স্ত্রী জাপটে ধরছেন খুনিদের, দাঁড়িয়ে দেখছেন সবাই

সায়েম সাবু
সায়েম সাবু সায়েম সাবু , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১৪ এএম, ২৭ জুন ২০১৯

একবার এ খুনির কাছে তো, আরেকবার ও খুনির কাছে। কখনও পেছন থেকে জাপটে ধরছেন, আবার কখনও একেবারে খুনির হাতে থাকা রাম-দায়ের সামনে গিয়ে পথ আগলে ধরছেন। যেন ক্যামেরার সামনে সিনেমার শ্যুটিং। কিন্তু না, এ যেন সিনেমাকেও হার মানানো গল্প। সিনেমায় এত রক্তের দেখা মেলে না, যত লাল এক মিনিটের হামলায় খুনিরা রিফাতের শরীর থেকে ঝরাল।

কী নির্মমতা! কী পাষণ্ডতা! দিনের বেলায় প্রকাশ্যে হামলে পড়েছে খুনিরা। তাও জনবহুল কলেজ গেটে। শত শত মানুষ ঠায় দাঁড়িয়ে দেখছে। অনেকের হাতে মোবাইল। ক্যামেরা চালু করে দিব্যি ছবি তুলছে। দাঁড়িয়ে থাকারা প্রায় সবাই যুবক গোছের। খুনিদের থেকেও তরতাজা বটে। অথচ কেউ এলো না বাঁচাতে! বরং হামলা শেষে একজন এগিয়ে এসে খুনিদের পালিয়ে যেতে ইশারা করল। যেন আপতত, শ্যুটিং বন্ধ।

রক্তাক্ত উপাখ্যান, অথচ স্বামীর প্রতি স্ত্রীর অসীম ভালোবাসা আরেকবার প্রত্যক্ষ করল মানুষ। সবে বিয়ে হয়েছে। হাতের মেহেদী হয়ত এখনও শুকায়নি। কে জানত, স্বামীর রক্তে সে মেহেদীর রঙ আরও রাঙা হয়ে উঠবে!

প্রাণের স্বামী রিফাতকে বাঁচাতে এতটুকু কার্পণ্য করেনি স্ত্রী আয়েশা সিদ্দীকা মিন্নি। যেন সর্বহারা এক পাগলিনীর গগনবিদারী আর্তনাদ। বাঁচাও বাঁচাও। বাঁচাতে আসেনি কেউ। বাঁচাতে পারেনি সেও। নিরস্ত্র নারীর কিছুই করার ছিল না খুনির ধারাল অস্ত্রের সামনে।

খুনির সামনে এক নিষ্ঠুর পৃথিবীকে দেখেছে মিন্নি। দেখেছে মানুষরূপী হায়েনাদের নির্মমতা, দেখেছে দর্শকরূপী মানুষের নীরবতা। পৃথিবীকে ঘৃণা ছাড়া আর কিছুই দিতে পারবে না এ নারী। বিষাদের রক্তক্ষরণ তার হৃদয়কে পাথর করে দেবে হয়ত। কে দাঁড়াবে মানুষরূপে মিন্নির সামনে?

rifat

রিফাত হত্যার নিন্দা বইছে সর্বত্রই। এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে ফের শিহরিত করছে মানবতাকে। প্রতিবাদের ঝড় বইছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও। মনে করিয়ে দিচ্ছে বিশ্বজিৎ রায় আর অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডকেও। বিচারহীনতার সংস্কৃতিকেই এমন হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী করছেন কেউ কেউ।

সময় টেলিভিশনের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সালাউদ্দিন সুমন তার ফেসবুকে পোস্ট লিখেছেন, 'বরগুনার ঘটনা জানার পর থেকে আমার যেন ঘোর কাটছে না। কিছুই ভালো লাগছে না। ভিডিওটা কয়েক সেকেন্ড দেখেছি, পুরোটা দেখার ক্ষমতা নাই। যতবার ভিডিওটি সামনে এসেছে দ্রুত স্কিপ করেছি।

অথচ কত নির্বিকার চিত্তে শত শত মানুষ উপভোগ করল এই নির্মম হত্যাকাণ্ড। কারও চোখেমুখে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও দেখলাম না তেমন। মনে হলো এফডিসিতে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সিনেমার শ্যুটিং দেখছে!

আজ বারবার বিশ্বজিতের কথা মনে পড়ছে। যারা হত্যা করেছে তাদের সবার ছবি আছে, মানে জ্বলন্ত প্রমাণ আছে; এরপরও তারা গুরুতর অপরাধী নয়!'

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে শত শত লোকের উপস্থিতিতে স্ত্রীর সামনে শাহ নেয়াজ রিফাত শরীফ (২৫) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

এরই মধ্যে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তা ভাইরাল হয়ে যায়।

নিহত রিফাত শরীফের বাড়ি বরগুনা সদর উপজেলার ৬নং বুড়িরচর ইউনিয়নের বড় লবণগোলা গ্রামে। তার বাবার নাম আ. হালিম দুলাল শরীফ। মা-বাবার একমাত্র সন্তান ছিলেন রিফাত।

এএসএস/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]