চাঁদনীচকে মানুষ আর মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৭ পিএম, ২৫ মে ২০১৮ | আপডেট: ০৪:৪৪ পিএম, ২৫ মে ২০১৮

* আজ রমজানের দ্বিতীয় শুক্রবার, শুরু হলো ঈদের কেনাকাটা
* ভিড় ছিল নিউমার্কেট, গাউছিয়াসহ আশপাশের ফুটপাতেও
* নতুন মাসে চাকরিজীবীরা বেতন পাবেন, তখন মূলত জমবে বাজার : দোকানিরা

চারদিকে মানুষ আর মানুষ। মার্কেটের ভেতরে তো পা ফেলার জায়গায়ই নেই। পোশাকের দোকানগুলোতে বাহারি সাজে থরে থরে সাজানো ঈদের পোশাক দেখতে-কিনতে ব্যস্ত ক্রেতারা। ব্যস্ত বিক্রেতারাও।

কেনাকাটায় ক্রেতাদের অন্যতম পছন্দ রাজধানীর চাঁদনীচক মার্কেটে শুক্রবার দেখা গেল এই চিত্র। নারীদের পোশাক ও পণ্যের আধিক্যের কারণে নারীরাই মূলত এই মার্কেটের ক্রেতা। বিভিন্ন মান ও পর্যাপ্ত পণ্যের কালেকশন, সেইসঙ্গে সাশ্রয়ী দামের কারণে সবশ্রেণির ক্রেতা বছরের অন্য সময়গুলোতেও ভিড় করেন এই মার্কেটে। ঈদের সময় আসলে তো আর কথাই নেই।

Chadni-Market-2

মার্কেটজুড়ে ক্রেতাদের ভিড়ে পা রাখার জায়গাটুকুও যেন পাওয়া যাচ্ছিল আজ। গত শুক্রবার শুরু হয় রমজান। আজ অষ্টম রোজা, রমজানের দ্বিতীয় শুক্রবার। এখন যেন ঈদের কেনাকাটা করার উপযুক্ত সময়। এর ওপর আজ সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় ঈদের কেনাকাটায় মানুষের ঢল নামে এই মার্কেটে। শুধু চাঁদনীচকই নয় এই ভিড় ছিল নিউমার্কেট, গাউছিয়া মার্কেটসহ আশপাশের ফুটপাতেও।

কথা হয় চাঁদনীচক মার্কেটের লিবাস ফ্যাশনের ম্যানেজার ইমন আহমেদের সঙ্গে। তিনি বলেন, এবারের রমজান শুরুর পর থেকে আজই প্রথম এতো ভিড় হয়েছে। দিন যত বাড়বে বেচাকেনা তত জমজমাট হবে। বেশিরভাগ ক্রেতা এখনও কালেকশনগুলো দেখছেন, নতুন মাস এলেই চাকরিজীবীরা বেতন পাবেন। তখন মূলত বাজার জমবে। শুরু থেকেই ক্রেতাদের যে ভিড় দেখা যাচ্ছে, আশা করা যায়, এবার বিক্রি ভালো হবে।

Chadni-Market-3

পাশেই রফিক টেক্সটাইল হাউজের বিক্রয়কর্মী শিহাবুলও এরকমই বললেন। রোজা শুরুর পর থেকে আজ শুক্রবারই বেশি ক্রেতা পেয়েছেন তারা।

দুই বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে চাঁদনীচক মার্কেট ঘুরে বিভিন্ন পোশাক দেখছিলেন ইডেন কলেজের শিক্ষার্থী তাসলিমা ফারজানা। তিনি বলেন, বেশ কয়েকদিন যাবৎ এই মার্কেটসহ আশপাশের মার্কেটে কেনাকাটার জন্য আমরা ঘুরছি। তবে অন্যদিনের তুলনায় আজ ক্রেতাদের ভিড় বেশি। যেহেতু দর্জি- টেইলার্সগুলোতে পোশাক বানানোর অর্ডার নেয়া বন্ধ হয়ে যাবে, সে কারণে সবাই একটু তাড়াহুড়ো করছে পছন্দসই পোশাক কিনতে।

Chadni-Market-4

তাসলিমা বলেন, চাঁদনীচক মার্কেটে দেশীয় পোশাকের আধিক্য থাকলেও ঈদের সময় ক্রেতাদের চাহিদার কথা ভেবে বিদেশি পোশাক ও পণ্য সংগ্রহে রাখে বিক্রেতারা। নারীদের দরকারি যে কোনো ধরনের জিনিস বিশেষ করে পোশাক কিনতে চাইলেই সবাই চলে আসে গাউছিয়া, চাঁদনীচক, নিউমার্কেটে। এখানে নানা আঙ্গিকের পোশাক-আশাক, বিদেশি কাপড়, রেডিমেড অলঙ্কার, থান কাপড়, বিভিন্ন রকমের বুটিকস বা হাতে কাজ করা কাপড়, চামড়ার ব্যাগ, লেইস ফিতা থেকে শুরু করে গহনা এমনকি মেয়েদের সবকিছুই পাওয়া যায়। তাই এখানে ঈদের কেনাকাটায় মেয়েদের ভিড় সবচেয়ে বেশি হয়।

লিবাস ফ্যাশনের ম্যানেজার ইমন আহমেদ জানান, এবার বেশি বিক্রি হচ্ছে জর্জেটের ওপর কাজ করা থ্রিপিস, বিদেশি পোশাকের মধ্যে ভারতীয় বুটিকস আইটেমের থ্রি পিস, লন, ভয়েল ও শার্টিনের থ্রি-পিস। এ ছাড়া দেশীয় থ্রি পিসের কাপড়ের মধ্যে প্রিন্টের থ্রি পিস, ব্লক ও বাটিকের বিভিন্ন ডিজাইন করা থ্রি পিস বিক্রি হচ্ছে।

Chadni-Market-5

পাশেই গাউছিয়া ও নিউমার্কেটের দোকানিরা জানালেন, তাদের দোকানগুলোয় বেশি বিক্রি হচ্ছে পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে বিভিন্ন ধরনের অলঙ্কার, গহনা, সেন্ডেল ও ব্যাগ, সেইসঙ্গে প্রশাধনীও।

তারা বলছেন, দিন যত বাড়বে বিক্রিও তত বাড়তে থাকবে। আজ শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মধ্যমে এবারের ঈদের মূল কেনাকাটা শুরু হয়েছে বলেও জানান তারা।

এএস/জেডএ/পিআর