উসামার উগ্রবাদী ভিডিও দেখে সংসদ ভবনে হামলার পরিকল্পনা করে সাকিব

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১৫ পিএম, ০৬ মে ২০২১
পুলিশের হাতে গ্রেফতার সাকিব (বাঁয়ে) এবং উসামা

জাতীয় সংসদ ভবনে হামলার পরিকল্পনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মো. আল সাকিব (২০) নামে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের এক সক্রিয় সদস্য এবং আলী হাসান উসামা (২৭) নামে এক উগ্রবাদী বক্তাকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) দুপুরে জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম।

পুলিশ বলছে, বুধবার রাতে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর নাশকতার পরিকল্পনা ছিল সাকিবের। তার আগেই ধারালো অস্ত্রসহ হাতেনাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী ওইদিন দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাজবাড়ী সদর থেকে আলী হাসান উসামাকে গ্রেফতার করা হয়।

সাকিবের কাছ থেকে একটি কালো পতাকা, মাথায় বাঁধার জন্য একটি কালো রুমাল, বড় একটি ছোরা, একটি মোবাইল ফোন এবং আলী হাসানের কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, তিনটি মোবাইল ফোন, কিছু উগ্রবাদী বই জব্দ করেছে পুলিশ।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত আল সাকিব নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের সক্রিয় সদস্য। সে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন উগ্রবাদী বক্তার ভিডিও দেখে ৩১৩ জন সদস্য সংগ্রহ করে রমজান মাসে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলার পরিকল্পনা করে।

পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য সাকিব ওই বক্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তাদের দেয়া পরামর্শ অনুযায়ী সে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমের সহায়তায় হামলার সদস্য সংগ্রহের চেষ্টা চালায়।

তবে বুধবার রাতে পুলিশের হাতে গ্রেফতারের সময় মানিক মিয়া এভিনিউতে সে একাই ছিল। সে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ে সম্মান প্রথম বর্ষের ছাত্র।

কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, কথিত জিহাদের নামে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সমর্থনে ভিডিও তৈরি করে অনলাইনে প্রচার করে। সে সাকিবকে সংসদ ভবনের সামনে হামলার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করে। সে রাজবাড়ী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব ছিল।

এ বিষয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে একটি মামলা হয়েছে। ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

টিটি/এসএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]