এক বছরে দেশে যেভাবে মারা গেছে সাড়ে ৮ লাখ মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:১৭ পিএম, ১০ মার্চ ২০২১

করোনাভাইরাস, খুন, আত্মহত্যা, শাপের কামড়, সড়ক দুর্ঘটনা, বিষপান, বজ্রপাত, পানিতে ডুবে, অন্যান্য দুর্ঘটনা এবং রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে ২০২০ সালে ৮ লাখ ৫৪ হাজার ২৫৩ জন মানুষের মৃত্যুবরণ করেছেন। তার আগের বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে দেশে এসব কারণে মোট ৮ লাখ ২২ হাজার ৮৪১ জন মানুষ মৃত্যুবরণ করেন। ২০১৯ এর তুলনায় ২০২০ সালে মৃত্যু বেড়েছে ৩১ হাজার ৪১২ জনের।

বুধবার (১০ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ভবনে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী।

সংবাদ সম্মেলনে বিবিএস জানায়, তাদের একটি প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে ২ হাজার ১২টি নমুনা এলাকা রয়েছে। প্রত্যেক এলাকায় একজন করে নারী তথ্য সংগ্রহকারী রয়েছেন। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

তাদের তথ্যানুযায়ী, ২০১৯ ও ২০২০ সালে দেশে এইডস ও সুতিকা রোগে কারো মৃত্যু হয়নি।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। ওই বছর করোনায় মোট ৮ হাজার ২৪৮ জন মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিএস।

এছাড়া ২০১৯ ও ২০২০ সালে রোগসহ অন্যান্য যেসব কারণে দেশে যেসব মানুষের মৃত্যু হয়েছে, তা বিবিএসের তথ্যের আলোকে তুলে ধরা হলো-

২০১৯ সালে খুন হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ২ হাজার ৪৯১ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৮৩৩ জন।

আত্মহত্যায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৯ হাজার ৩১০ জন এবং ২০২০ সালে ১১ হাজার ২৫৯ জন।

শাপের কামড়ে ২০১৯ সালে ৬৫৬ জন মৃত্যুবরণ করেছেন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৪৭ জন।

সড়ক দুর্ঘটনায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১১ হাজার ৯৩৩ জন এবং ২০২০ সালে ১২ হাজার ৩০৬ জন।

বিষক্রিয়ায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৫ হাজার ৫০৭ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৮৩৩ জন।

২০১৯ সালে বজ্রপাতে মৃত্যু না থাকলেও ২০২০ সালে ৩৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

পানিতে ডুবে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭ হাজার ২১২ জন এবং ২০২০ সালে ১০ হাজার ৪৭৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

আগুনে পুড়ে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬৫৬ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ১৭৮ জন।

অন্যান্য দুর্ঘটনায় ২০১৯ সালে ৮ হাজার ৭৮৬ জন এবং ২০২০ সালে ৯ হাজার ৩৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

অ্যাকিউট রিউম্যাটিক ফিভারে ২০১৯ সালে ১ হাজার ৮৩৬ জন এবং ২০২০ সালে ২ হাজার ৭৪৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

অ্যাপেন্ডিক্সে ২০১৯ সালে ৭৮৭ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৭০২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

আর্সেনিকে ২০১৯ সালে ১৩১ জন এবং ২৬২ জন মৃত্যুবরণ করেছে।

হাঁপানিতে ২০১৯ সালে ৩৮ হাজার ২৯০ জনের এবং ২০২০ সালে ৩২ হাজার ৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

পিত্তথলির রোগে ২০১৯ সালে ২ হাজার ৪৯১ জনের এবং ২০২০ ১ হাজার ৩০৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ডেলিভারির পর রক্তক্ষরণে ২০১৯ সালে ১ হাজার ১৮০ জন এবং ২০২০ সালে ৯১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণে ২০১৯ সালে ৫২৫ জন এবং ২০২০ সালে ৩৯৩ জন মৃত্যুবরণ করেছে।

ব্লাডক্যান্সারে ২০১৯ সালে ১৮ হাজার ৬২০ জন এবং ২০২০ সালে ৪৭১ জন মৃত্যুবরণ করেছে।

রক্ত আমাশয়ে ২০১৯ সালে ১ হাজার ৩১১ জন এবং ২০২০ সালে ২৬২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বোন ক্যান্সারে ২০১৯ সালে ৪ হাজার ১৯৬ জন এবং ২০২০ সালে ৩ হাজার ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ব্রেইন ক্যান্সারে ২০১৯ সালে ৩ হাজার ৫৪১ জন এবং ২০২০ সালে ৫ হাজার ২৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ব্রেইন স্ট্রোকে ২০১৯ সালে ৪৫ হাজার ৫০২ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছে ৮৫ হাজার ৩৬০ জন।

স্তন ক্যান্সারে ২০১৯ সালে ১ হাজার ১৮০ জন এবং ২০২০ সালে ৩ হাজার ১১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

চিকনগুনিয়ায় ২০১৯ সালে ৪ হাজার ৪৫৮ জন এবং ২০২০ সালে ৫২৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

দীর্ঘমেয়াদী আমাশয়ে ২০১৯ সালে ৭৮৭ জন এবং ২০২০ সালে ৯১৬ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

জটিল অ্যাবর্সনে ২০১৯ সালে ৫২৫ জন এবং ২০২০ সালে ২৬২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জটিল ডেলিভারিতে ২০১৯ সালে ১ হাজার ৮৩৬ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৩০৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

জটিল ডায়েরিয়ায় ২০১৯ সালে ৪ হাজার ৫৯০ জন এবং ২০২০ সালে ৫ হাজার ২৩৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

জটিল আমাশয়ে ২০১৯ সালে ৬৫৬ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৮৬ জন।

জটিল প্রেগনেন্সিতে ২০১৯ সালে ৭৮৭ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৪৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

ডেঙ্গুতে ২০১৯ সালে ২ হাজার ৩৬০ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৮৬ জন।

ডায়াবেটিক্সে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ হাজার ৩০ জন এবং ২০২০ সালে ২৫ হাজার ৬ জন।

ডায়রিয়ায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৫৭৪ জন এবং ২০২০ সালে ৫২৪ জন।

ডিপথেরিয়ায় ২০১৯ সালে ২৬২ জন এবং ২০২০ সালে একজনও মৃত্যুবরণ করেননি।

কৃমি সংক্রান্ত রোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুশূন্য থাকলে ২০২০ সালে ২৬২ জন মৃতুবরণ করেছেন।

মাদকাসক্ত হয়ে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ১৮০ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৩০৯ জন।

নাক, কান ও গলার রোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ১৮০ জন এবং ২০২০ সালে ২ হাজার ৮৮০ জন।

মৃগী রোগে ২০১৯ সালে ৬৫৬ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৪৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

হার্ট অ্যাটাকে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ লাখ ৪৭ হাজার ২৫৯ জন এবং ১ লাখ ৮০ হাজার ৪০৮ জন।

হার্টের অসুখে মারা গেছে ২০১৯ সালে ৬৭ হাজার ৭ জন এবং ২০২০ সালে মারা গেছেন ৪৩ হাজার ২০৪ জন।

উচ্চ রক্তচাপে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৮ হাজার ৮৪৯ জন এবং ২০২০ সালে ২৭ হাজার ৭৫৫ জন।

ইনফ্লুয়েঞ্জায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৪৯ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৪৭ জন।

জন্ডিসে ২০১৯ সালে ৫ হাজার ৫০৭ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১০ হাজার ৯৯৭ জন।

কিডনির অসুখে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১০ হাজার ৬২২ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৮ হাজার ১৭ জন।

কুষ্ঠুরোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৫৭৪ জন এবং ২০২০ সালে ৫২৪ জন।

লিভার ক্যান্সারে ২০১৯ সালে ২১ হাজার ৩৭৪ জন এবং ২০২০ সালে ২৯ হাজার ৮৫০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

ম্যালেরিয়ায় ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২ হাজার ৯৮ জন এবং ২০২০ সালে ৬৫৫ জন।

অপুষ্টিতে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১৭ হাজার ৩০৯ জন এবং ২০২০ সালে ৮ হাজার ৭৭২ জন।

হামে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ হাজার ৯৩৪ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৭০২ জন।

মেনিনজাইটিসে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ১৮০ জন এবং ২০২০ সালে ২৬২ জন।

মানসিক রোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ হাজার ২৭৮ জন এবং ২০২০ সালে ৫ হাজার ৬৩০ জন।

অন্যান্য ক্যান্সারে ২০১৯ সালে ৪ হাজার ৮৫২ জন এবং ২০২০ সালে ৬ হাজার ২২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

অন্যান্য জ্বরে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ হাজার ৫৫৪ জন এবং ২০২০ সালে ২৩ হাজার ৯৫৮ জন।

প্যারালাইসিসে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৯ হাজার ৮৩৫ জন এবং ২০২০ সালে ১৩ হাজার ৯২ জন।

পাকস্থলীর ক্ষতে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছে ১ হাজার ৭০৫ জন এবং ২০২০ সালে ২ হাজার ৬১৮ জন।

ক্রমাগত ডায়রিয়ায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৪৯ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৪৪০ জন।

ফুসফুসের রোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ হাজার ৯৩৪ জন এবং ২০২০ সালে ৯ হাজার ৪২৬ জন।

নিউমোনিয়ায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪০ হাজার ৯১৩ জন এবং ২০২০ সালে ৩৪ হাজার ৬৯৪ জন।

পোলিওতে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৬২ জন এবং ২০২০ সালে ১৩১ জন।

জলাতঙ্কে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ হাজার ৪৫৮ জন এবং ২০২০ সালে ৬৫৫ জন।

শ্বাসযন্ত্রের রোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৫৪ হাজার ২৮৮ জন এবং ২০২০ সালে ৭৩ হাজার ৮৩৯ জন।

বাতে ২০১৯ সালে ৫ হাজার ১১৪ জন এবং ২০২০ সালে ৮ হাজার ৭৭২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

যৌনরোগে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১৩১ জন এবং ২০২০ সালে শূন্য।

ত্বকের রোগে ২০১৯ সালে ১৩১ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৫৭১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

স্মল পক্সে (বসন্ত) ২০১৯ সালে ১ হাজার ৩১১ জন এবং ২০২০ সালে ২৬২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

পেটের ক্যান্সারে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ হাজার ৬৮৮ জন এবং ২০২০ সালে ১০ হাজার ২১২ জন।

ধনুষ্টঙ্কারে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১৩১ জন এবং ২০২০ সালে ২৬২ জন।

যক্ষ্মায় ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৮ হাজার ৫২৩ জন এবং ২০২০ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ হাজার ১৮৯ জন।

টিউমারে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ হাজার ৪৫৮ জন এবং ২০২০ সালে ৭ হাজার ৭০ জন।

টাইফয়েড বা প্যারাটাইফয়েডে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৫ হাজার ২৪৫ জন এবং ২০২০ সালে ৬ হাজার ২৮৪ জন।

জরায়ুর ক্যান্সারে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছেন ২ হাজার ৬২৩ জন এবং ২০২০ ৪ হাজার ৩২০ জন।

হুপিং কাশিতে ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেছে ৬ হাজার ৯৫০ জন এবং ২০২০ সালে ১ হাজার ৭০২ জন।

পিডি/ইএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]