দেশের উন্নয়ন-শিল্পায়ন নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৩ পিএম, ০১ মে ২০১৯

দেশের সমৃদ্ধি, উন্নয়ন, শিল্পায়ন নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে মন্তব্য করে এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় শিল্পকারখানা মালিকদের পাশাপাশি শ্রমিকদের সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি উন্নয়নের শপথ করি’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বুধবার (১ মে) বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মলেন কেন্দ্রে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় আয়োজিত শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শিল্পায়নে বাধাগ্রস্ত করার জন্য, শিল্পকারখানা যাতে ভালভাবে চলতে না পারে সেজন্য ষড়যন্ত্র চলছে। শ্রমিকদের নিজেদের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে সজাগ থাকতে হবে। ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে হবে। একই সঙ্গে শিল্প কারখানার মালিক পক্ষকেও মনে রাখতে হবে, শ্রমিকরা হচ্ছেন শিল্পায়ন, উন্নয়ন, সমৃদ্ধির প্রাণশক্তি। তাদের কারণে দেশ আজকে এগিয়ে যাচ্ছে। সেই শ্রমিকরা যাতে অধিকার বঞ্চিত না হয়। সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম না কি বলেছেন- দেশের মেগা প্রকল্পে দুর্নীতি হচ্ছে। যারা ক্ষমতায় থাকতে পরপর চারবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন ছিলেন, আরেকবার আফ্রিকার একটি দেশের সঙ্গে যুগ্মভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন, তাদের মুখে এসব কথা মানায় না। এ ব্যাপারে তো তাদের কথা বলারই অধিকার নাই। ফখরুল ইসলামসহ বিএনপি নেতাদের বলব, এই ধরনের কথাবার্তা বন্ধ করে সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা করুন। দেশকে পিছিয়ে নেবার ষড়যন্ত্র বন্ধ করে আসুন গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাই।

hasan-1

হাছান মাহমুদ আরও বলেন, আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, সবাই প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন দিচ্ছে তখন তাদের গাত্রদাহ হবে এটাই তো স্বাভাবিক।

তিনি বলেন, এই বিএনপি-জামায়াত আন্দোলনের নামে কমপক্ষে ১০০ পরিবহন চালককে, শ্রমিককে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। বাসে-ট্রাকে পেট্রল বোমা নিক্ষেপ করেছে, ঘুমন্ত শ্রমিকদের ওপর হামলা করেছে, মিল-করখানায় আগুন দিয়েছে। তাদের মে দিবস নিয়ে, দুর্নীতি নিয়ে কথা বলার অধিকার নাই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শ্রম আইন সংশোধন করে শ্রম বিধিমালা ২০১৫ তৈরি করা হয়েছে, বাস্তবায়ন করা হয়েছে উন্নত মজুরি কাঠামো। গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন সর্বনিম্ন ১৬০০ টাকা থেকে ৮ হাজার টাকা করা হয়েছে। জাতীয় শিশুশ্রম, গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতিমালা ২০১৫ প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এখন কুঁড়েঘর শুধু কবিতায় আছে, বাস্তবে নেই। আকাশ থেকে কুড়িল ফ্লাইওভার দেখে মনে হয় এটা বাংলাদেশ নয়, অন্যকোনো দেশ। এটাই উন্নয়নের বাংলাদেশ, বদলে যাওয়া বাংলাদেশ।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মুজিবুল হক, মন্ত্রণালয়ের সচিব উম্মুল হাসনা, শ্রম অধিদফতরের মহাপরিচালক এ কে এম মিজানুর রহমান, বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সভাপতি কামরান টি রহমান, বিজিএমইএ’র নবনির্বাচিত সভাপতি রুবানা হক, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, আইএলও কান্ট্রি ডিরেক্টর তুমো পুতিয়াইনেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠান শেষে ১০ জন শ্রমিক পরিবারকে সহায়তা ও সন্তানদের উচ্চ শিক্ষার জন্য ১৩ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়।

জেইউ/এমবিআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :