সংস্কৃতি : ওস্তাদ বজলুর রহমান বাদল


প্রকাশিত: ১১:০৮ এএম, ১২ এপ্রিল ২০১৭

সংস্কৃতি ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ওস্তাদ বজলুর রহমানকে স্বাধীনতা পুরস্কার ২০১৭ প্রদান করা হয়। তাঁকে নিয়ে আজকের আয়োজন–

রজলুর রহমান বাদল ১৯২৩ সালের ১৮ অক্টোবর পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৪৫ সালে মালদহ জেলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৪৬ সালে তিনি তাঁর পিতা-মাতার সঙ্গে মালদহ থেকে রাজশাহীতে চলে আসেন।

শৈশব থেকেই নৃত্যশিল্পের প্রতি বজলুর রহমানের ছিল গভীর আকর্ষণ। তৎকালীন মুসলিম সমাজের রক্ষণশীল দৃষ্টিভঙ্গি উপেক্ষা করে ১৯৩৪ সাল থেকে তিনি প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নৃত্য অনুশীলন শুরু করেন। ১৯৪৭ থেকে অদ্যাবধি তিনি নৃত্যশিল্পে নিজেকে ব্যাপৃত রেখেছেন। কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী কবিতার ছন্দে ছন্দে নৃত্য পরিবেশন করে তিনি সারাদেশে অসামান্য খ্যাতি অর্জন করেন। নৃত্যকলার প্রতিটি শাখাতেই তিনি ছাপ রেখেছেন স্বকীয়তা, নৈপুণ্য ও দক্ষতার। তবে লোকনৃত্যের প্রতি তাঁর ঝোঁক ছিল দুর্নিবার।

prize

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের অসংখ্য অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করে ওস্তাদ বজলুর রহমান অপার প্রশংসা ও জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। দেশে নৃত্যকলার ব্যাপক প্রচার ও প্রসার এবং অপসংস্কৃতি থেকে নবীন প্রজন্মকে রক্ষা করার মানসে আজীবন তিনি নৃত্যকলা প্রশিক্ষণে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। তাঁর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অসংখ্য নৃত্যশিল্পী দেশে-বিদেশে সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছেন।

বাংলাদেশের নৃত্যশিল্প জগতের উজ্জ্বল নক্ষত্র ওস্তাদ বজলুর রহমান বাদল ৯৪ বছর বয়সেও নৃত্যচর্চা ও প্রশিক্ষণে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। প্রবীণ এই শিল্পী বর্তমানে নৃত্য বিভাগের প্রশিক্ষক হিসেবে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সঙ্গে সংযুক্ত রয়েছেন।

ওস্তাদ বজলুর রহমান আঞ্চলিক ও জাতীয় পর্যায়ের ৭৬টি প্রতিষ্ঠান থেকে সংবর্ধিত ও পুরস্কৃত হয়েছেন। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য- ২০০২ সালে রাজশাহী অ্যাসোসিয়েশন স্বর্ণপদক, ১৯৯৮ সালে ওস্তাদ মোজাম্মেল হোসেন স্মৃতিপদক, ২০০১ সালে জাতীয় নৃত্যশিল্পী সংস্থা ও ঢাকা নৃত্যাঞ্চল প্রদত্ত সম্মাননা এবং ১৯৮৩ সালে বরেন্দ্র একাডেমি, ১৯৮৫ সালে রাজশাহী থিয়েটার, ১৯৯৭ সালে সংগীত শিক্ষা ভবন, ১৯৯৭ সালে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন, ২০০০ সালে রাজশাহী সাংস্কৃতিক সংঘ ও ১৪০৪ বঙ্গাব্দে জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মেলনে সংবর্ধনা। নৃত্যচর্চায় গৌরবোজ্জ্বল কর্মের জন্য এই নৃত্যগুরুকে বাংলাদেশ শিল্পকলা পদক-২০১৪ (নৃত্য) প্রদান করা হয়।

এসইউ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]