সভাপতির চেয়ারে বসা হলো না, খসরুকে নিয়ে স্মৃতিচারণ

মুহাম্মদ ফজলুল হক
মুহাম্মদ ফজলুল হক মুহাম্মদ ফজলুল হক , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:৩৪ এএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

নির্বাচনী প্রচারণার সময় তার বক্তব্যে আকৃষ্ট হয়েছিলেন আইনজীবীরা। তিনি বলেছিলেন, ‘এবার যদি হেরে যাই তাহলে আমার হ্যাটট্রিক হবে। তাই আইনজীবীদের কাছে আমি শেষবারের মতো ভোট চাই।’ এরপর ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর ১৬ মার্চ তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। পরে হাসপাতালে ভর্তি হন।

হাসপাতালে থাকা অবস্থায়ই ১২ এপ্রিল তার নেতৃত্বাধীন নতুন কমিটি দায়িত্ব বুঝে নেয়। ওইদিনই সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতির কক্ষে তার নামফলক টানানো হয়। কিন্তু নামফলক টানানো কক্ষে থাকা সভাপতির চেয়ারে তার আর বসা হয়নি। তার মৃত্যুতে মন্ত্রী, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ অসংখ্য মানুষ আবেগী প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সাবেক আইনমন্ত্রী, ৫ বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী, বীর মুক্তিযোদ্ধা, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সর্বজন শ্রদ্ধেয় আব্দুল মতিন খসরু অসাধারণ একজন ভালো মানুষ ছিলেন। আল্লাহ তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন।’

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল লিখেছেন, ‘এমনটি কথা ছিল না স্যার। কত স্মৃতি, কত পরিকল্পনা। ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ায় ICAPP সম্মেলনে ৩দিন একটানা আপনার সান্নিধ্যে ছিলাম। সে সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদও ছিলেন। দেশ নিয়ে, বিশ্ব রাজনীতি নিয়ে আপনার ভাবনাটি শেয়ার করেছিলেন উনি।’

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী নির্বাচনের দায়িত্ব পালনকারী ব্যারিস্টার অনিক আর হক বলেন, গত ১২ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নতুন কমিটি দায়িত্ব গ্রহণ করেছে। নতুন কমিটির সভাপতি সেদিন উপস্থিত ছিলেন না। তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণের আগেই মারা গেলেন। এটা আইনজীবীদের জন্য খুবই কষ্টের।’

আইনজীবী এম শফিকুল ইসলাম লিখেছেন, ‘যখন জানলাম যে স্যারকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়েছে, তখন থেকেই মনটা খুব বিষণ্ন হয়ে আছে। গত মাসের ১৩ তারিখে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে পরদিন অর্থাৎ ১৪ মার্চ খসরু স্যার আমাদের সাথে নিয়ে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন। ১৫ মার্চ স্যার কোভিড টেস্ট করালে পজিটিভ রেজাল্ট আসে। স্যার সিএমএইচে ভর্তি হন। স্যারকে আইসিইউতে নেয়া হয়। রেজাল্ট নেগেটিভ আসে। অবস্থার উন্নতি হলে স্যারকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আবার আইসিইউতে। গতকাল ২৩ এপ্রিল লাইফ সাপোর্টে। এরপর স্যার আমাদের কাছ থেকে চিরবিদায় নিলেন।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘আবদুল মতিন খসরু স্যার একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। কুমিল্লা থেকে নির্বাচিত ৫ বারের এমপি। তিনি সাবেক আইনমন্ত্রী। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। তার চলে যাওয়া আইন অঙ্গন ও দেশের রাজনীতিতে বিশাল শূন্যতা সৃষ্টি করেছে। মহান আল্লাহ আবদুল মতিন খসরু স্যারকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসিব করুন।’

jagonews24

ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘স্যারের স্নেহধন্য হবার সুযোগ। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিকে আরও উচ্চতায় নিতে হবে এটা আপনার সংকল্প ছিল। আমার মরহুম সিনিয়র খন্দকার মাহবুব উদ্দিন আহমাদের প্রতি ছিল আপনার অগাধ শ্রদ্ধা। আল্লাহ আপনাকে বেহেশতের উচ্চতম মাকাম প্রদান করুন। আমিন।’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী একলাস উদ্দিন ভূঁইয়া লিখেছেন, ‘বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়ার অভিভাবক আমাদের খসরু ভাই আর নেই। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আল্লাহ উনাকে জান্নাতবাসী করুন। আমিন।’

আইনজীবী তাপস গোপাল ঘোষ লিখেছেন, ‘সবাইকে কাঁদিয়ে করোনার কবলে না ফেরার দেশে চলে গেলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি, বিজ্ঞ সিনিয়র আইনজীবী আবদুল মতিন খসরু স্যার। স্যারের এ প্রস্থান আইনজীবীদের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী কুমার দেবুল দে লিখেছেন, ‘প্রস্তুত ছিলাম না স্যার!! মনে করেছিলাম আবার দেখা হবে!! আবদুল মতিন খসরু স্যার আর নেই। আমি তার আত্মার সদগতি কামনা করছি। আমার জানামতে তিনি খুব ভালো মানুষ ছিলেন।’

আইনজীবী মো. তাজুল ইসলাম লিখেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট বারের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু করোনা আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেছেন। আমার দেখামতে তিনি বিনয়ী, সজ্জন ও সালাত আদায়কারী মানুষ ছিলেন। আল্লাহ তায়ালা তাকে ক্ষমা করুন ও জান্নাত নসীব করুন।’

ব্যারিস্টার মোহাম্মদ মোতাহার হোসেন লিখেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি, সাবেক আইনমন্ত্রী, সিনিয়র অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু এমপি ইন্তেকাল করেছেন। আমরা একজন ভালো মানুষ, মুরুব্বি হারালাম। আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আল্লাহ তাকে জান্নাত নসীব করুন।’

আইনজীবী জেআর খান রবিন লিখেছেন, ‘মি. আবদুল মতিন খসরু স্যার আর নেই। আইন ও রাজনৈতিক অঙ্গনের আরেক নক্ষত্রের বিদায়।’

jagonews24

ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান লিখেছেন, ‘আমাদের মধ্যে এমন কোনো আইনজীবী হয়তো ছিল না, যে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি আবদুল মতিন খসরু স্যারের সুস্থতার এবং তার ফেরত আসার জন্য মহান আল্লাহর দরবারে দুহাত তুলে দোয়া করেনি। কিন্তু মহান আল্লাহ পাক তার প্রিয় বান্দাকে তার কাছে নিয়ে গেলেন। মহান আল্লাহ স্যারকে জান্নাতের সর্বোচ্চ মাকামে অধিষ্ঠিত করুন। আমিন।’

ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব লিখেছেন, ‘স্যার এমন তো কথা ছিল না! বলেছিলেন এবার সভাপতি হতে পারলে কত কিছু করবেন। আমাদের বলেছিলেন আপনারা সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। আমরা শপথ করেছিলাম এবার আপনাকে আমরা নির্বাচিত করব। দেশের আইনজীবী সমাজ সে কথাটি রেখেছে। সভাপতি ঠিকই হলেন। দায়িত্ব নিলেন। কিন্তু আপনাকে চেয়ারের আসনে দেখতে পারলাম না। কষ্টে বুকটা ভেঙে যাচ্ছে। তবুও আল্লাহর প্রিয় বান্দা হিসেবে আপনি আল্লাহর কাছে ভালো থাকুন।’

আইনজীবী এএম জামিউল হক ফয়সাল লিখেছেন, ‘চলে গেলেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সম্মানিত সভাপতি আব্দুল মতিন খসরু স্যার। এই ছবিটিই ছিল স্যার নির্বাচিত হওয়ার পর সাধারণ আইনজীবীদের সাথে প্রথম ও সম্ভবত শেষ ছবি! চলে যাবেন বলেই হয়তো এবারের নির্বাচনে তিনি আইনজীবী ও সমাজের নেতৃত্বে আইনজীবীদের ভূমিকা নিয়ে চমৎকার কথাগুলো বলতেন! সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি হিসেবে আপনার কাছে সাধারণ আইনজীবীদের অনেক কিছুই হয়তো মিস করবে! ভালো থাকুন স্থায়ী ঠিকানায়! আল্লাহ তায়ালা আপনাকে ক্ষমা করুন।’

আইনজীবী তাপসী লিখেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতির চেয়ারে আর বসা হলো না মানুষটার। বর্ণিল জীবনের অবসান হলো। আল্লাহ তাকে ডেকে নিলেন। আল্লাহ উনাকে রহমত দান করুন আর গুনাহ মাফ করে দিন, জান্নাতবাসী করুন। আমিন।’

আইনজীবী আবদুস সাত্তার পালোয়ান তার ফেসবুকে বলেন, ‘করোনার এ সময়ে শুধু সুপ্রিম কোর্টের কয়েকশ আইনজীবী মারা গেছেন। গত একমাসের মেসেজ চেক করে দেখলাম ২০ জন আইনজীবী মৃত্যুবরণ করেছেন। আজ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুল মতিন খসরু এমপি স্যার মারা গেছেন। সভাপতি নির্বাচিত হবার পর একদিনের জন্যও চেয়ারে বসতে পারলেন না। এ মহামারি আইনাঙ্গনকে নাস্তানাবুদ করে ছাড়ছে। হে আল্লাহ, আপনি মহামারিতে মৃত্যুবরণকারী আইনজীবীগণসহ সকল মুসলমানকে শহীদ হিসেবে কবুল করুন।’

সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের একান্ত সহকারী জিবরুল হাসান লিখেছেন, ‘বিদায় আব্দুল মতিন খসরু স্যারের! একজন অমায়িক, ভদ্র এবং নামাজি মানুষ ছিলেন তিনি। কোর্টের বারান্দায় দেখা হলে সালামটা আগে দিতেন, কুশলাদি বিনিময় করতেন। ছোট-বড় সবাইকে ‘আপনি’ করে সম্বোধন করতেন। তিনি ছিলেন একাধারে বর্ষীয়ান পার্লামেন্টারিয়ান, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র অ্যাডভোকেট এবং সুপ্রিম কোর্ট বারের সদ্যনির্বাচিত সভাপতি।

ইনকিলাবের সিনিয়র সাংবাদিক সাঈদ আহমেদ লিখেছেন, ‘বাসায় গেলে কখনোই না খাইয়ে ছাড়তেন না। ব্যক্তি হিসেবে ছিলেন অমায়িক। মানুষ হিসেবে সৎ। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু ভাই না ফেরার দেশে চলে গেলেন। দেখা হলেই দূর থেকে তার মতো করে আর নাম ধরে ডাকবেন না কেউ। আল্লাহ তুমি তাকে জান্নাত দিও....।’

jagonews24

বেসরকারি টিভি বাংলাভিশনের সিনিয়র সাংবাদিক আহমেদ সরোয়ার হোসেন ভূঞা লিখেছেন, ‘কুমিল্লা-৫ আসনের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার, সাবেক আইনমন্ত্রী, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুল মতিন খসরু ইন্তেকাল করেছেন, ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। ১৯৯১ সালে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমদের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লার ১২টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের হয়ে একমাত্র তিনিই ছিলেন জয়ী। ৯৬ সালে সে ধারাবাহিকতা বজায় থাকে। আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তিনি আইনমন্ত্রী হন। মন্ত্রী হিসেবে জাতীয় সংসদে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের বিল উত্থাপনের সময় তার যে বক্তব্য, পক্ষ-বিপক্ষের সবার আবেগেই কাঁপন ধরিয়ে ছিল।’

দীপ্ত টিভির সিনিয়র সাংবাদিক আজিজুর রহমান পান্নু লিখেছেন, ‘সাবেক সফল আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরুও চলে গেলেন না ফেরার দেশে। কদিন ধরে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন তিনি। অনেক বড় মানুষ হওয়া সত্ত্বেও ছিলেন অত্যন্ত বিনয়ী। হাইকোর্টের করিডোরে দাঁড়িয়ে থাকা দেখে থেমে গিয়ে বলতেন, কী খবর সাংবাদিক সাহেব! আর মোবাইল করে কোনো বিষয়ে মতামত নিতে চাইলে খুব সহজেই সময় দিতেন। অনেক সময় কুমিল্লায় থাকলে খুব বিনয়ীভাবে বলতেন, আমি যে কুমিল্লাতে। সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর আমরা সহকর্মীরা ফুল দিতে যাই। তিনি ফুল না নিয়ে আগে নিজ হাতে মিষ্টি খাওয়ালেন আমাদের। এরপর ফুল নিলেন। আল্লাহ আপনাকে জান্নাতুল ফিরদাউস দান করুক। আমিন....’

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিক মো. মাসুদুর রহমান লিখেছেন, ‘কে জানতো, এবার জেতার পরও চেয়ারে বসতে পারবেন না সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু। সোমবার দুপুরে দায়িত্ব নিলেন ভার্চুয়ালি। বুধবার বিকেলে সৃষ্টিকর্তার কাছে চলে গেলেন তিনি। ফেব্রুয়ারিতে তার বাসায় গিয়েছিলাম সবশেষ। বললেন ভয় পান করোনা... এমন মৃত্যু স্তব্ধতার মোড়কে বেঁধে ফেলে। সুপ্রিম কোর্ট যখন চলেছে, প্রতিদিন দেখা হতো... হাসিমুখে বলতেন, আজ কী নিউজ আছে...!!! আল্লাহ আপনাকে বেহেস্তবাসী করুন খসরু ভাই।’

সাংবাদিক মোহাম্মদ নাসের লিখেছেন, ‘এই পৃথিবী থাকার জায়গা নয়। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি, সাবেক আইনমন্ত্রী, পাঁচবারের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, আবদুল মতিন খসরু ভাইয়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছি। আল্লাহ তাকে জান্নাতের সর্বোচ্চ মর্যাদা দান করুক।’

একজন শিক্ষক মুহিদুল ইসলাম তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘একজন ভালো মানুষের বিদায়। আল্লাহ উনাকে জান্নাতুল ফিরদাউস দান করুক।’

আইন শিক্ষানবিশ ও মানবজমিনের সাংবাদিক রাশিম মোল্লা লিখেছেন, ‘একজন ভালো মানুষ ও মেধাবী রাজনীতিকের বিদায়। তিনি একজন ভালো মানুষ ও মেধাবী রাজনীতিক ছিলেন। আজকাল এমন মানুষের বড়ই অভাব। এবার তৃতীয়বারের মতো তিনি যখন সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি পদে নির্বাচন করার জন্য মনোস্থির করেন, আমার মতো অনেকেই নির্বাচনের আগেই তিনি জয়ী হবেন বলে মন্তব্য করেন। সত্যিই তিনি জয়ী হন। কিন্তু দায়িত্ব গ্রহণ না করেই চলে গেলেন। আল্লাহ তুমি তার ভুলগুলো ক্ষমা করে জান্নাত নসিব কর।’

এফএইচ/এমএইচআর/বিএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

১৫,৮৪,০৩,৮৬৮
আক্রান্ত

৩২,৯৮,৯১৬
মৃত

১৩,৬৭,৬৭,৯৩৪
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ৭,৭৩,৫১৩ ১১,৯৩৪ ৭,১০,১৬২
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩,৩৪,৫৪,৫৮১ ৫,৯৫,৫৮৮ ২,৬৪,০৫,৮৭১
ভারত ২,২২,৯৬,৪১৪ ২,৪২,৩৯৮ ১,৮৩,১৭,৪০৪
ব্রাজিল ১,৫১,৫০,৬২৮ ৪,২১,৪৮৪ ১,৩৬,৭৭,৬৬৮
ফ্রান্স ৫৭,৬৭,৯৫৯ ১,০৬,২৭৭ ৪৮,৩৩,১৫৭
তুরস্ক ৫০,১৬,১৪১ ৪২,৭৪৬ ৪৬,৯১,২২৪
রাশিয়া ৪৮,৮০,২৬২ ১,১৩,৩২৬ ৪৪,৯৬,১৩২
যুক্তরাজ্য ৪৪,৩৩,০৯০ ১,২৭,৬০৩ ৪২,৪৫,৭৪৪
ইতালি ৪১,০২,৯২১ ১,২২,৬৯৪ ৩৫,৯০,১০৭
১০ স্পেন ৩৫,৬৭,৪০৮ ৭৮,৭৯২ ৩২,৪৮,০১০
১১ জার্মানি ৩৫,১৯,২৫০ ৮৫,২৫২ ৩১,৫৯,২০০
১২ আর্জেন্টিনা ৩১,৩৬,১৫৮ ৬৭,০৪২ ২৭,৯৮,৩২৮
১৩ কলম্বিয়া ২৯,৮৫,৫৩৬ ৭৭,৩৫৯ ২৮,০৬,৩১০
১৪ পোল্যান্ড ২৮,৩৩,০৫২ ৭০,০১২ ২৫,৬৯,৫০১
১৫ ইরান ২৬,৫৪,৮১১ ৭৪,৯১০ ২১,০৯,৭০২
১৬ মেক্সিকো ২৩,৬৪,৬১৭ ২,১৮,৯২৮ ১৮,৮৪,০০৮
১৭ ইউক্রেন ২১,১৯,৫১০ ৪৬,৩৯৩ ১৭,৫৯,৭৫১
১৮ পেরু ১৮,৪৫,০৫৬ ৬৩,৮২৬ ১৭,২০,৬৬৫
১৯ ইন্দোনেশিয়া ১৭,১৩,৬৮৪ ৪৭,০১২ ১৫,৬৮,২৭৭
২০ চেক প্রজাতন্ত্র ১৬,৪৫,০৬১ ২৯,৬৬৭ ১৫,৭৫,৪৪৯
২১ দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫,৯৪,৮১৭ ৫৪,৭২৪ ১৫,১৪,০৮৮
২২ নেদারল্যান্ডস ১৫,৫৩,৪৬৯ ১৭,৩১৯ ১৩,০৯,৮৪৬
২৩ কানাডা ১২,৭৯,৯৭১ ২৪,৫৬৮ ১১,৭৪,৩৫১
২৪ চিলি ১২,৪১,৯৭৬ ২৭,১০১ ১১,৭৭,৩৪২
২৫ ইরাক ১১,০৮,৫৫৮ ১৫,৭৪১ ৯,৯৮,৬২৬
২৬ ফিলিপাইন ১১,০১,৯৯০ ১৮,৪৭২ ১০,২২,২২৪
২৭ রোমানিয়া ১০,৬৬,১১১ ২৮,৯৬৬ ১০,১৩,৬৬৬
২৮ বেলজিয়াম ১০,১৪,৩৫১ ২৪,৫১১ ৮,৮৩,৭২৯
২৯ সুইডেন ১০,০৭,৭৯২ ১৪,১৭৩ ৮,৫০,৮১১
৩০ পাকিস্তান ৮,৫৮,০২৬ ১৮,৯১৫ ৭,৫৭,২৮১
৩১ পর্তুগাল ৮,৩৯,২৫৮ ১৬,৯৯১ ৮,০০,০০৭
৩২ ইসরায়েল ৮,৩৮,৮৮৭ ৬,৩৭৬ ৮,৩১,৫২৬
৩৩ হাঙ্গেরি ৭,৯১,৭০৯ ২৮,৬০২ ৫,৬৮,৩২৯
৩৪ জর্ডান ৭,১৯,২৩৩ ৯,০৭৬ ৭,০১,১৯১
৩৫ সার্বিয়া ৬,৯৯,৫৭৪ ৬,৫৩৯ ৬,৫৮,৪৫৩
৩৬ সুইজারল্যান্ড ৬,৭০,৬১৩ ১০,৭০৪ ৬,০১,৯৫৮
৩৭ জাপান ৬,৩৩,০২৭ ১০,৮২৩ ৫,৫৫,৪০১
৩৮ অস্ট্রিয়া ৬,৩১,০৭৬ ১০,৩৮২ ৬,০৩,৯০১
৩৯ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৫,৩৬,০১৭ ১,৬১৩ ৫,১৬,৩২৯
৪০ লেবানন ৫,৩২,২৬৯ ৭,৪৬০ ৪,৮১,৯৬৮
৪১ মরক্কো ৫,১৩,৬২৮ ৯,০৬৪ ৫,০০,৫৪০
৪২ মালয়েশিয়া ৪,৪০,৬৭৭ ১,৬৮৩ ৪,০১,৯৩৪
৪৩ সৌদি আরব ৪,২৫,৪৪২ ৭,০৫৯ ৪,০৮,৬৭৬
৪৪ বুলগেরিয়া ৪,০৯,৯৬১ ১৬,৯০২ ৩,৪৮,১৮৫
৪৫ ইকুয়েডর ৩,৯৮,৯২১ ১৯,১৩৭ ৩,২৯,৫৮২
৪৬ নেপাল ৩,৯৪,৬৬৭ ৩,৭২০ ৩,০২,৭৮৭
৪৭ স্লোভাকিয়া ৩,৮৫,৪৭৫ ১২,০১৯ ৩,৬৭,৯২১
৪৮ বেলারুশ ৩,৬৭,৬৭৪ ২,৬২২ ৩,৫৮,২৬১
৪৯ পানামা ৩,৬৭,২৭০ ৬,২৬৫ ৩,৫৬,৮৫২
৫০ গ্রীস ৩,৬০,৫৭৭ ১০,৯৭৮ ৩,২৩,৪৫৮
৫১ ক্রোয়েশিয়া ৩,৪৪,৪৯৪ ৭,৪৬৯ ৩,২৭,৪০৪
৫২ কাজাখস্তান ৩,৪২,৫৮৯ ৩,৯১৩ ২,৯৭,২৬৮
৫৩ আজারবাইজান ৩,২৬,০৫৬ ৪,৬৬৬ ৩,০৪,৫৮০
৫৪ জর্জিয়া ৩,২১,৯১৯ ৪,২৮১ ৩,০০,৯৮৯
৫৫ তিউনিশিয়া ৩,১৯,৫১২ ১১,৩৫০ ২,৭৬,১৯৮
৫৬ বলিভিয়া ৩,১৭,৫৪৭ ১৩,২০৫ ২,৬০,৪৩৮
৫৭ ফিলিস্তিন ৩,০১,৪৩৭ ৩,৩৫১ ২,৮৫,৫৭৫
৫৮ প্যারাগুয়ে ২,৯৬,৩০৬ ৭,০৫০ ২,৪৪,৭৯৫
৫৯ কুয়েত ২,৮৪,০৭৬ ১,৬৩৫ ২,৬৮,৩১৬
৬০ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ২,৭০,৬০০ ৩,৫২৩ ২,৩১,০৮১
৬১ কোস্টারিকা ২,৬৫,৪৮৬ ৩,৩৬৫ ২,১২,৫২৫
৬২ ইথিওপিয়া ২,৬২,২১৭ ৩,৮৭১ ২,০৮,৩১৪
৬৩ ডেনমার্ক ২,৫৯,০৫৬ ২,৪৯৭ ২,৪৫,৫৬২
৬৪ লিথুনিয়া ২,৫৭,৮২৭ ৪,০৩৪ ২,৩২,০৭৬
৬৫ মলদোভা ২,৫২,৬০৪ ৫,৯৪৩ ২,৪৩,১৯৫
৬৬ আয়ারল্যান্ড ২,৫২,৩০৩ ৪,৯২১ ২,৩৪,৮০৫
৬৭ স্লোভেনিয়া ২,৪৬,০৮২ ৪,২৯৩ ২,৩২,৭৯৮
৬৮ মিসর ২,৩৬,২৭২ ১৩,৮৪৫ ১,৭৬,৩৬৩
৬৯ গুয়াতেমালা ২,৩৪,৮৮৩ ৭,৭১৭ ২,১২,৮১৪
৭০ হন্ডুরাস ২,১৯,২৮৮ ৫,৬১৭ ৮১,৩৮২
৭১ আর্মেনিয়া ২,১৯,২৭০ ৪,২৩৪ ২,০৪,৫৭৮
৭২ উরুগুয়ে ২,১৮,৮০০ ৩,০৮২ ১,৮৯,৭৩৯
৭৩ কাতার ২,১০,৬০৩ ৫০২ ২,০০,৪৬৭
৭৪ ভেনেজুয়েলা ২,০৬,৫৪৯ ২,২৮০ ১,৮৮,৯৪৭
৭৫ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ২,০০,৬৯৩ ৮,৭৯০ ১,৬৪,৭১৭
৭৬ ওমান ১,৯৯,৩৪৪ ২,০৮৩ ১,৮১,৬৯৬
৭৭ বাহরাইন ১,৮৭,৯০৫ ৬৭৮ ১,৭৪,৩৫৭
৭৮ লিবিয়া ১,৭৯,৯৭০ ৩,০৭০ ১,৬৬,৩৪০
৭৯ নাইজেরিয়া ১,৬৫,৩৭০ ২,০৬৫ ১,৫৬,২৫০
৮০ কেনিয়া ১,৬৩,২৩৮ ২,৮৮৩ ১,১১,১২৯
৮১ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১,৫৩,৮৯১ ৫,০৭৯ ১,৩৭,৬৬৪
৮২ মায়ানমার ১,৪২,৯৪৭ ৩,২১০ ১,৩২,০১৩
৮৩ আলবেনিয়া ১,৩১,৬৬৬ ২,৪১১ ১,১৬,১২৬
৮৪ দক্ষিণ কোরিয়া ১,২৭,৩০৯ ১,৮৭৪ ১,১৭,৪২৩
৮৫ এস্তোনিয়া ১,২৫,১২৬ ১,২০১ ১,১৫,৯০৮
৮৬ লাটভিয়া ১,২৩,৯৬৩ ২,২১২ ১,১৩,২১৪
৮৭ আলজেরিয়া ১,২৩,৯০০ ৩,৩২১ ৮৬,২৮০
৮৮ শ্রীলংকা ১,২৩,২৩৪ ৭৮৬ ১,০৩,০৯৮
৮৯ নরওয়ে ১,১৬,১৩৪ ৭৬৭ ৮৮,৯৫২
৯০ কিউবা ১,১৪,৯১২ ৭২২ ১,০৮,৪৪৮
৯১ মন্টিনিগ্রো ৯৮,২৩৭ ১,৫৩৬ ৯৪,৮০৩
৯২ কিরগিজস্তান ৯৮,০৭৯ ১,৬৪৯ ৯১,২৬৭
৯৩ উজবেকিস্তান ৯৪,৩৯৭ ৬৬২ ৯০,০৫৩
৯৪ ঘানা ৯২,৮৫৬ ৭৮৩ ৯০,৪৮০
৯৫ জাম্বিয়া ৯২,০৫৭ ১,২৫৭ ৯০,৩৬৩
৯৬ চীন ৯০,৭৫৮ ৪,৬৩৬ ৮৫,৮২২
৯৭ ফিনল্যাণ্ড ৮৮,৭২৩ ৯২২ ৪৬,০০০
৯৮ থাইল্যান্ড ৮৩,৩৭৫ ৩৯৯ ৫৩,৬০৫
৯৯ ক্যামেরুন ৭৪,৯৪৬ ১,১৫২ ৭০,৪৯৭
১০০ এল সালভাদর ৭০,৩৮০ ২,১৫৪ ৬৫,৯২১
১০১ মোজাম্বিক ৭০,১৬৬ ৮২১ ৬৭,৭৪৯
১০২ সাইপ্রাস ৬৯,১৬৩ ৩৩৪ ৩৯,০৬১
১০৩ লুক্সেমবার্গ ৬৮,১৫৩ ৮০১ ৬৪,৯৪৩
১০৪ আফগানিস্তান ৬২,০৬৩ ২,৬৯৮ ৫৪,২২২
১০৫ সিঙ্গাপুর ৬১,৩৫৯ ৩১ ৬০,৯১২
১০৬ নামিবিয়া ৪৯,৮৯৩ ৬৮৩ ৪৭,১৭৩
১০৭ বতসোয়ানা ৪৮,৪১৭ ৭৩৪ ৪৬,২২৬
১০৮ জ্যামাইকা ৪৬,৫৮৮ ৮০৩ ২২,১৪৮
১০৯ আইভরি কোস্ট ৪৬,৩৮৫ ২৯১ ৪৫,৮১১
১১০ মঙ্গোলিয়া ৪৪,৮২০ ১৬২ ৩১,৩৭৩
১১১ উগান্ডা ৪২,৩০৮ ৩৪৬ ৪১,৯২৪
১১২ সেনেগাল ৪০,৬৯২ ১,১১৯ ৩৯,৩৮৪
১১৩ মাদাগাস্কার ৩৯,০১২ ৭২২ ৩৬,০২২
১১৪ জিম্বাবুয়ে ৩৮,৪১৪ ১,৫৭৬ ৩৬,০৫২
১১৫ মালদ্বীপ ৩৪,৭২৪ ৮৩ ২৫,৯৯২
১১৬ মালাউই ৩৪,১৬৬ ১,১৫৩ ৩২,১৫৬
১১৭ সুদান ৩৩,৬৪৮ ২,৩৬৫ ২৭,২৪৭
১১৮ মালটা ৩০,৪৪৭ ৪১৭ ২৯,৮০৫
১১৯ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৩০,২৮৫ ৭৭২ ২৬,৪৩৪
১২০ অস্ট্রেলিয়া ২৯,৯১৬ ৯১০ ২৮,৭৫৮
১২১ অ্যাঙ্গোলা ২৮,৪৭৭ ৬৩০ ২৪,৭১৩
১২২ কেপ ভার্দে ২৬,১১১ ২৩২ ২২,৭১৮
১২৩ রুয়ান্ডা ২৫,৫৮৬ ৩৩৮ ২৪,১১৯
১২৪ গ্যাবন ২৩,৪৩২ ১৪৩ ১৯,৯৪৪
১২৫ সিরিয়া ২৩,৩১৯ ১,৬৪৮ ১৮,৪৫৭
১২৬ গিনি ২২,৬০২ ১৫০ ২০,১৮৬
১২৭ রিইউনিয়ন ২১,৬০১ ১৫০ ১৯,৮৪৮
১২৮ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ২০,৩৬৬ ১০৪ ৯,৯৯৫
১২৯ মায়োত্তে ২০,১৩৪ ১৭০ ২,৯৬৪
১৩০ কম্বোডিয়া ১৯,২৩৭ ১২০ ৭,৬৪১
১৩১ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৮,৭৯০ ১৪১ ১৮,৬১৭
১৩২ মৌরিতানিয়া ১৮,৬৩৬ ৪৫৬ ১৭,৮৬৫
১৩৩ ইসওয়াতিনি ১৮,৪৭৭ ৬৭১ ১৭,৭৭৭
১৩৪ গুয়াদেলৌপ ১৫,৩৬০ ২১০ ২,২৪২
১৩৫ সোমালিয়া ১৪,৪১৫ ৭৪৭ ৬,১৯১
১৩৬ গায়ানা ১৪,২০৩ ৩২৩ ১২,০৭২
১৩৭ মালি ১৪,০৮২ ৪৯৯ ৮,৯৮১
১৩৮ এনডোরা ১৩,৪০৬ ১২৭ ১২,৯৬২
১৩৯ বুর্কিনা ফাঁসো ১৩,৩৭৭ ১৬২ ১৩,১৩৫
১৪০ তাজিকিস্তান ১৩,৩০৮ ৯০ ১৩,২১৮
১৪১ হাইতি ১৩,১৬৪ ২৬৩ ১২,১৫৪
১৪২ টোগো ১৩,১৪১ ১২৪ ১১,৬৫৭
১৪৩ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ১৩,১২২ ২০৩ ৯,১২৬
১৪৪ বেলিজ ১২,৬৮৬ ৩২৩ ১২,২৮৮
১৪৫ কিউরাসাও ১২,২৩৪ ১১৪ ১১,৯৩৬
১৪৬ হংকং ১১,৮০৮ ২১০ ১১,৪৯৩
১৪৭ পাপুয়া নিউ গিনি ১১,৬৩০ ১২১ ১০,৩১২
১৪৮ মার্টিনিক ১১,৫৫৮ ৮৩ ৯৮
১৪৯ জিবুতি ১১,৩৩৫ ১৪৯ ১১,০৪১
১৫০ কঙ্গো ১১,১৪৭ ১৪৮ ৮,২০৮
১৫১ সুরিনাম ১১,০২০ ২১৪ ৯,৭২৮
১৫২ বাহামা ১০,৭৭৩ ২১২ ৯,৭৮১
১৫৩ লেসোথো ১০,৭৭৩ ৩১৯ ৬,৪২৭
১৫৪ আরুবা ১০,৭৫৭ ১০১ ১০,৫৬৪
১৫৫ দক্ষিণ সুদান ১০,৬৩৭ ১১৫ ১০,৩১২
১৫৬ বেনিন ৭,৮৮৪ ১০০ ৭,৬৫২
১৫৭ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৭,৬৯৪ ১১২ ৭,২৭৯
১৫৮ নিকারাগুয়া ৬,৯৮৯ ১৮৩ ৪,২২৫
১৫৯ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৬,৬৭৪ ৯৩ ৫,১১২
১৬০ আইসল্যান্ড ৬,৫০৬ ২৯ ৬,৩৪৭
১৬১ ইয়েমেন ৬,৪৬২ ১,২৭০ ২,৯৮৩
১৬২ সিসিলি ৬,৩৭৩ ২৮ ৫,২৭৭
১৬৩ গাম্বিয়া ৫,৯২৫ ১৭৫ ৫,৫৪৭
১৬৪ নাইজার ৫,৩১৯ ১৯২ ৪,৮৮৫
১৬৫ সান ম্যারিনো ৫,০৬৭ ৯০ ৪,৯৩৫
১৬৬ চাদ ৪,৮৭৪ ১৭১ ৪,৬৪৭
১৬৭ সেন্ট লুসিয়া ৪,৬৫৪ ৭৫ ৪,৪৩৯
১৬৮ জিব্রাল্টার ৪,২৯১ ৯৪ ৪,১৮৯
১৬৯ বুরুন্ডি ৪,১৪৯ ৭৭৩
১৭০ চ্যানেল আইল্যান্ড ৪,১১১ ৮৬ ৩,৯৬৫
১৭১ সিয়েরা লিওন ৪,০৬৮ ৭৯ ৩,০৭৮
১৭২ বার্বাডোস ৩,৯৩৩ ৪৫ ৩,৮৫২
১৭৩ কমোরস ৩,৮৫৪ ১৪৬ ৩,৬৮২
১৭৪ ইরিত্রিয়া ৩,৭৪২ ১২ ৩,৬০২
১৭৫ গিনি বিসাউ ৩,৭৩৯ ৬৭ ৩,৩৮৭
১৭৬ ভিয়েতনাম ৩,২৪৫ ৩৫ ২,৬০২
১৭৭ পূর্ব তিমুর ৩,২২৭ ১,৬৮৩
১৭৮ লিচেনস্টেইন ২,৯৭০ ৫৮ ২,৮৫৮
১৭৯ নিউজিল্যান্ড ২,৬৪২ ২৬ ২,৫৮৯
১৮০ মোনাকো ২,৪৭৯ ৩২ ২,৪০৭
১৮১ বারমুডা ২,৪৩৪ ৩০ ২,০৯৫
১৮২ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২,৪০২ ১৭ ২,৩৫৮
১৮৩ সিন্ট মার্টেন ২,২৬০ ২৭ ২,২০৩
১৮৪ লাইবেরিয়া ২,১১৪ ৮৫ ১,৯৬২
১৮৫ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ১,৯১২ ১২ ১,৭৪১
১৮৬ সেন্ট মার্টিন ১,৭৭৩ ১২ ১,৩৯৯
১৮৭ আইল অফ ম্যান ১,৫৯০ ২৯ ১,৫৫০
১৮৮ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১,৫৮০ ১৭ ৬,৪৪৫
১৮৯ লাওস ১,৩০২ ২৩২
১৯০ মরিশাস ১,২৪৬ ১৭ ১,১২৩
১৯১ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১,২৩২ ৩২ ১,০১৪
১৯২ ভুটান ১,২২১ ১,০৬৭
১৯৩ তাইওয়ান ১,১৮৪ ১২ ১,০৮৯
১৯৪ সেন্ট বারথেলিমি ৯৭৪ ৪৬২
১৯৫ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
১৯৬ ফারে আইল্যান্ড ৬৬৮ ৬৬২
১৯৭ কেম্যান আইল্যান্ড ৫৪৮ ৫৩৭
১৯৮ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৯৯ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৪৪৫ ৪৪
২০০ ব্রুনাই ২৩০ ২১৮
২০১ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ২১৬ ১৯১
২০২ ডোমিনিকা ১৭৫ ১৭৫
২০৩ গ্রেনাডা ১৬০ ১৫৮
২০৪ ফিজি ১৩৯ ৯৮
২০৫ নিউ ক্যালেডোনিয়া ১২৪ ৫৮
২০৬ এ্যাঙ্গুইলা ৯৯ ৪৯
২০৭ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৬৩ ৬৩
২০৮ ম্যাকাও ৪৯ ৪৯
২০৯ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৪৫ ৪৪
২১০ গ্রীনল্যাণ্ড ৩১ ৩১
২১১ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ১৫
২১২ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ২৫ ২৫
২১৩ মন্টসেরাট ২০ ১৯
২১৪ সলোমান আইল্যান্ড ২০ ২০
২১৫ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৬ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৭ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ সামোয়া
২২০ সেন্ট হেলেনা
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]