সংক্রমণ-মৃত্যু কমলেও ফের বৃদ্ধির ‘আতঙ্ক’ কাটছে না

মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল
মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:২৫ এএম, ২১ মে ২০২১ | আপডেট: ০৫:২৯ এএম, ২১ মে ২০২১
ফাইল ছবি

রাজধানীসহ সারাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুহার হ্রাস পেলেও জনমনে করোনা আতঙ্ক কাটছে না। গত কিছুদিন যাবৎ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে। দৈনিক গড়ে নতুন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের হার ১০ শতাংশের নিচে অবস্থান করছে। করোনায় মৃতের সংখ্যাও ২৫ থেকে ৪০ জনের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকছে।

বৃহস্পতিবার (২০ মে) সর্বশেষ গত ২৪ ঘন্টায় ১৯ হাজার ৪৩৭টি নমুনা পরীক্ষা করে নতুন এক হাজার ৪৫৭ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। নমুনার সংখ্যার হিসেবে শনাক্তের হার সাত দশমিক ৫০ শতাংশ। একই সময়ে মৃত্যু হয় ৩৬ জনের। শতাংশের হিসেবে মৃত্যুহার এক দশমিক ৫৬ শতাংশ।

স্বাস্থ্য ও রোগতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত ৫ এপ্রিল থেকে চলমান লকডাউনসহ সরকারের নেয়া বিভিন্ন ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে সংক্রমণ ও মৃত্যুহার কমে এসেছে। তবে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঈদের আগে ও পরে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গ্রাম ও শহরমুখী লাখো মানুষের ঢল নিয়ে তারা চিন্তিত। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এর প্রতিফলন দেখা যাবে বলে তারা আশঙ্কা করছেন। এ ছাড়া সংখ্যায় কম হলেও ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগীও শনাক্ত হয়েছে।

সরকার ভারতের সঙ্গে সংযুক্ত সীমান্ত পথে কঠোর নজরদারি করছে। মাত্র তিনটি বর্ডার দিয়ে জরুরি ভিত্তিতে ভারত ও বাংলাদেশে যাত্রী আসাযাওয়া করছে। ভারত থেকে ফেরা শনাক্তকৃত ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগীদের কোয়ারেন্টাইনে রেখে এবং তাদের সংস্পর্শে আসা সকলের প্রতি নজরদারি রাখা হচ্ছে। তবে যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে সাধারণ ও আইসিইউ, আইসিইউ সমতুল্য এবং সাধারণ শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার, অক্সিজেন কনসেনট্রেটর ও হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলাসহ চিকিৎসা সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম একাধিকবার গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, উন্নতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দেখা গেছে, কোনো দেশে অতিরিক্ত মাত্রায় রোগী সংক্রমিত হলে স্বাস্থ্যব্যবস্থার আওতায় সকলকে আনা সম্ভব হয় না। এ কারণে সংক্রমণ হ্রাস করতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাই সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা বলে মন্তব্য করেন তারা।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো.নাজমুল ইসলাম নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বার বার দেশের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে করোনার সংক্রমণ রোধে যোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রযোজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই। দেশে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার চলমান কার্যক্রম আগামী দু/চারদিনের মধ্যে শেষ হচ্ছে (উল্লেখ্য, এখনও কমবেশি ১৭/১৮ লাখের দ্বিতীয় ডোজের টিকা বাকি রয়েছে)। তবে সরকার চীন, রাশিয়া ও আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে টিকা সংগ্রহের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। যতদিন টিকা না পাওয়া যায় ততদিন টিকা কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, ‌‘ভারতীয়, ইউকে বা অন্য যে দেশের ভ্যারিয়েন্টই হোক না কেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে সংক্রমিত হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

jagonews24

যে অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টা চলছে

চলতি বছরের মার্চের শেষে রাজধানীনহ সারাদেশে করোনাভাইরাসের তীব্র সংক্রমণ ও এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিসংখ্যান অনুসারে গত ৩১ মার্চ রাজধানীসহ সারাদেশে ২২৪টি সরকারি ও বেসরকারি করোনা টেস্ট ল্যাবরেটরিতে ২৬ হাজার ৬৭১টি নমুনা সংগ্রহ ও ২৬ হাজার ৯৩১টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ হাজার ৩৫৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ছিল ১৯ দশমিক ৯০ অর্থাৎ ২০ শতাংশ। একই সময়ে মৃত্যু হয় ৫২ জনের।

এপ্রিল মাসে রেকর্ডসংখ্যক একদিনে সর্বোচ্চ সাত হাজারেরও বেশি রোগী শনাক্ত হয়। মাসের তৃতীয় সপ্তাহের শুরু থেকে টানা কয়েকদিন করোনায় শতাধিক রোগীর মৃত্যু হয়। ১৬ থেকে ১৯ এপ্রিল যথাক্রমে মৃতের সংখ্যা ছিল ১০১, ১০১, ১০২ এবং ১১২ জন।

সংক্রমণ বৃদ্ধির ওই সময়ে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালেগুলোতে সাধারণ ও আইসিইউ শয্যা সংকট দেখা দেয়। বিশেষ করে মুমূর্ষু করোনা রোগীকে আইসিইউ’র একটি শয্যায় ভর্তির জন্য অভিভাবক ও স্বজনরা পাগলের মতো রোগীকে অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ঘুরতে থাকে। হাসপাতালে ভর্তি না হতে পেরে অ্যাম্বুলেন্সে রোগীর মৃত্যুর মতো ঘটনাও ঘটে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর লাগাম টেনে ধরতে লকডাউন দিতে বাধ্য হয় সরকার। গত ৫ এপ্রিল থেকে চলমান লকডাউন এখনও চলছে। প্রথম এক সপ্তাহ ঢিলেঢালা ও পরবর্তীতে ১৪ এপ্রিল (১ রমজান ও ১ বৈশাখ) থেকে সর্বাত্মক লকডাউন শুরু হয়। বিশেষ প্রয়োজনে পুলিশ মুভমেন্ট পাস ছাড়া ঘরের বাইরে বের না হওয়ার মতো কঠোর ও সর্বাত্মক লকডাউন চলে। সারাদেশে সকল ধরনের গণপরিবহন (বাস, লঞ্চ, বাস ও ট্রেন ও আকাশ পথে) চলাচল বন্ধ রাখা হয়। মার্কেট ও শপিং মল বন্ধ থাকে। পরবর্তীতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার স্বার্থে মার্কেট ও শপিং মল খুলে দেয়া হয়। মহানগরীতে গণপরিবহন চলাচল শুরু হলেও আন্তঃজেলা পরিবহন বন্ধই রাখা হয়। হাসপাতালে করোনা শয্যা বৃদ্ধি ও নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাব সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়। নানা উদ্যোগ গ্রহণের ফলে সংক্রমণ ও মৃত্যু কমে আসে। তবে আবারও তা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। ২০ মে পর্যন্ত দেশে সর্বমোট ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ৮৮৩টি নমুনা পরীক্ষা করে সাত লাখ ৮৫ হাজার ১৯৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে ২০ মে পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ১২ হাজার ২৮৪ জনের। মোট মৃতের মধ্যে পুরুষ ৮ হাজার ৮৮৪ জন ও নারী ৩ হাজার ৪০০ জন। সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যু হয়েছে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগে যথাক্রমে ৭ হাজার ৮৪ জন (৫৭ দশমিক ৬৭ শতাংশ) ও ২ হাজার ৩১৪ জন (১৮ দশমিক ৮৪ শতাংশ)।

বয়সভিত্তিক পরিসংখ্যান অনুসারে ৮১ শতাংশের মৃত্যু হয় ৫০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের। সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যু হয়েছে ৫৭ শতাংশের বেশি ৬০ বছরের বেশি বয়স্ক মানুষের।

এমইউ/ইএ

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

২০,০৭,০৩,০৯৫
আক্রান্ত

৪২,৬৫,৮৮৬
মৃত

১৮,০৮,২০,৫৩৪
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ১৩,০৯,৯১০ ২১,৬৩৮ ১১,৪১,১৫৭
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩,৬০,৬৪,১৮০ ৬,৩০,৫৮২ ২,৯৭,৫৭,৪০৮
ভারত ৩,১৮,১০,৪২৭ ৪,২৬,৩১৯ ৩,০৯,৬৬,৫৭৬
ব্রাজিল ১,৯৯,৮৬,০৭৩ ৫,৫৮,৫৯৭ ১,৮৭,৪৬,৮৬৫
রাশিয়া ৬৩,৫৬,৭৮৪ ১,৬১,৭১৫ ৫৬,৭৯,৮৪২
ফ্রান্স ৬২,০৭,৪১৬ ১,১২,০৪৬ ৫৭,২১,৩৪৮
যুক্তরাজ্য ৫৯,৫২,৭৫৬ ১,৩০,০০০ ৪৫,৬৭,৫১৬
তুরস্ক ৫৭,৯৫,৬৬৫ ৫১,৬৪৫ ৫৪,৭২,০৮৯
আর্জেন্টিনা ৪৯,৬১,৮৮০ ১,০৬,৪৪৭ ৪৬,০৬,০২৬
১০ কলম্বিয়া ৪৮,০৭,৯৭৯ ১,২১,৪৮৪ ৪৬,০৬,১৪০
১১ স্পেন ৪৫,৪৫,১৮৪ ৮১,৮৪৪ ৩৭,৬০,৯৭১
১২ ইতালি ৪৩,৬৯,৯৬৪ ১,২৮,১৩৬ ৪১,৪৪,৬০৮
১৩ ইরান ৪০,১৯,০৮৪ ৯২,১৯৪ ৩৪,৪৪,৭৯৮
১৪ জার্মানি ৩৭,৮৩,৪৯৩ ৯২,২১২ ৩৬,৫৯,৯০০
১৫ ইন্দোনেশিয়া ৩৫,৩২,৫৬৭ ১,০০,৬৩৬ ২৯,০৭,৯২০
১৬ পোল্যান্ড ২৮,৮৩,৪৪৮ ৭৫,২৬৯ ২৬,৫৩,৯৮১
১৭ মেক্সিকো ২৮,৮০,৪০৯ ২,৪১,৯৩৬ ২২,৫৭,৪৪৩
১৮ দক্ষিণ আফ্রিকা ২৪,৮৪,০০৯ ৭৩,৪১৫ ২২,৫৮,৬০৩
১৯ ইউক্রেন ২২,৫৫,৩৪৫ ৫৩,০২৪ ২১,৮৮,২৭৩
২০ পেরু ২১,১৬,৬৫২ ১,৯৬,৫৯৮ ১৭,২০,৬৬৫
২১ নেদারল্যান্ডস ১৮,৭৪,৮৫৬ ১৭,৮৩৯ ১৬,৭২,৭৯৩
২২ চেক প্রজাতন্ত্র ১৬,৭৪,১৮৩ ৩০,৩৭৮ ১৬,৪১,৩২১
২৩ ইরাক ১৬,৭৩,০৮৪ ১৮,৯৩৮ ১৪,৯৪,৭৬০
২৪ ফিলিপাইন ১৬,১৯,৮২৪ ২৮,২৩১ ১৫,২৮,৪২২
২৫ চিলি ১৬,১৯,১৮৩ ৩৫,৬৭১ ১৫,৭৫,৩৭৭
২৬ কানাডা ১৪,৩৪,১০৭ ২৬,৬১৭ ১৩,৯৯,৬৮৪
২৭ মালয়েশিয়া ১১,৮৩,১১০ ৯,৮৫৫ ৯,৬২,৭৩৩
২৮ বেলজিয়াম ১১,৩০,৭৫৮ ২৫,২৫১ ১০,৫৯,৮৯৬
২৯ সুইডেন ১১,০২,৮২৯ ১৪,৬২০ ১০,৭৭,০৪৯
৩০ রোমানিয়া ১০,৮৩,৯৮২ ৩৪,২৯৮ ১০,৪৮,০৭২
৩১ পাকিস্তান ১০,৪৭,৯৯৯ ২৩,৫৭৫ ৯,৪৫,৮২৯
৩২ পর্তুগাল ৯,৭৭,৪০৬ ১৭,৪১২ ৯,১২,৬২০
৩৩ জাপান ৯,৫৬,৪০৭ ১৫,২১৯ ৮,৫২,৬০৭
৩৪ ইসরায়েল ৮,৮৫,৭৬৬ ৬,৫০৩ ৮,৫৪,৯৯৫
৩৫ হাঙ্গেরি ৮,০৯,৭৩১ ৩০,০৩২ ৭,৪৯,৭৭৩
৩৬ জর্ডান ৭,৭৪,৫৫৪ ১০,০৮২ ৭,৫২,৬২৪
৩৭ সার্বিয়া ৭,২৩,৫১৮ ৭,১২৯ ৭,১১,১৭২
৩৮ সুইজারল্যান্ড ৭,২১,৭৭৬ ১০,৯০৮ ৬,৯২,৮৮০
৩৯ নেপাল ৭,০৫,০৭২ ৯,৯৫৭ ৬,৬১,৬৫১
৪০ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৬,৮৬,৯৮১ ১,৯৬৫ ৬,৬৪,১৩০
৪১ থাইল্যান্ড ৬,৭২,৩৮৫ ৫,৫০৩ ৪,৫৫,৮০৬
৪২ অস্ট্রিয়া ৬,৬০,৮৫৪ ১০,৭৪৪ ৬,৪৪,৩৮৮
৪৩ মরক্কো ৬,৫৩,২৮৬ ১০,০১৫ ৫,৮২,৬৯২
৪৪ কাজাখস্তান ৬,০২,৯৫২ ৬,২৭৭ ৪,৯২,৬৮৯
৪৫ তিউনিশিয়া ৫,৯৯,৫৯৪ ২০,৪১০ ৫,২৫,৮৮৯
৪৬ লেবানন ৫,৬৪,৩৫৪ ৭,৯১৭ ৫,৩৭,৬৫৩
৪৭ সৌদি আরব ৫,২৯,৯৯৫ ৮,২৮৪ ৫,১১,৩১৮
৪৮ গ্রীস ৫,০৩,৮৮৫ ১২,৯৮৮ ৪,৫৮,৯২২
৪৯ ইকুয়েডর ৪,৮৭,৭০২ ৩১,৬৪৪ ৪,৪৩,৮৮০
৫০ বলিভিয়া ৪,৭৫,২৬৫ ১৭,৮৮২ ৪,১০,৮৩৩
৫১ প্যারাগুয়ে ৪,৫৩,৩৬৭ ১৫,১৩৫ ৪,২২,৯৯৫
৫২ বেলারুশ ৪,৪৯,৩০২ ৩,৪৯৪ ৪,৪৩,৪১৭
৫৩ পানামা ৪,৩৭,৭৪৪ ৬,৮৫১ ৪,১৮,৯৩৫
৫৪ জর্জিয়া ৪,৩২,৯০৩ ৫,৯৪৮ ৩,৯০,৮২৭
৫৫ বুলগেরিয়া ৪,২৬,০০৩ ১৮,২২৫ ৩,৯৮,৬৬৯
৫৬ কিউবা ৪,২২,৬১৪ ৩,০৯১ ৩,৭৩,৩৫৪
৫৭ কোস্টারিকা ৪,১১,১২৩ ৫,০৭০ ৩,৩৪,১১৭
৫৮ কুয়েত ৪,০০,১২৮ ২,৩৪৫ ৩,৮৭,৮৩২
৫৯ স্লোভাকিয়া ৩,৯২,৮৪৫ ১২,৫৪১ ৩,৭৯,৬৪৪
৬০ উরুগুয়ে ৩,৮১,৮৫৩ ৫,৯৭৬ ৩,৭৪,০৪৪
৬১ গুয়াতেমালা ৩,৭৩,০৪৭ ১০,৪৮৩ ৩,২৮,৭৬৫
৬২ ক্রোয়েশিয়া ৩,৬৪,২৪৪ ৮,২৬৭ ৩,৫৪,৮৩০
৬৩ আজারবাইজান ৩,৪৬,৮৭৮ ৫,০৩৯ ৩,৩৩,৬৯৪
৬৪ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৩,৪৩,১৮৬ ৩,৯৭১ ৩,২৪,৮৬১
৬৫ ডেনমার্ক ৩,২০,২২২ ২,৫৫০ ৩,০৬,৩২৪
৬৬ শ্রীলংকা ৩,১৮,৭৫৫ ৪,৭২৭ ২,৮৪,৫২৪
৬৭ ফিলিস্তিন ৩,১৭,৪০৪ ৩,৬০৯ ৩,১২,৩২০
৬৮ মায়ানমার ৩,১৫,১১৮ ১০,৬৯৫ ২,২৫,৮৪৯
৬৯ ভেনেজুয়েলা ৩,০৮,৪৫২ ৩,৬৩৭ ২,৯৩,৬৭২
৭০ আয়ারল্যান্ড ৩,০৫,৫২৭ ৫,০৪৪ ২,৬৯,৬০৬
৭১ হন্ডুরাস ৩,০১,৭০০ ৭,৯৬২ ১,০১,৯০৯
৭২ ওমান ২,৯৭,৭২৪ ৩,৮৮৯ ২,৮১,৭২৪
৭৩ মিসর ২,৮৪,৪১৫ ১৬,৫৪০ ২,৩২,০৬০
৭৪ লিথুনিয়া ২,৮৪,১৯১ ৪,৪২২ ২,৬৯,৮৪০
৭৫ ইথিওপিয়া ২,৮১,৮১১ ৪,৪০৩ ২,৬৪,০০৮
৭৬ বাহরাইন ২,৬৯,৪৯৫ ১,৩৮৪ ২,৬৭,০৯৬
৭৭ লিবিয়া ২,৬০,৯৫১ ৩,৬৩৫ ১,৯৫,৬৩৯
৭৮ মলদোভা ২,৬০,০২৪ ৬,২৬৬ ২,৫২,৪২১
৭৯ স্লোভেনিয়া ২,৫৯,৬২৫ ৪,৪২৯ ২,৫৩,৯৭২
৮০ আর্মেনিয়া ২,৩০,৯৯৩ ৪,৬২৫ ২,২০,৪৩৮
৮১ কাতার ২,২৬,৮৭৪ ৬০১ ২,২৪,২৮৫
৮২ কেনিয়া ২,০৬,৬৯১ ৪,০২৫ ১,৯১,১৮৮
৮৩ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ২,০৫,৯৪৯ ৯,৬৮৯ ১,৮৯,৭১০
৮৪ দক্ষিণ কোরিয়া ২,০৩,৯২৬ ২,১০৬ ১,৭৯,১২৩
৮৫ জাম্বিয়া ১,৯৭,৭৯১ ৩,৪৩০ ১,৮৯,৬৫৮
৮৬ আলজেরিয়া ১,৭৬,৭২৪ ৪,৪০৪ ১,১৮,৪০৯
৮৭ নাইজেরিয়া ১,৭৫,২৬৪ ২,১৬৩ ১,৬৫,১২২
৮৮ ভিয়েতনাম ১,৭৪,৪৬১ ২,০৭১ ৫০,৮৩১
৮৯ মঙ্গোলিয়া ১,৬৮,৬৭৩ ৮৩৩ ১,৬৪,৮২৯
৯০ কিরগিজস্তান ১,৬৬,২৩৬ ২,৩৬৩ ১,৫০,৮৫২
৯১ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১,৫৬,৭০৭ ৫,৪৯৭ ১,৫০,৪৪০
৯২ আফগানিস্তান ১,৪৯,৩৬১ ৬,৮৬৪ ১,০১,৩২৯
৯৩ লাটভিয়া ১,৩৯,১৩৪ ২,৫৫৮ ১,৩৫,৬৯০
৯৪ নরওয়ে ১,৩৮,৯৪৫ ৮০৪ ৮৮,৯৫২
৯৫ এস্তোনিয়া ১,৩৪,২২১ ১,২৭৩ ১,২৯,১৮৩
৯৬ আলবেনিয়া ১,৩৩,৩১০ ২,৪৫৭ ১,৩০,৩১৪
৯৭ উজবেকিস্তান ১,৩২,৯০১ ৯০১ ১,২৬,৩৭৭
৯৮ মোজাম্বিক ১,২৬,৩৯১ ১,৫০০ ৯৬,৪৪৬
৯৯ নামিবিয়া ১,১৯,৯৮৪ ৩,১১২ ৯৬,৫৬৮
১০০ বতসোয়ানা ১,১৫,২২০ ১,৬৫৩ ৯৬,৯৬৪
১০১ জিম্বাবুয়ে ১,১২,৪৩৫ ৩,৬৭৬ ৮১,৫৭০
১০২ ফিনল্যাণ্ড ১,০৯,২৩০ ৯৮২ ৪৬,০০০
১০৩ ঘানা ১,০৫,৫১২ ৮৪৪ ৯৮,৩৯২
১০৪ সাইপ্রাস ১,০৩,৮৮৯ ৪৩০ ৮০,১৭৮
১০৫ মন্টিনিগ্রো ১,০২,৬৬০ ১,৬৩৩ ৯৯,১৫২
১০৬ উগান্ডা ৯৪,৭৩৯ ২,৭৩৪ ৮৬,৮২৬
১০৭ চীন ৯৩,২৮৯ ৪,৬৩৬ ৮৭,৪১৩
১০৮ এল সালভাদর ৮৭,৪৯৮ ২,৬৭২ ৭৬,৬৭০
১০৯ ক্যামেরুন ৮২,০৬৪ ১,৩৩৪ ৮০,৪৩৩
১১০ কম্বোডিয়া ৭৯,৬৩৪ ১,৪৮৮ ৭২,৮০৩
১১১ মালদ্বীপ ৭৭,৮৯৫ ২২২ ৭৫,০৯৫
১১২ লুক্সেমবার্গ ৭৪,১৪৪ ৮২৪ ৭২,৩০৬
১১৩ রুয়ান্ডা ৭২,৮৪১ ৮৪৪ ৪৪,৮৮৭
১১৪ সিঙ্গাপুর ৬৫,৪১০ ৩৮ ৬৩,২৫২
১১৫ সেনেগাল ৬৪,৫২২ ১,৪২৩ ৪৮,৮১২
১১৬ মালাউই ৫৪,১৭৮ ১,৭২৯ ৩৯,৮৪১
১১৭ জ্যামাইকা ৫৩,৬৩৯ ১,২০৭ ৪৭,১০১
১১৮ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৫০,৭৯৩ ১,০৪৫ ৩০,০৪৩
১১৯ আইভরি কোস্ট ৫০,৪৯৯ ৩৩২ ৪৯,৫৫৩
১২০ অ্যাঙ্গোলা ৪৩,০৭০ ১,০২২ ৩৯,৩৮৯
১২১ মাদাগাস্কার ৪২,৬৮৫ ৯৪৩ ৪১,১৭৭
১২২ রিইউনিয়ন ৪০,২৪৫ ২৮৮ ৩৫,৫৬৩
১২৩ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৩৯,১৬২ ১,১০১ ৩২,৩০৫
১২৪ সুদান ৩৭,১৩৮ ২,৭৭৬ ৩০,৮৬৭
১২৫ অস্ট্রেলিয়া ৩৫,০৮৬ ৯২৭ ৩০,৩৯৭
১২৬ মালটা ৩৪,৫৯০ ৪২৩ ৩২,৪৩৮
১২৭ ফিজি ৩৩,৯২০ ২৭২ ১০,৮৪৮
১২৮ কেপ ভার্দে ৩৩,৯০৬ ২৯৮ ৩৩,১৭৩
১২৯ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৩০,৪৪৯ ১৮৯ ৯,৯৯৫
১৩০ ইসওয়াতিনি ২৮,৫৩৫ ৮১৮ ২২,১২৭
১৩১ মৌরিতানিয়া ২৬,৯০২ ৫৮১ ২২,৮৫৯
১৩২ গিনি ২৬,১৮৮ ২৩৮ ২৪,৪৬৩
১৩৩ সিরিয়া ২৬,০২৬ ১,৯১৮ ২২,০১১
১৩৪ সুরিনাম ২৫,৫৪৯ ৬৫৪ ২১,৯১৩
১৩৫ গ্যাবন ২৫,৪০৫ ১৬৪ ২৫,১৯১
১৩৬ গায়ানা ২২,৬৪৩ ৫৪৯ ২২,৩২৭
১৩৭ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ২০,৮৫৯ ১৫৪ ১৯,৪১৬
১৩৮ হাইতি ২০,৩০৭ ৫৬০ ১৪,৭২৪
১৩৯ মায়োত্তে ২০,১৭৬ ১৭৪ ২,৯৬৪
১৪০ গুয়াদেলৌপ ১৯,৫০৩ ২৪২ ২,২৫০
১৪১ মার্টিনিক ১৯,১৪৯ ১১১ ১০৪
১৪২ সিসিলি ১৮,৩৮৪ ৯৪ ১৭,৮৭৪
১৪৩ পাপুয়া নিউ গিনি ১৭,৭৭৪ ১৯২ ১৭,৩৮৪
১৪৪ টোগো ১৬,০৫৩ ১৫৫ ১৪,৫৯২
১৪৫ তাইওয়ান ১৫,৭৪২ ৭৯১ ১৪,২১১
১৪৬ সোমালিয়া ১৫,৬৫৮ ৮৩২ ৭,৬৬১
১৪৭ তাজিকিস্তান ১৫,৩৬৪ ১২১ ১৪,৮৬৭
১৪৮ বাহামা ১৫,০৪৬ ২৯২ ১২,৬২৮
১৪৯ এনডোরা ১৪,৭৯৭ ১২৮ ১৪,৩৮০
১৫০ মালি ১৪,৬০৫ ৫৩৪ ১৩,৯৬২
১৫১ বেলিজ ১৪,২৮৪ ৩৩৮ ১৩,৫১৪
১৫২ কিউরাসাও ১৩,৭৫৭ ১২৭ ১৩,০২৩
১৫৩ লেসোথো ১৩,৬০৩ ৩৭৭ ৬,৬৬৪
১৫৪ বুর্কিনা ফাঁসো ১৩,৫৯১ ১৬৯ ১৩,৩৮৫
১৫৫ কঙ্গো ১৩,২১৬ ১৭৮ ১২,৪২১
১৫৬ হংকং ১১,৯৯৭ ২১২ ১১,৭১৯
১৫৭ আরুবা ১১,৮৭৭ ১১১ ১১,২২০
১৫৮ জিবুতি ১১,৬৫৫ ১৫৬ ১১,৪৯১
১৫৯ পূর্ব তিমুর ১১,১৪৫ ২৬ ১০,০২৫
১৬০ দক্ষিণ সুদান ১১,০৮১ ১২০ ১০,৫১৪
১৬১ নিকারাগুয়া ৯,৮৫৩ ১৯৬ ৪,২২৫
১৬২ চ্যানেল আইল্যান্ড ৯,৪৪৩ ৮৯ ৮,২৮২
১৬৩ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৮,৯২৮ ১২৩ ৮,৭০৯
১৬৪ বেনিন ৮,৩৯৪ ১০৮ ৮,১৩৬
১৬৫ আইসল্যান্ড ৮,৩৫৩ ৩০ ৬,৯৯৩
১৬৬ গাম্বিয়া ৮,২৯৬ ২২৭ ৭,১২২
১৬৭ বুরুন্ডি ৭,৫১৮ ৩৮ ৭৭৩
১৬৮ লাওস ৭,৩০৫ ৩,৮০৪
১৬৯ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৭,১৫১ ৯৮ ৬,৮৫৯
১৭০ ইয়েমেন ৭,০৯৬ ১,৩৮০ ৪,২৫১
১৭১ ইরিত্রিয়া ৬,৫৬৮ ৩৫ ৬,৪৭৫
১৭২ সিয়েরা লিওন ৬,২৯৬ ১২০ ৪,২৮৭
১৭৩ নাইজার ৫,৬৫৮ ১৯৬ ৫,৩৪৯
১৭৪ সেন্ট লুসিয়া ৫,৬৫২ ৮৯ ৫,৩৯০
১৭৫ লাইবেরিয়া ৫,৪৫৯ ১৪৮ ২,৭১৫
১৭৬ সান ম্যারিনো ৫,১৪৭ ৯০ ৫,০০৯
১৭৭ জিব্রাল্টার ৫,০৫৬ ৯৪ ৪,৬৭০
১৭৮ আইল অফ ম্যান ৫,০২২ ৩০ ৩,৭৬১
১৭৯ চাদ ৪,৯৭৩ ১৭৪ ৪,৭৯৪
১৮০ গিনি বিসাউ ৪,৫৮৮ ৭৮ ৩,৯৯৫
১৮১ বার্বাডোস ৪,৪২২ ৪৮ ৪,২৫১
১৮২ মরিশাস ৪,৩৯৩ ২০ ১,৮৫৪
১৮৩ কমোরস ৪,০২৮ ১৪৭ ৩,৮৬৯
১৮৪ লিচেনস্টেইন ৩,০৯১ ৫৯ ৩,০১১
১৮৫ মোনাকো ২,৯২৬ ৩৩ ২,৭৪৪
১৮৬ নিউজিল্যান্ড ২,৮৭৯ ২৬ ২,৮২৪
১৮৭ সিন্ট মার্টেন ২,৮২৪ ৩৪ ২,৬৭৮
১৮৮ বারমুডা ২,৫৮৯ ৩৩ ২,৫০৩
১৮৯ সেন্ট মার্টিন ২,৫৭৯ ৩৮ ১,৩৯৯
১৯০ ভুটান ২,৫৪০ ২,৪১৮
১৯১ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ২,৫০০ ৩১ ১,৯১৪
১৯২ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২,৪৮৬ ১৮ ২,৪৩৩
১৯৩ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ২,২৯৭ ১২ ২,২৩০
১৯৪ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১,৭১০ ১৭ ৬,৪৪৫
১৯৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১,৩১১ ৪৩ ১,২৩৯
১৯৬ সেন্ট বারথেলিমি ১,১৯৫ ৪৬২
১৯৭ তানজানিয়া ১,০১৭ ২১ ১৮৩
১৯৮ ফারে আইল্যান্ড ৯৮৭ ৯৬৩
১৯৯ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
২০০ কেম্যান আইল্যান্ড ৬৪৪ ৬৩৫
২০১ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৬০০ ৫৪৯
২০২ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৪৪৫ ৪৩৮
২০৩ ব্রুনাই ৩৩৮ ২৮০
২০৪ ডোমিনিকা ২১৮ ২০৯
২০৫ গ্রেনাডা ১৬৪ ১৬১
২০৬ গ্রীনল্যাণ্ড ১৩৫ ৮৭
২০৭ নিউ ক্যালেডোনিয়া ১৩৪ ৫৮
২০৮ এ্যাঙ্গুইলা ১১৩ ১১১
২০৯ ম্যাকাও ৬৩ ৫৪
২১০ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৬৩ ৬৩
২১১ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ২৮ ২৬
২১২ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ২৭
২১৩ মন্টসেরাট ২১ ১৯
২১৪ সলোমান আইল্যান্ড ২০ ২০
২১৫ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৬ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৭ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ সামোয়া
২২০ সেন্ট হেলেনা
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]