পেনশন সুবিধায় আসুক সিনিয়র সিটিজেনরা

সম্পাদকীয় ডেস্ক
সম্পাদকীয় ডেস্ক সম্পাদকীয় ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:০১ এএম, ০৪ জুলাই ২০২১

প্রফেসর ড. মোহা. হাছানাত আলী

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা ১৭ কোটির কিছু বেশি। এদের মধ্যে প্রায় ৪৫ লক্ষ মানুষের টিন বা ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার আছে। কিন্তু বছর শেষে মাত্র ২০-২২ লক্ষ মানুষ আয়কর রিটার্ন জমা দিয়ে থাকে। যাদের মধ্যে আবার সাত থেকে আট লক্ষ আয়কর প্রদানকারী ব্যক্তি হলো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী। যাদের উৎসে কর কেটে রাখা হয়। আয়কর রিটার্ন জমা দানকারীদের মধ্যে ১০% আবার শূন্য রিটার্ন জমা দেন। তার মানে হল তারা কোন কর প্রদান করেন না।

সুতরাং কর জিডিপির অনুপাত বাড়াতে তাদের কোন ভূমিকাই থাকে না। বাংলাদেশে কর জিডিপির অনুপাত মাত্র পোনে নয় শতাংশ। যা দক্ষিন এশিয়ার দেশ গুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। বাংলাদেশের মোট জনগোষ্ঠীর মাত্র ১.১ শতাংশ মানুষ কর দিয়ে থাকেন। ভুটানের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১১% শতাংশ মানুষ নিয়মিত কর প্রদান করে থাকে। নেপালের অবস্থান ভুটানের কাছাকাছি। ভারতের মোট জনসংখ্যার ১ কোটি ৬৪ লক্ষ মানুষ কর প্রদান করে থাকে যা মোট জনসংখ্যার ১.৫ শতাংশ। এদিকে শ্রীলঙ্কার মোট জনসংখ্যার ৭শতাংশ মানুষ কর প্রদান করে থাকে। পাকিস্তানের অবস্থা প্রায় বাংলাদেশের সমান।

বাংলাদের মানুষ কর দিতে খুব আগ্রহী তা কিন্তু নয়। অনেক ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পদ্ধতিগত জটিলতা, রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তাদের হয়রানিমূলক আচরণ , অনিয়ম, দুর্নীতি ও রাজস্ব বিভাগের সমন্বয়হীনতায় বহুমানুষ আয়কর রিটার্ন জমাদানের ক্ষেত্রে ততটা আগ্রহ দেখান না। এদিকে মোট করদাতার দুই-তৃতীয়াংশ মোট ৩২ শতাংশ ঢাকা এবং চট্টগ্রামে বসবাস করে। এক্ষেত্রে অন্যান্য শিল্প নগরী যেমন বগুড়া সিলেট রংপুর দিনাজপুর কুমিল্লা নারায়ণগঞ্জ,খুলনা এই সমস্ত এলাকায় নতুন নতুন আয়করধারী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে নজরদারির বড়ই অভাব রয়েছে।

একজন ব্যক্তি কর প্রদান করতে তখনই আগ্রহী হবেন যখন তিনি রাষ্ট্রের কাছ থেকে তার প্রাপ্য সুযোগ সুবিধা যথাসমযে প্রাপ্ত হবেন। রাষ্ট্র যখন তাদের করের টাকার যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করবে। কিন্তু একজন ব্যক্তি কর দিতে তখনই অনীহা প্রকাশ করে যখন তারা দেখে যে তাদের টাকায় নিয়োগকৃত রাষ্ট্রের কর্মকর্তা কর্মচারী অন্যায়-অনিয়ম ও দুর্নীতিতে নিমজ্জিত, দেশের টাকা বিদেশে পাচার করে পাচারকৃত টাকা দিয়ে কানাডার বেগমপাড়া বা মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোমে বাড়ি নির্মাণ করছে এবং অনেকাংশে করদাতাদের সেবা প্রদানের পরিবর্তে হয়রানি করছে, সহযোগিতার পরিবর্তে অসহযোগিতা করছে তখনই মানুষ ট্যাক্স প্রদান থেকে বিরত থাকে।

আগেই বলেছি বাংলাদেশের মাত্র ১.১ শতাংশ মানুষ আয়কর রিটার্ন জমা দিয়ে থাকে। পাশ্ববর্তী ভারত নেপাল ভুটান ও শ্রীলঙ্কার চেয়ে যা অনেক কম। রাজস্ব আদায়ে বিভিন্নভাবে সরকার মানুষকে উৎসাহিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। করযোগ্য ব্যক্তির সংখ্যা বৃদ্ধি করে রাজস্ব আদায়ে গতিশীলতা আনয়নে সরকার রাষ্ট্রের বিভিন্ন জরুরি সেবা যেমন জমি ক্রয়-বিক্রয়, বিদ্যুত ও গ্যাস সংযোগ, গাড়ি ক্রয়, ড্রাইভিং লাইসেন্স,পাসপোর্ট প্রাপ্তির ক্ষেত্রে টিন সার্টিফিকেট থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এতে করে কিছু মানুষ টিন সার্টিফিকেট নেওয়ার জন্য উৎসাহিত বোধ করলেও করতে পারে। আবার কিছু মানুষ অনেকটা বাধ্য হয়ে টিন গ্রহন করবে তাদের প্রয়োজনের তাগিদে। বাংলাদেশে ব্যক্তি পর্যায়ে করযোগ্য আয়ের সীমা তিনলক্ষ টাকা। যা বৃদ্ধি করার দাবি থাকলেও অর্থমন্ত্রী তা আমলে নেননি। তবে নারী উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর রেয়াত দেয়া হয়েছে। এটা নিঃসন্দেহে ভালো উদ্যোগ। দেশের সব মানুষ যে নিয়মিত কর দেয় তা কিন্তু নয়। কর প্রশাসনের অদক্ষতা অনিয়ম দুর্নীতি ও কর প্রদানের জটিলতার কারণে অনেকেই কর প্রদানে অনীহা প্রকাশ করে থাকেন। কর বিবরণী সহজিকরণ দীর্ঘদিনের দাবি হলেও তা আজও হয়নি।

আসলে দেশের প্রতিটি মানুষ যাদের ব্যক্তিগত আয় সীমা তিনলক্ষ টাকার ওপরে তাদের প্রত্যেককে করের আওতায় আনা জরুরি। প্রতিবছর অর্থমন্ত্রী বাজেট বক্তৃতায় রাজস্ব আদায়ের যে লক্ষমাত্রা ঘোষনা করেন প্রকৃত আদায় তা থেকে অনেক কম। বাস্তবতা হলো ব্যক্তি করদাতা সনাক্তে রাজস্ব বিভাগের যতটা তৎপর থাকার কথা ছিলো তাতে তারা ব্যর্থ হয়েছেন। ফলে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির মধ্যে ফারাকটা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশে তিনলক্ষ টাকা আয় করে এমন মানুষের সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। তাহলে তাদের কে চিহ্নিত করতে না পারার দায়টা কিন্তু রাজস্ব বিভাগের। দেশে এই মুহূর্তে লাক্ষপতি ও কোটিপতির সংখ্যাটা মোটেই কম নয়। অথচ সঠিক পরিকল্পনা ও তদারকির অভাবে তাদেরকে করের আওতায় আনা যাচ্ছে না। ফলে রাজস্ব ব্যয় মেটাতে সরকারকে প্রতিবছর ব্যাংক থেকে উচ্চ সুদে ঋন নিতে হচ্ছে। জনগণের মাথাপিছু ঋণের পরিমাণ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। যা কোনভাবেই কাম্য নয়।

আগেই বলেছি ব্যক্তি পর্যায়ে যারা নিয়মিত আয়কর দেন তাদের অধিকাংশই চাকুরীজীবী, পেশাজীবী, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসার সাথে জড়িত। তারা তাদের আয়ের ওপর কর প্রদান করে থাকেন। জীবনের শেষপ্রান্তে এসে তারা অনেকটা অসহায় বোধ থাকেন। বৃদ্ধ বয়সে অনেকেরই ইনকাম থাকে না। ৬৫ বা ৭০ বছর বয়সে সন্তানের কাছে হাত পেতে টাকা চাইতে অনেকেই কুণ্ঠা বোধ করেন। করোনা কালে এমন মানুষদের সংকট আরো প্রকট হয়েছে। কারো কারো সন্তান আবার দেশের বাইরে বসবাস করে। স্থবির যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে হয় তারা সন্তানের কাছে যেতে পারছে না নয়তো সন্তানরা দেশে আসতে পারছে না। অনেক সন্তানরা আবার বিদেশের আয়েশি জীবনে অভ্যস্ত হয়ে বাবা মার কথা ভুলেই গেছে। এমন সংখ্যাও কম নয়। এ পরিস্থিতিতে বাবা মার স্থান হয় দেশের কোনো না কোনো বৃদ্ধাশ্রমে।

যারা ব্যক্তিগত আয়ের ওপর নিয়মিত কর দেন তাদের বয়স ৬৫ বছর অতিক্রান্তের পর সরকার যদি তাদের কে দেশের সিনিয়র সিটিজিন হিসেবে ঘোষণা করে পেনশন প্রদান করেন তাহলে ব্যক্তি পর্য়ায়ে আয়কর প্রদানকারীর সংখ্যা বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে। যারা সরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন তারা কিন্ত তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ততোটা চিন্তিত নন। কিন্ত যারা ক্ষুদ্র বা মাঝারি ধরনের ব্যবসা করেন, বেসরকারি সংস্থায় চাকুরি করেন কিন্তু নিয়মিত কর প্রদান করেন তাদের পেনশন হিসেবে নিয়মিত আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করা গেলে তা কর ব্যবস্থপনায় একটি যুগান্তকারী মাইলফলক হয়ে থাকবে। বাধ্য করে কর আদায় করার দরকার নেই। করা যাবেও না। প্রণোদনা দিন, দুর্নীতি অনিয়ম বন্ধ করুন, হয়রানী কমান, অপচয় রোধ করুন, সরকারি টাকার নয় ছয় বন্ধ করুন, টাকা পাচারকারিদের টাকা ফিরিয়ে আনুন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা করুন দেখবেন মানুষ আয়কর প্রদান করতে উৎসাহিত বোধ করবে।

একজন মানুষ তার জীবদ্দশায় গড়ে ৩০-৪০ বছর সরকারকে কর প্রদান করে থাকেন। একজন করদাতা তার সারা জীবনে সরকারকে কি পরিমান টাকা আয়কর দিয়েছেন তার হিসেব নিশ্চয় সরকারের কাছে রক্ষিত আছে। সেখান থেকে নিদিষ্ট একটি অংশ যদি তাদেরকে পেনশন হিসেবে প্রদান করা হয় তাহলে বিশ্ব দরবারে আমরা কল্যাণ রাষ্ট হিসেবে পরিচিতি লাভ করবো। বৃদ্ধ বয়সে এই প্রণোদনা অনেকেরই কাজে লাগবে না জানি আবার অনেকের ভিষনভাবে কাজে লাগবে। আজকের করোনা অতিমারি কালীন সময়ে কিছু মানুষের কাছে এমন প্রণোদনা অনেক বেশি প্রয়োজনীয়।

দেশের যে কৃষকটি মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কঠোর পরিশ্রম করে মাঠে ঘাটে ফসল ফলিয়ে আমাদের মুখে খাবার তুলে দিয়েছে, যে শ্রমিক ভাইটি কলে কারখানায় শ্রম দিয়ে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল করেছে তাকে যদি তার বৃদ্ধ বয়সে আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করা হয় তাহলে তিনি নিঃসন্দেহে সস্মানিত বোধ করবেন এবং তাদের পেশার প্রতি আরো যত্নশীল হবেন। আমাদের সিনিয়র সিটিজেন যারা তাদের জীবন ও যৌবনের শ্রেষ্ঠ সময় গুলো রাষ্ট্রের কাজে ব্যয় করেছেন তাদেরকে বৃদ্ধ বয়সে পেনশন বা আর্থিক প্রণোদনার আওয়ায় এনে রাষ্ট্র তার কৃতজ্ঞতাবোধ জানাতে পারে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এমনকি পাশ্ববর্তী ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য কল্যাণমূখী বহু কর্মসুচি চালু রয়েছে।

আমরাও আমাদের সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য আর্থিক প্রণোদনাসহ সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা, বাস ট্রেনে বিনা ভাড়ায় যাতায়াত,বিভিন্ন সেবা প্রাপ্তিতে অগ্রাধিকার প্রদান করতে পারি। সরকারের কাছে প্রতিটি মানুষের ব্যক্তিগত তথ্যাদি রয়েছে। এসব তথ্য কাজে লাগিয়ে খুব সহজেই আমরা আমাদের সিনিয়র সিটিজেনদের সন্মানিত করতে পারি। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় নিরবে বড় ধরনের একটি পরির্বতন ঘটে গেছে। যৌথ পরিবার প্রথা ভেঙে গেছে। ফলে বৃদ্ধ বয়সে বাবা-মাকে দেখার কেউ থাকে না। ফলে যে সব মানুষের টিন সার্টিফিকেট আছে বৃদ্ধ বয়েসে তাদের সরকারি সাহায্য সহযোগিতা ক্ষেত্র বিশেষে খুবই জরুরি। আমরা নিজেদেরকে উন্নত জাতি হিসেবে দাবি করলেও আমরা আমাদের সিনিয়র সিটিজেনদের আজও সর্বক্ষেত্রে যোগ্য মর্যাদা দিতে পারিনি। তাদের প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করতে পারিনি। বিষয়টি বিবেচনার দাবি রাখে।

লেখক : আইবিএ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]

এইচআর/এমএস

আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় নিরবে বড় ধরনের একটি পরির্বতন ঘটে গেছে। যৌথ পরিবার প্রথা ভেঙে গেছে। ফলে বৃদ্ধ বয়সে বাবা-মাকে দেখার কেউ থাকে না। ফলে যে সব মানুষের টিন সার্টিফিকেট আছে বৃদ্ধ বয়েসে তাদের সরকারি সাহায্য সহযোগিতা ক্ষেত্র বিশেষে খুবই জরুরি। আমরা নিজেদেরকে উন্নত জাতি হিসেবে দাবি করলেও আমরা আমাদের সিনিয়র সিটিজেনদের আজও সর্বক্ষেত্রে যোগ্য মর্যাদা দিতে পারিনি। তাদের প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করতে পারিনি। বিষয়টি বিবেচনার দাবি রাখে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]