বিভ্রান্তিতে কমিটি, চাঁদ দেখার ঘোষণা রাত সাড়ে ১০টায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫২ এএম, ২১ আগস্ট ২০২০

মহররম মাসের চাঁদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়েছিল জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। এ জন্য বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা করে আশুরা পালনের তারিখ ঘোষণা করে কমিটি।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) বাদ মাগরিব রাজধানীর বায়তুল মোকাররম ইসলামিক ফাউন্ডেশন সভাকক্ষে চাঁদ দেখা কমিটি সভায় বসে মহররম মাসের চাঁদ দেখা সংবাদ পর্যালোচনা করে আশুরা পালনের তারিখ ঘোষণা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা গড়ায় অনেকটা রাত পর্যন্ত। রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আলতাফ হোসেন চৌধুরী মুন্সিগঞ্জে ১৪৪২ হিজরির মহররম মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ার কথা জানান।

প্রতিটি জেলায় স্থানীয় প্রশাসনের নেতৃত্বে একটি করে চাঁদ দেখা কমিটি রয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের স্থানীয় কর্মকর্তারা এসব কমিটিতে সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জেলা কমিটিগুলো জাতীয় কমিটিকে চাঁদ দেখার সংবাদ জানায়। এই সংবাদের ওপর ভিত্তি করেই জাতীয় কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে।

চাঁদ দেখার কমিটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাগরিবের পর সব জেলা কমিটি মহররম মাসের চাঁদ দেখা যায়নি বলে জাতীয় কমিটির কাছে তথ্য পাঠায়। কিন্তু এর মধ্যে খবর আসে মুন্সিগঞ্জে চাঁদ দেখা গেছে। এরপরই বিভ্রান্তিতে পড়ে যায় কমিটির সদস্যরা। কমিটি বিষয়টি যাচাই-বাছাইয়ের উদ্যোগ নেয়। কিন্তু পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে চাঁদ দেখা না দেখার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারছিল না জাতীয় কমিটি।

অপরদিকে চাঁদ দেখার সংবাদ জানতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় ছিল অনেক মানুষ। সাংবাদিকরা ফোন করে তথ্য জানতে চাইছিলেন। কেউ কেউ অপেক্ষা করছিলেন সভাকক্ষের বাইরে।

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নূরুল ইসলামের সভায় সভাপতিত্ব করার কথা থাকলেও তিনি আসেননি। তার পরিবর্তে সভায় সভাপতিত্ব করেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আলতাফ হোসেন চৌধুরী। এ সময় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক (ডিজি) আনিস মাহমুদও উপস্থিত ছিলেন।

বুধবার (১৯ আগস্ট) সৌদি আরবে মহররমের চাঁদ দেখা যাওয়া, বৃহস্পতিবার পাকিস্তান ও ভারতেও চাঁদ দেখা যাওয়া এবং এর আগে ঈদের চাঁদ না দেখা যাওয়ার ঘোষণার পর গভীর রাতে আবার দেখা যাওয়ার ঘোষণার পরের বিতর্ক- এই বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে কমিটি সিদ্ধান্ত নিতে পারছিল না।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সদস্য সচিব আনিস মাহমুদ জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা আরেকটু অপেক্ষা করছি। বাংলাদেশের আকাশে মেঘ তো, তাই চাঁদ দেখা গেছে কিনা, সেটা আমরা যাচাই করছি। অনেকসময় মেঘ কেটে গিয়ে হঠাৎ চাঁদ দেখা যায়। তাৎক্ষণিকভাবে অনেকে বলে না, পরে বলে। ঘোষণার পর যদি আবার অন্যরকম খবর আসে তবে তো আরেক বিপদ। তাই আমরা একটু সময় নিচ্ছি।

রাত সোয়া ৯টার দিকে চাঁদ দেখার বিষয়ে জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমাদের এখানে চাঁদ দেখা যায়নি। চাঁদ দেখার যে খবরটি পাওয়া গিয়েছিল সেটা সঠিক না। এই তথ্য আমরা জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটিকে জানিয়েও দিয়েছি।’

চাঁদ দেখার ঘোষণার পর রাত পৌনে ১১টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ডিজির কাছে পুরো বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকায় বিভিন্ন পয়েন্ট আমাদের খোঁজ নিতে হচ্ছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলে খোঁজ নিতে হয়েছে।’

মুন্সিগঞ্জ থেকে চাঁদ দেখার সংবাদ পাওয়া গেছে- এ বিষয়ে মহাপরিচালক বলেন, ‘আমাদের কাছে খবর আসার পর উপ-পরিচালককে পাঠিয়ে যাচাই করতে হয়েছে। তাদের সঙ্গে কথা বলতে হয়েছে। তারা যে সঠিক বলেছে সেটা যাচাই করতে হয়েছে। যারা দেখেছেন তাদের সঙ্গে কমিটির সদস্যরা কথা বলেছেন। যিনি দেখেছেন তিনি একজন হাফেজ ও একটি মসজিদের ইমাম।’

জেলা প্রশাসক জানিয়েছেন খবরটা সঠিক নয়- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আনিস মাহমুদ বলেন, ‘অথেনটিক, এটা আমরা পেয়েছি। ভারতে চাঁদ দেখা গেছে, পাকিস্তানে চাঁদ দেখা গেছে, সৌদি আরবে আজ পহেলা মহররম। অনেকগুলো ইন্ডিকেটরের ভিত্তিতেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

আরএমএম/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]