ছিনতাইকারীর দৌরাত্ম্য বন্ধ করুন

সম্পাদকীয়
সম্পাদকীয় সম্পাদকীয়
প্রকাশিত: ১০:২০ এএম, ০৫ জুন ২০১৮

জানমালের নিরাপত্তা দেয়া সরকারের সাংবিধানিক দায়িত্ব। সেই দায়িত্ব পালনে সামান্যতম গাফিলতির কোনো সুযোগ নেই। দুঃখজনক হচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে-বাহ্যত এমন মনে হলেও বাস্তবে কিন্তু বিষয়টি সে রকম নয়। কেননা খোদ রাজধানীতেই বেড়ে গেছে ছিনতাইকারীর দৌরাত্ম্য। এ ব্যাপারে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে যে কোনো মূল্যে।

ঈদকে সামনে রেখে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য আরো বেড়ে গেছে। বিশেষ করে মোবাইল ছিনতাই হচ্ছে হরহামেশাই। থানা-পুলিশ করেও কোনো লাভ হচ্ছে না।

রাজধানীতে এত এত বাহিনী। বলতে গেলে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকে রাজধানী। এর মধ্যেও যদি জানমালের নিরাপত্তা না থাকে সেটি খুবই দুঃখজনক। অভিযোগ রয়েছে, অনেক ছিনতাইকারী একাধিকবার ধরা পড়লেও জামিনে বেরিয়ে আবারও ছিনতাইয়ে জড়িয়ে পড়ছে। অপরাধের শাস্তি না হলে তা কমার কোনো কারণ নেই। এজন্য অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আর খোদ পুলিশের বিরুদ্ধেই যেখানে ছিনতাইয়ে জড়িত থাকার অভিযোগ সেখানে সর্ষেয় ভূত রেখে ভূত তাড়ানো কি আদৌ সম্ভব? জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে প্রতিদিন ঘর থেকে প্রচুর সংখ্যক মানুষ বাইরে বের হন। তারা যেন নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারে সেটি দেখতে হবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে। রাজধানীতে থানার সংখ্যা বাড়ছে। বাড়ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যের সংখ্যাও। কিন্তু অপরাধ না কমে বরং বাড়ছে। এই বৈপরীত্য চলতে পারে না।

এইচআর/জেআইএম

‘ঈদকে সামনে রেখে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য আরো বেড়ে গেছে। বিশেষ করে মোবাইল ছিনতাই হচ্ছে হরহামেশাই। থানা-পুলিশ করেও কোনো লাভ হচ্ছে না।’

আপনার মতামত লিখুন :