আজ ৫০০ কাল থেকে ৪৫০

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:১৬ পিএম, ১৭ মে ২০১৮

রাজধানীর হাতিরপুল কাঁচা বাজার। সেখানেই ৪-৫টি গরুর মাংসের দোকন। এরমধ্যে বৃহস্পতিবার (১৭ মে) খোলা রয়েছে তিনটি। শুক্রবার (১৮ মে) প্রথম রমজান। যে কারণে গরুর মাংসের চাহিদাও ছিল বেশি। তাই সকাল থেকেই ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতারা।

বৃহস্পতিবার হাতিরপুল বাজার ঘুরে দেখা যায়, মাংসের দোকানে দামের তালিকা টাঙানো। সেখানে লেখা ‘দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের নির্দেশ অনুযায়ী গরুর মাংস প্রতি কেজি ৪৫০ টাকা (হাতিরপুল কাঁচা বাজার, ঢাকা)।’ আর সেখানেই বিড়াম্বনা শুরু।

Market-9হাতিরপুল বাজারে গরুর মাংস কিনতে এসেছেন ব্যবসায়ী তোফাজ্জল হোসেন। দুই কেজি গরুর মাংস কেনার পর দাম নিয়ে শুরু হয় বাকযুদ্ধ। মূল্য তালিকা অনুযায়ী তোফাজ্জল হোসেন দুই কেজি মাংসের দাম দিবেন ৯০০ টাকা। কিন্তু দোকানি নিবেন এক হাজার টাকা। এমন তর্ক-বিতর্ক, বাক-বিতণ্ডা সকাল থেকে অনেকের সাঙ্গেই হয়েছে বলে জানালেন পাশের ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা ইকবাল হোসেন।

কথা হয় মাংস কিনতে আসা তোফাজ্জল হোসেনের সঙ্গে। তিনি বলেন, মাংসের দোকানে দামসহ তালিকা টাঙানো রয়েছে। সেখানে লেখা মাংসের কেজি ৪৫০ টাকা। কিন্তু দোকনি ৫০০ টাকা কেজি নিবে। এ জন্যই ঝগড়া। এ দামে যখন বিক্রি করবে তাহলে তালিকা টাঙালো কেন? এমন প্রশ্ন তোফাজ্জল হোসেনের।

এবার কথা হয় মাংস বিক্রেতা রব মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান ভিন্ন কথা। বলেন, ৪৫০ টাকা কেজি আগামীকাল থেকে অর্থাৎ প্রথম রমজান থেকে কার্যকর। আর আজ (১৭ মে) যেহেতু হাতিরপুল বাজার পরিদর্শনে আসবেন দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন, সেহেতু আজ থেকেই তালিকা টাঙানো হয়েছে। ডিএসসিসির সঙ্গে মাংস বিক্রেতা সমিতির মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রমজান মাসে ৪৫০ টাকা কেজি দরে মাংস বিক্রি করা হবে। সে কারণে আজ ৫০০, আর আগামীকাল থেকে ৪৫০ টাকায় বিক্রি হবে মাংস।

এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে হাতিরপুল বাজরে আসন্ন রমজান উপলক্ষে মেয়র সাঈদ খোকন বাজার পরিদর্শনে এসে কাঁচা পণ্যে, মাছ, মাংসসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর মূল্য যাচাই করেন। সে সময় মাংসের দামের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মাংস ব্যবসায়ী সমিতির সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। তারা স্পষ্ট জানিয়েছেন রমজানে গরুর মাংস ৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হবে। আর যদি কোনো ব্যবসায়ী তা না মানে তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Market-7

অন্যদিকে গত সোমবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম জানান, রোজায় মাংসের দাম বাড়বে না। সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত দামেই মাংস বিক্রি করবেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে রমজানে মাংসের দাম নির্ধারণ করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি)। গত রমজানের তুলনায় এ বছর ২৫ টাকা কমিয়ে দেশি গরুর প্রতি কেজি মাংস নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৫০ এবং বিদেশি গরুর মাংস ২০ টাকা কমিয়ে ৪২০ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া খাসির মাংস প্রতি কেজি ৭২০, মহিষের মাংস ৪২০ এবং ভেড়া ও ছাগির দামও ২০ টাকা কমিয়ে ৬০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এএস/এএইচ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :