ঝুঁকি জেনেও রাস্তার মাঝখানে খুঁটি রেখে ঢালাই!

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:১৫ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামছেই না। বেপরোয়া গতিসহ বিভিন্ন কারণে ঝরছে মানুষের প্রাণ। তারপরও যেন সচেতনতার বালাই দেখা যাচ্ছে না কোথাও। খোদ রাজধানীতেই ব্যস্ত রাস্তার মাঝখানে বিদ্যুতের খুঁটি রেখে নির্মাণ কাজ শেষ করা হচ্ছে। ঝুঁকি জেনেও যেন খুঁটি সরানোর ‘জটিলতায়’ জড়াতে চাইছে না প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ও পিকেএসএফ ভবনের মাঝখানের রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। এই রাস্তার একটি অংশে ঢালাইয়ের কাজ শেষ করা হয়েছে ইতোমধ্যে। কিন্তু ঢালাই করা হয়েছে রাস্তার মাঝখানে একটি বিদ্যুতের খুঁটি রেখেই। একই রাস্তার নির্বাচন ভবন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন ভবন অংশেও বিদ্যুতের খুঁটি রেখে ঢালাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। আইডিবি ভবনের পাশ দিয়ে নির্বাচন কমিশনের দিকে যে সড়ক গেছে, সেই রাস্তার সংস্কার কাজও প্রায় শেষের দিকে মাঝখানে ১০-১২টি খুঁটি রেখেই।

Dhaka

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) নির্বাচন কমিশন ও পিকেএসএফ ভবনের মাঝখানের রাস্তার পাশে কিছুক্ষণ অবস্থান করে দেখা যায়, ঝুঁকিপূর্ণভাবে যানবাহন চলাচল করছে ওই খুঁটির পাশ দিয়ে। কোনো গাড়ি দ্রুতগতিতে এলেই বড় দুর্ঘটনার ঝুঁকি তৈরি হতে পারে।

চালক-পথচারীরা বলছেন, রাস্তার মাঝে এভাবে খুঁটি রেখে ঢালাই শেষ করা ঠিক হয়নি। যে কোনো সময় এই খুঁটির সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সিটি করপোরেশন ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যেন দুর্ঘটনা ঘটার জন্যই খুঁটি দুটি রেখে দিল।

শাহ আলম নামে এক রিকশাচালক বলেন, ‘রুডের (রাস্তার) মাঝখানে পড়ছে খুঁটি, সমস্যা হইতে পারে। খুঁটি আইলেনের (আইল্যান্ড) একপাশে অথবা রাস্তার একপাশে নিতে অইবো।’

Dhaka

রাস্তার সংস্কার কাজে নিয়োজিতরা জানান, এই রাস্তার পুরুত্ব ৪৪ ইঞ্চি। ঢালাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। এখন ফিনিশিংয়ের কাজ চলবে। এই খুঁটি এখন উপড়ে ফেলা সম্ভব নয়। এর একমাত্র সমাধান হলো খুঁটি কেটে ফেলা।

সংস্কার কাজের সুপারভাইজার কমল জাগো নিউজকে বলেন, ‘রাস্তার মাঝখান থেকে খুঁটিগুলো সরানোর জন্য সিটি করপোরেশনকে বলা হয়েছে। কিন্তু তারা সরাচ্ছে না। এদিকে আমাদের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আমরাও শঙ্কার মধ্যে রয়েছি, যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে যোগাযোগ করা হলেও কারও বক্তব্য মেলেনি।

পিডি/এইচএ/পিআর