মূল্যতালিকা দেখে পণ্য কিনবেন : মেয়র আতিকুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫১ পিএম, ১৩ মে ২০১৯

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনার আগে জনগণকে মূল্যতালিকা দেখে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সোমবার বাজারে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল আছে কি-না তা যাচাই করতে উত্তরা-৬ নম্বর সেক্টর কাঁচাবাজারে আকস্মিক পরিদর্শন যান তিনি।

পরিদর্শনকালে মেয়র মাংসের দোকান, মুদি দোকান ও কাঁচাবাজারে গিয়ে মূল্যতালিকা প্রকাশ্যে রাখা আছে কি-না এবং নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয় করছে কি-না যাচাই করেন।

এ সময় মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রয়ের অভিযোগে দুটি মুদি দোকানকে ১৫ হাজার টাকা করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা। এছাড়া ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করায় দুজনকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এদিকে ৮০ টাকা দরে কাঁচামরিচ বিক্রি করায় ডিএনসিসির অপর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন এক দোকানিকে। অথচ আজকের নির্ধারিত মূল্য ছিল ৪২ টাকা। এছাড়া দুইটি দোকানে বিভিন্ন পণ্যের লেভেল না থাকায় ২০ হাজার টাকা করে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

পরিদর্শন শেষে মেয়র বলেন, নির্ধারিত মূল্যের অতিরিক্ত নেয়া হলে অসাধু ব্যবসায়ীদের আইন অনুযায়ী জেল ও জরিমানা করা হবে। বাজারে সব পণ্যের যথেষ্ট সরবরাহ রয়েছে। অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের বিবেক জাগ্রত হোক। তিনি পর্যায়ক্রমে ডিএনসিসির অন্যান্য বাজারও পরিদর্শন করবেন বলে জানান।

উত্তরা-৬ নম্বর সেক্টর কাঁচাবাজার পরিদর্শনের আগে মেয়র উত্তরার শাহজালাল এভিনিউ হয়ে রাজউক কলেজ রোডে যান। সেখানে রাস্তা ও ফুটপাতে অবৈধ দোকান দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলেন।

মেয়র বলেন, ফুটপাত ও রাস্তা অবশ্যই দখলমুক্ত থাকতে হবে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ৩০টি অস্থায়ী দোকান রাস্তা ও ফুটপাত থেকে উচ্ছেদ করেন। 

মেয়রের পরিদর্শন শেষে ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত রাখেন। এ সময় উত্তরায় ‘মীনা বাজারে’ ধূমপানের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করায় ১ লাখ টাকা এবং ডাল, রসুন ও আদা নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি নেয়া, বিএসটিআইয়ের অনুমোদন না থাকা এবং অন্যান্য অভিযোগে ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী ২ লাখ টাকাসহ তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। ‘শপ এন সেভে’ কাঁচামরিচ ও বেগুন নির্ধারিত মূল্যের বেশি নেয়া, বিএসটিআইয়ের অনুমোদন না থাকায় এবং অন্যান্য অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর জাকিয়া সুলতানা।

এএস/জেএইচ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :