সেবার জন্য সৌদি থেকে দেশে এসে লাশ হলেন চিকিৎসক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৯:২২ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৯

সীতাকুণ্ডে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশ থেকে উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় মিলেছে। তিনি উপজেলার ছোট কুমিরা এলাকার মৃত আজিজুল হক মাস্টারের ছেলে মো. শাহ আলম (৫৮)। পেশায় চিকিৎসক।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সৌদি আরবে আকর্ষণীয় বেতনের চাকরি ছেড়ে সম্প্রতি চিকিৎসক শাহ আলম গ্রামে এসে ‘বেবি কেয়ার’ নামে একটি ক্লিনিক চালাচ্ছিলেন।

প্রসঙ্গত শুক্রবার সকালে সীতাকুণ্ডের কুমিরার ঘাটগড় এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রাতে নিহতের নিকটাত্মীয় ও বিএনপি নেতা মীর হেলাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্টে জানান, নিহতের নাম শাহ আলম। তিনি সৌদি ফেরত চিকিৎসক।

মীর হেলাল লেখেন, ‘আমার অত্যন্ত প্রিয়জন, যিনি আমাকে আপন ছোট ভাইয়ের মতো স্নেহ করতেন, আমার খালাতো বোনের স্বামী, অত্যন্ত বিনয়ী ও পরোপকারী মানুষ ডা. শাহ আলম ভাইকে নরপিশাচরা গত রাতে হত্যা করে সীতাকুণ্ডের কুমিরায় রাস্তার পাশে ঝোপে ফেলে যায়।’

‘অত্যন্ত ঠান্ডা ও শান্ত মানুষটা সৌদি আরবের মদিনা হাসপাতালে শিশু বিভাগের প্রধান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। হঠাৎ উনার মাথায় আসল উনার নিজ এলাকার প্রতি উনার দায়বদ্ধতা আছে, তাই তৎক্ষণাৎ মদিনার চাকরি ছেড়ে বাংলাদেশে চলে আসলেন এবং নেমে পড়লেন কুমিরার মতো প্রত্যন্ত অঞ্চলে একটি আধুনিক ও মানসম্মত শিশুসেবা ক্লিনিক প্রতিষ্ঠায়। দ্রুততম সময়ের মধ্যেই দিন-রাত পরিশ্রম করে তিনি ক্লিনিক চালু করে সেবা দেয়া শুরু করলেন এলাকাবাসীর।’

‘কিন্তু এ দেশে তো আর ভালো ও গুণী লোকের কদর নেই, নেই এ দেশে থাকার অধিকার। তাই এ সোনার মনের নিরীহ, অত্যন্ত নম্র ও ভদ্র স্বভাবের ডা. শাহ আলম ভাইকে লাশ হয়ে পড়ে থাকতে হলো কুমিরার জঙ্গলে। আল্লাহ ছাড়া আর কারও কাছে বিচারের আশা করি না।’

সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি (তদন্ত) শামীম শেখ জাগো নিউজকে বলেন, ‘গতকাল খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যাই। এ ঘটনায় থানা পুলিশ ও সিআইডি যৌথভাবে কাজ করছে। নিহতের শরীরে ধারাল অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।’

নিহতের পরিবারের বরাতে শামীম শেখ জানান, বৃহস্পতিবার রাতে নিজ হাতে গড়া শিশুসেবা ক্লিনিক ‘বেবি কেয়ার’ থেকে শহরের বাসায় ফেরার পথে দুষ্কৃতকারীরা হত্যা করে থাকতে পারে।

আবু আজাদ/এমএআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]