থ থাকা সম্ভব।

এ মহামারিতে টানা লকডাউনে কোভিড রোগীদের হতাশা এবং অন্যান্য মানসিক সমস্যা দেখা গেছে। আর তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে, ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করার সাহস জোগাতে বিভিন্ন যোগাসনের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

jagonews24

জানা যায়, হাজার হাজার বছর আগে ভারতেই প্রথম যোগচর্চা শুরু হয়েছিল। এর উল্লেখও পাওয়া যায় ঋক বেদের মতো প্রাচীন পৌরাণিক বইগুলিতে। তবে কেন ২১ জুন এই দিবসটি পালিত হয়?

jagonews24

ভারতের প্রাচীন পৌরাণিক কাহিনি অনুসারে জানা যায়, সলস্টিসকে যোগ বিজ্ঞানের উৎস বলে চিহ্নিত করা হয়। এটা মনে করা হয় যে, গ্রীষ্মকালীন সলস্টিসের একদিন আদি যোগী তার সবচেয়ে নিষ্ঠাবান সাত শিষ্যকে প্রথম দেখেন; যারা আলোকপাতের পথ প্রদর্শন না করে তাকে ছেড়ে না যাওয়ার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা করেছিলেন।

এরপর পরবর্তী পূর্ণিমাতে আদি যোগী ওই শিষ্যদের যোগিক ক্রিয়া পদ্ধতি শেখাতে শুরু করেন। তাই গ্রীষ্ণকালীন সলিস্টিসকে যোগিক ক্রিয়ার দিন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আন্তর্জাতিক যোগ দিবসটি গ্রীষ্মের সল্টসিজের দিনটিতে এইভাবে বিশেষ তাৎপর্য রাখে।

jagonews24

যোগের তাৎপর্য যোগ শব্দটি সংস্কৃত থেকে এসেছে। যার অর্থ হলো যোগ দেওয়া বা একত্রিত হওয়া। যোগ-ব্যায়াম হলো দেহ এবং চেতনার মিলন। প্রতিদিনের জীবনে ভারসাম্যপূর্ণ জীবনযাপন বজায় রাখতে সাহায্য করে।

২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্যোগেই রাষ্ট্রপুঞ্জের জেনারেল অ্যাসেম্বিলিতে এই যোগা দিবসের খসড়া প্রস্তাব পাশ হয় এবং ২১ জুনকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস বলে অ্যাখা দেওয়া হয়।

jagonews24

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী বিশ্ব নেতাদের এই দিবসকে গ্রহণ করতে বলেন এবং তিনি জানান যে যোগা জীবনকে পরিবর্তন করে এবং চেতনা তৈরি করে, এটা জলবায়ু পরিবর্তনে সহায়তাও করে।

প্রথম আন্তর্জাতিক যোগ দিবসটি ১৫ই জুন, ২০১৫ বিশ্বব্যাপী পালিত হয়েছিল। ভারতের আয়ুশ মন্ত্রক একটি কর্মসূচির আয়োজন করেছিল; যেখানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে ৮৪টি দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা অংশ নিয়েছিলেন। নয়াদিল্লির রাজঘাটে মোট ৩৫ হাজার ৯৮৫ মানুষ ২১ রকমের যোগাসন করেছিলেন। যার দুটি গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বুকে নাম উঠে যায়।

জেএমএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]