ইসির ‘অবহেলায়’ স্মার্টকার্ড পাচ্ছেন না ৩০ লাখ নাগরিক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩৭ পিএম, ০১ নভেম্বর ২০১৯

দীর্ঘদিন ধরেই নির্বাচন কমিশন (ইসি) বলে আসছে, তারা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্টকার্ড) দেশবাসীর হাতে তুলে দেবে। কয়েক বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত সেই কাজ বাস্তবায়নে ব্যর্থ ইসি। নাগরিকদের বড় অংশ স্মার্টকার্ড এখনও তো পায়ইনি, বরং যারা স্মার্টকার্ড সংশোধন করছেন, তাদেরও দেয়া হচ্ছে সংশোধিত দুই বছর মেয়াদি স্বল্পকালীন অ্যানালগ জাতীয় পরিচয়পত্র। বিষয়টি নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নির্বাচন কমিশন এবং এ কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের অবহেলার কারণে প্রস্তুত থাকা সত্ত্বেও স্মার্টকার্ড পাচ্ছেন না প্রায় ৩০ লাখ নাগরিক।

বিষয়টি নিয়ে সম্প্রতি ইসির এক সভায় আলোচনা হয়। সভা সূত্র জানায়, মাঠপর্যায়ে ২০ লাখ ১৭ হাজার ৮৪৪টি স্মার্টকার্ড সরবরাহ করা হলেও এখনও তা বিতরণ শুরু করছে না ইসি। অন্যদিকে বিতরণ চলমান থাকা উপজেলা/থানায় ৯ লাখ ৭৬ হাজার ৫২২টি স্মার্টকার্ড অবিতরণকৃত অবস্থায় রয়েছে।

ইসি সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর প্রাথমিকভাবে ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের কিছু ওয়ার্ড এবং কুড়িগ্রামের বিলুপ্ত সিটমহলে বিতরণ শুরু করে ইসি। একই বছরের ডিসেম্বরে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আরও কিছু ওয়ার্ডে স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হয়। এরপর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ২০১৮ সালের ৮ আগস্ট ২৭ জেলায় বিতরণের জন্য স্মার্টকার্ড পাঠায় ইসি। ওই বছর পেরিয়ে চলতি বছরও শেষ হয়ে যাচ্ছে, কিন্তু ইসির গাফিলতিতে এখনও এই ২৭ জেলার নাগরিকরা স্মার্টকার্ড পাননি।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিতরণ শুরু হয়নি এমন উপজেলা/থানার ২০ লাখ ১৭ হাজার ৮৪৪টি স্মার্টকার্ড স্বল্প সময়ের মধ্যে বিতরণ শুরু করতে হবে এবং বিতরণ চলমান রয়েছে এমন উপজেলা/থানার ৯ লাখ ৭৫ হাজার ৫২২টি স্মার্টকার্ড দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিতরণ শেষ করতে হবে। অবিতরণ থাকা স্মার্টকার্ড বিতরণে কর্ম-পরিকল্পনা এবং মাসিকভিত্তিতে স্মার্টকার্ড বিতরণের হিসাব নথিতে উপস্থাপন করতে হবে।

উপজেলা/থানা পর্যায়ে স্মার্টকার্ড পাঠানো হলেও বিতরণ শুরু না হওয়া এবং অবিতরণ থাকা – এই দুই ক্যাটাগরির অঞ্চলভিত্তিক পরিসংখ্যানগত প্রতিবেদন পরবর্তী সভায় উপস্থাপন করতে হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

পিডি/জেডএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]