‘বাবরি মসজিদের জায়গায় বাবরি মসজিদই থাকবে, অন্য কিছু নয়’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৪০ পিএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

ঐতিহ্যবাহী বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গে হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমির ও ঢাকা মহানগর সভাপতি আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেছেন, ৫০০ বছরের পুরাতন মসজিদকে ১৯৯২ সালে দুষ্কৃতকারীরা শহীদ করে দিয়েছে। ভারত সরকারের প্রয়োজন ছিল, এই মসজিদকে নিজ স্থানে পুনর্নির্মাণ করে দেয়া। কিন্তু তা না করে ভারত সরকার ষড়যন্ত্রমূলক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে। আমরা পরিষ্কার বলে দিতে চাই, বাবরি মসজিদের জায়গায় বাবরি মসজিদই থাকবে, অন্য কিছু মেনে নেয়া হবে না। ২০০ কোটি মুসলমান বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দিরের সিদ্ধান্ত মেনে নেবে না।

শুক্রবার বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেট থেকে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে আয়োজিত মিছিলপূর্ব বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের উচিত, সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশের সরকার হিসেবে বাবরি মসজিদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরকারিভাবে প্রতিবাদ করা। বর্তমান সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করা। অন্যথায় এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোন অধিকার নাই।

ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমীর সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন- মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা মাহফুজুল হক, ড. আহমদ আব্দুল কাদের, মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব, মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, ড. ঈসা শাহেদী, অধ্যাপক আব্দুল করীম, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা জালাল উদ্দীন আহমদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, মাওলানা মোস্তফা তারিকুল হাসান, মুফতি আব্দুস সাত্তার, মাওলানা ফয়সাল আহমদ, মুফতি শরীফুল্লাহ, মাওলানা আব্দুল খালেক শরীয়তপুরী, মাওলানা রাকিবুল ইসলাম প্রমুখ।

এমইউ/পিআর