জাবালে নূরের মালিকসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রস্তুত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৪৪ পিএম, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
নিহত শিক্ষার্থী দিয়া খানম ওরফে মিম ও আবদুল করিম ওরফে রাজীব

রাজধানীর কুর্মিটোলায় জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় শহীদ রমিজউদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার তদন্ত শেষপর্যায়ে। এ ঘটনায় ৬ জনকে দায়ী করে শিগগিরই আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন। দুই শিক্ষার্থী হত্যা মামলাটি তদন্ত করছে ডিবি।

সোমবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। আবদুল বাতেন বলেন, শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় আসামিদের ৩০৪ ধারায় অভিযুক্ত করা হয়েছে। জাবালে নূর পরিবহনের একজন মালিকসহ ছয়জনকে দোষী সাব্যস্ত করে চার্জশিট প্রস্তুত করা হয়েছে। এ সপ্তাহের মধ্যেই চার্জশিট আদালতে পাঠানো হবে।

ফৌজদারি দণ্ডবিধি ৩০৪ এর ‘ক’ ধারায় ‘রাজপথে বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে কোনো ব্যক্তির মৃত্যু ঘটানোর সাজা’ এবং ৩০৪ এর ‘খ’ ধারায় ‘কোনো ব্যক্তি কর্তৃক অবহেলা করে অপর কোনো ব্যক্তির মৃত্যু ঘটানোর সাজার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, চার্জশিটে জাবালে নূর পরিবহনের বাসের চালক (দুর্ঘটনা ঘটায় এই বাস) মাসুম বিল্লাহ, তার সহকারী এনায়েত হোসেন, বাসটির মালিক শাহাদাত হোসেন, একই পরিবহনের অপর বাসের চালক জুবায়ের সুমন, সহকারী আসাদ এবং মালিক জাহাঙ্গীর আলমকে অভিযুক্ত করা হবে।

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাস স্ট্যান্ডে জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয় ১০-১৫ জন শিক্ষার্থী। চাকার নিচে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যাওয়া দুই শিক্ষার্থী হলো- শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব। পরদিন মিমের বাবা ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা করেন। এই মামলার তদন্ত করে ডিবি পুলিশ।

এ মামলায় জাবালে নূরের তিন গাড়ির দুই চালক ও দুই হেলপারসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

এআর/জেডএ/এমএস