দৃশ্যমান মেট্রো রেলের পৌনে ১২ কিলোমিটার

প্রদীপ দাস
প্রদীপ দাস প্রদীপ দাস , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিন রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বসানো হলো মেট্রো রেলের উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও অংশের সর্বশেষ ভায়াডাক্ট। ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট বসানোর মাধ্যমে মেট্রো রেলের উত্তরা-আগারগাঁও অংশ সম্পূর্ণ দৃশ্যমান হলো।

ভায়াডাক্ট হলো মেট্রো রেল লাইনের পিলারগুলোর ওপর বসানো অংশ। যার ওপর বসানো হচ্ছে রেললাইন। সেই লাইন দিয়ে চলবে মেট্রোট্রেন। নিচ থেকে ভায়াডাক্ট দেখা গেলেও রেললাইন দেখা যাবে না।

এ বিষয়ে মেট্রোরেলের দিয়াবাড়ির ডিপো এলাকা পরিদর্শন শেষে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানির (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম এ এন ছিদ্দিক বলেছিলেন, ‘প্রথম অংশের (উত্তরা থেকে আগারগাঁও) ভায়াডাক্ট নির্মাণ ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যেই শেষ করব।’ আজ এ অংশের সর্বশেষ ভায়াডাক্ট বসানো হলো।

অন্যদিকে উত্তরা-আগারগাঁও অংশে মেট্রোরেল স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আগামী ১৬ ডিসেম্বর চালু করা হবে বলেও সেদিন জানিয়েছিলেন ডিএমটিসিএলের এমডি।

রোববার সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সংলগ্ন বেগম রোকেয়া সরণির সেকেন্ড গেটে বসানো হয়েছে আগারগাঁও থেকে উত্তরার দিয়াবাড়ির মেট্রো রেলের সর্বশেষ ভায়াডাক্ট। যেখানে সর্বশেষ ভায়াডাক্ট বসানো হয়েছে, তার সামনেই মেট্রোরেলের আগারগাঁও কার্যালয়। ভায়াডাক্ট বসানোর অংশে সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করে রাখা হয়েছে।

সেখানে কর্মরতরা জানান, বেলা ১১টার দিকে ডিএমটিসিএলের এমডি এম এ এন ছিদ্দিকের উপস্থিতিতে গণমাধ্যমের সামনে উত্তরা-আগারগাঁওয়ের সর্বশেষ ভায়াডাক্ট বসানো হয়।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে ডিএমটিসিএলের এমডি এম এ এন ছিদ্দিককে ফোন করা হয়। কিন্তু তার ফোন রিসিভ হয়নি।

ডিএমটিসিএলের তথ্যমতে, জানুয়ারি পর্যন্ত উত্তর থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৫৮ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট বসানো হয়েছিল। ২৮ ফেব্রুয়ারি তা ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার হলো।

অন্যদিকে জানুয়ারি পর্যন্ত আগারগাঁও থেকে কাওরান বাজার অংশের ৩ দশমিক ১৯৫ কিলোমিটারের মধ্যে ৩৯০ মিটার ভায়াডাক্ট বসানো হয়েছিল। কাওরান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ৪ দশমিক ৯২২ কিলোমিটারের মধ্যে ৪৫০ মিটার ভায়াডাক্ট বসানো হয়।

jagonews24

১৭ ফেব্রুয়ারি এম এ এন ছিদ্দিক বলেছিলেন, ‘আমাদের ভায়াডাক্ট ২০ কিলোমিটার। তার মধ্যে ১৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট নির্মাণ সম্পন্ন করেছি। আপনারা ফার্মগেট, কাওরান বাজার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গেলে দেখবেন ভায়াডাক্ট বসানো হচ্ছে। মতিঝিলেও আমরা ভায়াডাক্ট লাগিয়েছি। মতিঝিলেও আমরা কাজ সেট করে ফেলব। প্রথম অংশের ভায়াডাক্ট নির্মাণ ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যেই শেষ করব (আজ তা সম্পন্ন করেছে)। দ্বিতীয় অংশের কাজ আমরা করে যাচ্ছি।’

সম্প্রতি ফার্মগেট এলাকা সরেজমিনে দেখা যায়, ফার্মগেট মোড়ের সেজান পয়েন্ট থেকে ফার্মগেটের ইস্পাহানি ইসলামিয়া চক্ষু ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল পর্যন্ত ভায়াডাক্ট বসানো হয়েছে। বর্তমানে সেজান পয়েন্ট থেকে কাওরান বাজারের দিকে কাজ অগ্রসর হচ্ছে।

কাওরান বাজার এলাকা ঘুরে দেখা যায়, সোনারগাঁও হোটেলের সামনে থেকে পাশের ঝিল পর্যন্ত অংশে সাতটি ভায়াডাক্ট স্প্যান বসানো হয়েছে।

শাহবাগে গিয়েও দেখা যায়, সেখানেও কিছু অংশে ভায়াডাক্ট বসানো হয়েছে। কাজ চলমান।

ডিএমটিসিএলের কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২৪ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬ বা উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল নির্মাণকাজ শেষ করার কথা। এই লাইনের কাজ তার দুই বছর আগে বা ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্যে কাজ করছে ডিএমটিসিএল।

১৭ ফেব্রুয়ারি মেট্রোরেল এলাকা পরিদর্শন শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘পুরোটা (উত্তরা-মতিঝিল) শেষ হতে ২০২২ সাল লেগে যাবে। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা আগামী বিজয় দিবসে আমাদের ৫০ বছর পূর্তি হবে। এই বিজয় দিবসের দিন আমরা প্রথম সেকশনটা উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ট্রেন চালু করতে পারব।’

‘কাজের যে গতি, তাতে আমরা সবাই আশাবাদী। তবুও চূড়ান্ত বলতে পারছি না যে, করবোই’- যোগ করেন মন্ত্রী।

পিডি/জেডএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]