ক্যান্সারে শুধু রোগী নয়, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবারও


প্রকাশিত: ০৮:১৯ এএম, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৬

`উই ক্যান, আই ক্যান` আসুন সবাই মিলে ক্যান্সারকে জয় করি` এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্ব ক্যান্সার দিবস ২০১৬` বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষ্যে রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবারের ন্যায় এবারও বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটি হসপিটাল অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার হোম, বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটি মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং ও ইউনাইটেড ফোরাম অ্যাগেইনেস্ট টোব্যাকো যৌথ উদ্যোগে দিবসটি উদযাপন করছে।

ক্যান্সার নিরাময়যোগ্য রোগ হলেও জনসচেতনতার অভাবে ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। এ রোগের ফলে শুধু রোগী নয়, এর সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তার পরিবারও।

সরকারের একার পক্ষে এ রোগ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখা সম্ভব নয়। এজন্য জনসচেতনতা খুবই জরুরি। শুধু চিকিৎসা নয়, এ রোগ থেকে বাঁচতে দরকার প্রতিরোধ ক্ষমতা বলে মনে করেছেন বিশ্লেষকরা।

বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটি, বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইাট হসপিটাল অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার হোম, বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটি মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল ও ইউনাইটেড ফোরাম অ্যাগেইনেস্ট টোবাক্যাে যৌথভাবে আয়োজিত এই আলোচনা সভায় আলোচকদের আলোচনায় এসব বিষয় উঠে আসে।

ক্যান্সারসহ যাবতীয় নিরাময়যোগ্য রোগের প্রতিরোধ গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি উল্লেখ করে সাবেক স্বাস্থ্য উপদেষ্টা ও ইউনাইটেড ফোরাম অ্যাগেইনেস্ট টোব্যাকোর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার (অব.) ডা. আব্দুল মালিক বলেছেন, প্রতিবছর প্রায় আড়াই লাখ মানুষ মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে  মারা যান। প্রতিনিয়ত এ রোগের ব্যাপকতা বেড়েই চলছে। তাই ক্যান্সার প্রতিরোধ ও প্রতিরোধ ও প্রতিকারের লক্ষ্যে দেশব্যাপী জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে। প্রাথমিক অবস্থায় এ রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করতে হবে।

প্রসূতি মায়েদের সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করে আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক  ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ডাবলু বলেন, সন্তানকে মায়ের দুধ খাওয়ালে, চর্বিযুক্ত খাবার কম খেলে ও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখলে ক্যান্সার হবার সম্ভবনা কম থাকে।

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে সরকার একা কিছু করতে পারবে না উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহা পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. দীন মোহাম্মদ নূরুল হক বলেন, যেকোনো ধরনের ক্যান্সার রোগ হলে ব্যক্তি ও পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সরকার একা কিছু করতে পারবে না। তাই নিজেদের স্বাস্থ্য রক্ষায় নিজেদেরই পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিশ্বব্যাপী ক্যান্সার মহামারির দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ক্যান্সারের আগ্রাসন থেকে মানুষকে রক্ষা করতে সরকারের পাশাপাশি, সাধারণ জনগণ ও ক্যান্সার সোসাইটির জোড়ালো ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান অন্যান্য বক্তারা।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সহ-সভাপতি ডা. মো. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. মো. কামরুল হাসান খান প্রমুখ।  

এএস/এমজেড/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :