ভালোবাসা দিবসে বিয়ে করতে মরিয়া জাপানের সমকামী যুগলরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৩৮ পিএম, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আসছে ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। সারা বিশ্বের প্রেমিক-প্রেমিকাদের কাছে বিশেষ দিন এটি। প্রেমিক-প্রেমিকারা একে অন্যকে সময় দেয়ার জন্য বিশেষভাবে পালন করেন এই দিনটি। যতটুকু পারেন প্রিয়জনকে সময় দেয়ার চেষ্টা করেন। তবে এবার ভালোবাসা দিবসে এসবের একটু বেশিই করতে চাচ্ছেন জাপানের সমকামী যুগলরা। বিয়ে করার অধিকার আদায়ে আদালতে মামলা করতে যাচ্ছেন তারা। খবর ডয়চে ভেলের।

জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যটির খবরে বলা হয়েছে, জাপানে ১৮৮০ সাল থেকেই সমকামে আইনত কোনো বাধা নেই। দেশটি সমকামী, উভকামী এবং হিজড়া সম্প্রদায়ের (এলজিবিটি) ব্যাপারে এশিয়ার অন্যান্য দেশের চেয়ে তুলনামূলক বেশি সহনশীল। তবে খোলামেলাভাবে সমকামী দাবি করার ব্যাপারে এখনও সমাজে কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়ে গেছে। এই মনোভাবে পরিবর্তন আনতে এক যুগল ২৫টি দেশে যেখানে সমকামী বিয়ে বৈধ সেখানে তাদের বিয়ের ছবি প্রদর্শনী করার কথা ভাবছেন।

শুধু রাজধানী টোকিওতে নয়, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারিতে কমপক্ষে চারটি শহরের আদালতে মামলা হবে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন ইয়োশি ইয়োকোইয়ামা নামের এক আইনজীবী।

থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ওই আইনজীবী বলেন, ‘সংবিধান আপনাকে সুখী থাকার অধিকার দিয়েছে, সমঅধিকার দিয়েছে। তাই সমকামীদের বিয়ের অধিকার না দিয়ে আপনি তা লঙ্ঘন করছেন।’ তিনি আবেদনকারীদের পক্ষে লড়ছেন।

যে ১৩ যুগল মামলা করতে যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে আই নাকাজিমা-ক্রিস্টিনা বাউমান নামে এক যুগলও আছেন। বাউমান জার্মান নাগরিক। তিনি জাপানে পড়াশোনা করছেন। নাকাজিমা ভয় পাচ্ছেন যে, পড়া শেষ হলে বাউমানকে জার্মানি চলে যেতে হতে পারে। একমাত্র বিয়ে হলেই তিনি সঙ্গীর জন্য ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

নাকাজিমা বলেন, ‘তার মতো এরকম অনেক জাপানি-বিদেশি যুগল আছেন যারা একই সমস্যার সম্মুখিন। যেহেতু তাদের সম্পর্কের আইনগত সুরক্ষার কোনো ব্যবস্থা নেই, তাই চাইলেও জাপানে থাকতে পারছেন না তারা।’

আউটরাইট অ্যাকশন ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি এলজিবিটি অ্যাডভোকেসি গ্রুপের আঞ্চলিক প্রকল্প সমন্বয়ক জিং ক্রিস্টোবাল মনে করেন, জাপান এশিয়ায় উদাহরণ তৈরি করতে পারে। ‘থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও তাইওয়ানের মতো জাপানেরও সুযোগ রয়েছে, সবার সমান অধিকার নিশ্চিত করা এশিয়ার প্রথম দিককার দেশগুলোর একটি হওয়ার’-ইমেইলে রয়টার্সের কাছে মন্তব্য করেন তিনি।

জাপানে সমকামী বিয়ে অবৈধ হলেও দেশটির অনেক শহরে যুগলরা এমন সনদ তুলতে পারেন, যা তাদের যেকোনো বিবাহিত যুগলের সমস্ত সুবিধা পেতে সাহায্য করে, যেমন- বাসা ভাড়া করা কিংবা হাসপাতালে দেখতে যাওয়া।

এসআর/এমকেএইচ