মশক নিধনে আবারও গাপ্পি মাছ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:০৮ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৮ | আপডেট: ০৩:১৬ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৮

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় মশক নিধনে পরীক্ষামূলকভাবে ১০ হাজার ‘গাপ্পি মাছ’ অবমুক্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার ডিএসসিসির অঞ্চল-৪ এর কাজী আলাউদ্দিন রোডের ড্রেনে মেয়র সাঈদ খোকন এ গাপ্পি মাছ অবমুক্ত করেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ‘স্বচ্ছ ঢাকা’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ গাপ্পি মাছ অবমুক্ত করা হয়। এ সময় সাঈদ খোকন বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নানাবিধ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ডিএসসিসি। ‘স্বচ্ছ ঢাকা’ কর্মসূচির আওতায় পরিচ্ছন্ন নগরীর পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে মশক নিধন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ১০ হাজার গাপ্পি মাছ ডিএসসিসির অঞ্চল-৪ এর নালা-নর্দমা ও ড্রেনে অবমুক্ত করে ফলাফল দেখা হবে। যদি ইতিবাচক ফলাফল আসে তাহলে সকল অঞ্চলে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

তিনি আরও বলেন, ঢাকার প্রথম মেয়র মো. হানিফ দায়িত্বে থাকাকালীন এ কার্যক্রম হাতে নিয়েছিলেন। তখন কিউলেক্স মশা নিয়ন্ত্রিত হয়েছিল। কারণ কিউলেক্স মশা নালা-নর্দমা ও ড্রেন বংশ বিস্তার করে। তাই আবারও এ কার্যক্রম হাতে নেয়া হলো। তবে গাপ্পি মাছে চিকুনগুনিয়ার বাহক এডিস মশা নিধন হবে না।

gapp

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এডিস মশা বাসা-বাড়িতে জমে থাকা স্বচ্ছ পানিতে বংশ বিস্তার করে। তাই বাসা-বাড়িতে জমে থাকা পানি ফেলে দিতে হবে। এর আগে আমাদের একটা মতবিনিময় সভা হয়েছে। সভায় আমাদের দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে। আমরা সচেতনতামূলক গণবিজ্ঞপ্তি চালু করছি। এক লাখ ৬০ হাজার বাড়ির মালিকদের লিফলেট বিতরণ করা হবে। আগামীকাল (বুধবার) থেকে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

এ সময় সকল বাসা-বাড়ির মালিকদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য অনুরোধ জানান তিনি। না হলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান ঢাকা দক্ষিণের এ মেয়র।

উল্লেখ্য, গাপ্পি মাছ নানা জাতের ও বিচিত্র রঙের হয়। এদের আকৃতি প্রকৃতিও নানা রকম। সব রকম আবহাওয়ায় এরা বেঁচে থাকতে পারে। জলাশয়ের উপরের স্তরে এদের ঘোরাফেরা। এছাড়া খাদ্য তালিকার শুরুতে মশার লার্ভা থাকায় একে মশার বংশ বিস্তার রোধে ব্যবহার করা হয়।

এএস/আরএস/এমএস