দেশ যত উন্নত হবে তত সুযোগ-সুবিধা পাবেন : প্রধানমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:৪৬ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দেশের উন্নয়নে, মানুষের উন্নয়নে কাজ করতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশ যত বেশি উন্নত হবে আপনারা তত সুযোগ-সুবিধা পাবেন। দেশ উন্নত হলে কাজের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, সরকারি কর্মচারীদের যে হারে বেতন বাড়িয়েছি তাতে আর কিছু দাবি না করাই উচিত ছিল। তারপরও আপনাদের ইনক্রিমেন্টের ব্যাপারে অর্থ মন্ত্রণালয়ে একটা বৈঠক হয়েছে। এ ব্যাপারে শিগগিরই একটি ভালো ঘোষণা আসতে পারে।

শনিবার রাজধানীতে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইডিইবি) এর তিনদিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলন-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, আইডিইবির সভাপতি এ কে এম এ হামিদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী শামসুর রহমান। দেশের বিভিন্ন সেক্টরে বিশেষ অবদান রাখার জন্য তিন ব্যক্তিকে স্বর্ণপদক দেয়া হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ২১ বছর এ দেশের মানুষ বঞ্চিত ছিল। পঁচাত্তরের পরে যারা ক্ষমতায় এসেছে তারা শুধু নিজেদের ভাগ্য গড়ার চেষ্টা করেছে। বঙ্গবন্ধু এ দেশের মানুষকে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। কিন্তু সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার আগেই তাকে এ পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। তার অসমাপ্ত কাজ শেষ করার জন্যই আমি এসেছি। নিজের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েকে বাইরে রেখে, মায়ের ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত করে আমি দেশের মানুষের সেবা করছি। এ দেশের মানুষ যেন ভালো থাকে, যাতে পেট ভরে খেতে পারে, দেশ যেন উন্নত হয় সে জন্যই আমার সংগ্রাম।

তিনি বলেন, গত সাড়ে ৯ বছরে যা করেছি, এ দেশের মানুষ তার সুফল ভোগ করছে। বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের অগ্রগতি এখন আর কেউ থামাতে পারবে না। আমরা বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছি।

তিনি বলেন, আগামী ২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ৪১সালে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্ব মানচিত্রে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকবে। আগামী ২১০০ সালে কেমন বাংলাদেশ দেখতে চাই সে পরিকল্পনাও আমরাও গ্রহণ করছি। এ জন্য আমরা ডেল্টাপ্লান ২১০০ গ্রহণ করেছি।

এফএইচএস/এমএমজেড/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :