শেখ রেহানা : আমাদের আন্তিগোনে

ড. মিল্টন বিশ্বাস
ড. মিল্টন বিশ্বাস ড. মিল্টন বিশ্বাস , অধ্যাপক, কলামিস্ট
প্রকাশিত: ১০:০৯ এএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

গ্রিক নাট্যকার সফোক্লিসের আন্তিগোনে ট্র্যাজেডিতে ইডিপাসের কন্যা আন্তিগোনে রাজা ক্রিওনের নির্দেশের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে নিজের ভাইয়ের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছিল। রাজার আইনি হুকুম না মেনে আন্তিগোনে রাজশক্তির বিরুদ্ধে পারিবারিক ধর্মে প্রতিষ্ঠিত নৈতিকতার আদর্শ প্রতিষ্ঠা করার দুঃসাহসিকতা দেখিয়ে প্রতিবাদী নারী চরিত্র হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে। সাহসী উচ্চারণে রাজা ক্রিওনের প্রশ্নের জবাবে নিজের ভাই পলিনিকেসের প্রতি শোক প্রকাশ ও তার শব সংরক্ষণ করার যুক্তি তুলে ধরেছিল। ওই পরিস্থিতিতে রাজত্বের স্বার্থ রক্ষা করে নিজেকে মহিমান্বিত করেনি সে।এজন্য আন্তিগোনে কালোত্তর এক নৈতিকতার প্রতীকে পরিণত হয়েছে। এক প্রতিবাদের নাম, সাহসের নাম আন্তিগোনে।

পরিপ্রেক্ষিত একইরকম নয় কিন্তু আন্তিগোনের সাহস, স্বজনের জন্য আত্মত্যাগ এবং খুনি চক্রের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে নিজে কষ্ট স্বীকার করার প্রত্যয় লক্ষণীয় শেখ রেহানার জীবনেও।আসলে খুনি ও পাকিস্তানপন্থীদের বিরুদ্ধে নৈতিক সংঘাতের কাহিনি রয়েছে শেখ রেহানার জীবনেও। আত্মসচেতন এই নারীর ঔদার্যের পরিচয়ও অনন্য। দেশ ও বাঙালি জাতির সামনে আত্মপরিচয় তৈরি করে স্বমহিমায় গৌরবান্বিত তিনি।

দুই.

১৩ সেপ্টেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠকন্যা শেখ রেহানার জন্মদিন। ১৯৫৫ সালের এই দিন তিনি টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৫৪ সালের ৩০ মে থেকে ১৯৫৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কারাগারে ছিলেন। পুনরায় তিনি কারাগারে নিক্ষিপ্ত হন ১৯৫৮ সালের ১২ অক্টোবর। অর্থাৎ শেখ রেহানার জন্ম থেকে বেশ কয়েক বছর বঙ্গবন্ধুর মুক্ত জীবনে বিচরণের সুযোগ ঘটেছিল। যদিও তখন তিনি রাজনৈতিক কাজে পুরোমাত্রায় নিমজ্জিত। ১৯৫৫ সালের ৫ জুন তিনি গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ১৭ জুন ঢাকার পল্টন ময়দানের জনসভা থেকে পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন দাবি করা হয়। ২৩ জুন আওয়ামী লীগের কার্যকরী পরিষদে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন প্রদান করা না হলে দলীয় সদস্যরা আইনসভা থেকে পদত্যাগ করবেন। ২৫ আগস্ট পশ্চিম পাকিস্তানে এক ইউনিট প্রতিষ্ঠা বিষয়ক বিল সম্বন্ধে আলোচনাকালে তিনি পাকিস্তান গণপরিষদে একটি গুরুত্বপূর্ণ বক্তৃতা দেন।

‘পূর্ববাংলা’ নামটি বিসর্জন দিয়ে ‘পূর্ব পাকিস্তান’ নামকরণে তিনি জোর আপত্তি করেন। একইসঙ্গে বাংলাভাষাকে রাষ্ট্রভাষা ঘোষণা, যুক্ত নির্বাচন পদ্ধতি প্রবর্তন এবং প্রাদেশিক স্বায়ত্তশাসন সম্বন্ধে সিদ্ধান্ত ঝুলিয়ে রাখা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। ২১ অক্টোবর আওয়ামী মুসলিম লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শেখ মুজিব দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’শব্দটি প্রত্যাহারের প্রস্তাব পেশ করলে আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়। কাউন্সিল অধিবেশনে তিনি পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

দেখা যাচ্ছে, ১৩ সেপ্টেম্বর শেখ রেহানার জন্ম হলেও শিশুকন্যাকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু ব্যস্ত নন। তিনি তখন দলের কাজে নিবেদিতপ্রাণ নেতা। তবে বড় মেয়ের মতোই ছোট মেয়ের প্রতি ছিল তাঁর অপত্য স্নেহ ও মমত্ববোধ। তার প্রকাশ রয়েছে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ‘কারাগারের রোজনামচা’য়। যেমন, একটি অংশ ‘ছোট মেয়েটার (শেখ রেহানা) শুধু একটা আবদার। সে আমার কাছে থাকবে। আর কেমন করে কোথায় থাকি তা দেখবে। সে বলে, থেকে যেতে রাজি আছি।’ (১৫ই জুন ১৯৬৬, বুধবার, কারাগারের রোজনামচা)

১৯৭৫ সালে বাবা-মাসহ পরিবারের সদস্যদের হারানো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বাল্যকাল থেকেই পিতার রাজনৈতিক আদর্শে বেড়ে উঠেছেন। এজন্য তাঁদের ঔদার্য বিশাল। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অনেক ঘটনা দিয়ে এই উদার-হৃদয়ের মানুষদের আমরা চিনতে পারি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর শেখ রেহানা যুক্তরাজ্যে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন। ব্রিটিশ সরকার তার প্রার্থনা মঞ্জুর করেন। সেখানেই অদ্যাবধি অবস্থান করছেন তিনি। তবে প্রতিবছর বাংলাদেশে কিছুদিনের জন্য অবস্থান করেন।

২০০৭-২০০৮ সালে সামরিক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে শেখ হাসিনাকে বন্দি করা হলে শেখ রেহানা তাঁর পক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে হাল ধরেন। নেত্রীর মুক্তির জন্য দেশ-বিদেশে আইনি লড়াই চালিয়ে যান। ২০০৯ সাল থেকে বড় বোনকে রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে সহযোগিতা করে আসছেন। তিন সন্তানের জননী শেখ রেহানার স্বামী শফিক আহমেদ সিদ্দিক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং ও ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক। ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করছেন। আর দুই কন্যা টিউলিপ সিদ্দিক ও আজমিনা সিদ্দিকও উচ্চ শিক্ষিত।

টিউলিপ সিদ্দিক ব্রিটিশ লেবার পার্টির নেতা হিসেবে ব্রিটেনের সর্বশেষ নির্বাচনে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড ও কিলবার্ন আসনে টানা তৃতীয়বারের মতো এমপি হন। ২০২০ সালে তিনি ব্রিটেনের শিশুবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। তিনি এতদিন শ্যাডো আর্লি ইয়ারস মিনিস্টার (প্রাক-প্রাথমিক ছায়ামন্ত্রী) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। অর্থাৎ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর প্রতিকূল পরিস্থিতি জয় করে শেখ রেহানা নিজের সন্তানদের সুশিক্ষিত ও রাজনীতি সচেতন করে গড়ে তুলেছেন। শেখ রেহানার এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করার শক্তি আন্তিগোনের সাহসের কথা মনে করিয়ে দেয়। আসলে আন্তিগোনে স্পর্ধা দেখিয়েছিল। রাজা ক্রিওনকেও সে বুঝিয়ে দিয়েছিল স্বৈরাচারের আইন অমান্য করে সে মৃত্যুকে বেছে নিয়েছে কেবল ভাইয়ের প্রতি ভালোবাসা থেকে। আপন বোন ইসমেনি কিন্তু সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা থেকে বিরত ছিল।

তিন.

আন্তিগোনের মতোই বিরূপ বিশ্বের মাঝে বসবাস করেও শেখ রেহানা ঔদার্য দেখিয়েছেন জীবনের নানান ক্ষেত্রে। তবে শেখ হাসিনা আন্তিগোনের বোন ইসমেনি নন। বরং অভিভাবকের মতো ছায়া দিয়েছেন নিজের ছোট বোনকে। বিগত মহাজোট সরকারের সময় শেখ রেহানার নামে বরাদ্দকৃত বাড়িটি সরকারি কাজে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানার ঘটনাটি অধিকাংশ মানুষের কাছে তাৎপর্যপূর্ণ মনে হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের শেষদিকে ২০০১ সালে ১১ জুলাই মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ধানমন্ডিতে এক বিঘা জমির প্লটে একতলা একটি বাড়ির মালিকানা পান শেখ রেহানা।

তৎকালীন সরকারের পক্ষ থেকে বিক্রয় দলিল সম্পাদন ও রেজিস্ট্রেশন করে দেয়া হয় এবং বাড়িটি তার নামে নামজারিও হয়েছিল। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে সেই বরাদ্দ না মেনে বাড়িটি ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশকে দিয়ে দেয়। তবে শেখ রেহানার পক্ষ থেকে হাইকোর্টে রিট করায় মামলাধীন বাড়িটির বরাদ্দপত্র বাতিল করতে ব্যর্থ হয় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার। প্রায় ২০০ কোটি টাকা মূল্যের সরকারিসূত্রে পাওয়া বাড়িটি নিজের দখলে আনার চেষ্টা না করে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেছেন শেখ রেহানা। নামমাত্র ১০০১ টাকা মূল্যে সরকারের কাছে বাড়িটি দলিল করে দিয়েছেন তিনি। এ ঘটনা বঙ্গবন্ধু পরিবারের সন্তান হিসেবে তার পক্ষেই ঘটানো সম্ভব। কারণ শেখ মুজিবুর রহমানও বাল্যকাল থেকে পরের দুঃখ-কষ্টকে উপলব্ধি করতে শিখেছিলেন আর নিজে ধনপতি না হয়ে সাধারণ জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নিবেদিত ছিলেন।

২০০১-০৬ পর্যন্ত রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অনেককেই প্লট বা বাড়ি বরাদ্দ দিয়েছে। কিন্তু কেড়ে নিয়েছিল এ দেশের গর্বিত সন্তান শেখ রেহানার বাড়িটি। মনে রাখা দরকার ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার পর ধানমন্ডির পৈতৃকসূত্রে প্রাপ্ত ঐতিহাসিক বাড়িটি বঙ্গবন্ধুর জীবিত দুই কন্যা নিজেরা ভোগদখল না করে ‘স্মৃতি জাদুঘর’ করে জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। অথচ জাতির পিতার কন্যাদ্বয়ের নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা রাষ্ট্রেরই করা উচিত ছিল।

আমরা দেখলাম বিপরীত চিত্র- শেখ রেহানার বাড়িটি দখলের জন্য জোট সরকার ২০০৫ সালে থানা হিসেবে উদ্বোধন করে। স্বয়ং সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া উপস্থিত হয়েছিলেন সেখানে। বঙ্গবন্ধু কন্যা আন্তিগোনের মতো প্রতিবাদী বলেই কি তাঁর প্রতি এই বিদ্বেষ?পক্ষান্তরে শেখ রেহানা নিজের বাড়িটি স্বেচ্ছায় জনস্বার্থে পুলিশকে দিয়ে দিয়েছেন। এটা বঙ্গবন্ধু পরিবারের ঔদার্যের প্রকাশ। ব্যক্তিগত ভোগদখলের চিন্তা ত্যাগ করার এই মানসিকতা সত্যিই অভিনন্দনযোগ্য। এ জন্যই শেখ রেহানা বলেছেন ‘এক সরকার দেবে, আরেক সরকার নেবে, এই ঝামেলায় তার দরকার নেই।’

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পরে দীর্ঘদিন নির্বাসনে থাকতে হয়েছে বড় বোন শেখ হাসিনাসহ শেখ রেহানাকে। পঁচাত্তর-পরবর্তী সরকারগুলো কেউ তাদের প্রতি সদয় হয়নি। বরং প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নিহত হওয়ার পর মাত্র ১০১ টাকায় তার স্ত্রী-সন্তানদের জন্য গুলশানে ৩২ কাঠার প্লটে একটি বাড়ি বরাদ্দ করা হয়। সে সময় কেউ এর বিরুদ্ধে কথা বলেনি।

৩২ কাঠার গুলশানের বাড়িটি বরাদ্দ পাওয়ার পরও খালেদা জিয়া ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের মইনুল রোডের ২২৮ কাঠার বিলাসবহুল বাড়িতেই থাকতেন। প্রচলিত আইন ভেঙে একইসঙ্গে দুটি সরকারি বাড়ি দখল করার ক্ষেত্রে দেশের মানুষ একটিবারও প্রশ্ন তোলেনি কেন? অবশেষে আদালতের রায়ে ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটি ছাড়তে হলেও তিনি প্রেস-কনফারেন্স করে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন। আশ্চর্যের বিষয় হলো সেনানিবাসে বসে দিনের পর দিন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা নিয়েও প্রতিবাদ করেনি প্রতিক্রিয়াশীল ঘরানার বুদ্ধিজীবী মহল। অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াতের দলীয় রাজনীতির দৃষ্টান্ত বঙ্গবন্ধু কন্যার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

কারণ শেখ রেহানা কখনো রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। এমনকি খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার ঔদার্যের তুলনাও হয় না। শেখ রেহানার মাথা গোজার ঠাঁই কেড়ে নিয়ে তাঁর নামে রেজিস্ট্রি ও নামজারিকৃত বাড়ি থেকে কর্মরত ৯ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দেয় জোট সরকার। কেবল জাতির পিতার কন্যা হওয়ায় শেখ রেহানাকে সেদিন অপদস্ত করা হয়েছিল। সেই উপেক্ষা, কুরুচিপূর্ণ আচরণ মানুষ ভুলে যায়নি। ২০১৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে জয়ী করে তার জবাব জনগণ দিয়েছেও।

শেখ হাসিনা ভাইবোনদের মধ্যে সবার বড়। তাঁর তিন ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে নৃশংসভাবে নিহত হন। একমাত্র বোন শেখ রেহানা তখন তার সঙ্গে জার্মানিতে। ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত হন এবং ১৭ মে ৬ বছর নির্বাসন শেষে দেশে ফেরেন তিনি। একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তারের পরে তাদেরও বন্দি করে রেখেছিল পাকিস্তানি আর্মি। বন্দি মুহূর্তগুলো ছিল উৎকণ্ঠায় ভরা। পিতা জীবিত আছেন জানতে পারেন স্বাধীন দেশে ৮ জানুয়ারি ১৯৭২ সালে। ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন। কিন্তু প্রথমে পরিবার নয় গিয়েছেন জনতার কাছে। বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের আন্দোলনের প্রতিটি মুহূর্তে তাঁর মা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন। তিনি ছিলেন পরিবারটির প্রেরণা। দুই বোন স্মৃতিকথায় জানিয়েছেন, মার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল দেশ স্বাধীন হবে। মায়ের কাছ থেকে শিখেছেন অনেক কিছু। স্বাধীনতার পরে বঙ্গবন্ধু মনে করতেন বাংলাদেশ হবে প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড এবং সাউথ এশিয়ার শক্তিশালী দেশ। অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হবে এ দেশ। বঙ্গবন্ধুর এই ভাবনাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাবনাও। বাংলাদেশের মানুষের কথা চিন্তা করে শেখ হাসিনা কষ্ট পান; তেমনি শেখ রেহানাও। যে বাঙালির জন্য বঙ্গবন্ধু সারাটা জীবন কষ্ট করেছেন, সেই জনগণের জন্যই নিজের জীবনটাই দিয়ে গেছেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলো ১৯৭৫-পরবর্তী বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন ঘটেনি। এ দেশের মানুষ যে কষ্ট সেই কষ্টই পেয়েছে।বর্তমানে তিনি চেষ্টা করেছেন মানুষের অবস্থার উন্নয়ন ঘটানোর জন্য। মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে হবে, মানুষের জন্য কিছু করতে হবে- এ ভাবনা শেখ হাসিনা, শেখ রেহানাসহ সকল আওয়ামী লীগ বিশ্বাসীর।

চার.

ব্যক্তিগতভাবে শেখ হাসিনার মতো শেখ রেহানারও টুঙ্গিপাড়ার প্রতি রয়েছে গভীর টান। হিজলের স্মৃতি তাকে ডাক দিয়ে যায়; জলে ঢাকা সবুজ ক্ষেত তাকে আহ্বান জানায়। মহান পিতার কবর স্নিগ্ধ সান্নিধ্য প্রদান করে। ১৯৭৫ সালের ৩০ জুলাই শেখ হাসিনার সঙ্গে বিদেশে চলে গিয়েছিলেন বলেই প্রাণে রক্ষা পান তিনি। কলেজ পড়ুয়া রেহানার লেখাপড়া বিঘ্নিত হচ্ছিল দেশে। কারণ তাদের ছোট বাড়িতে অনেক মানুষ; আর রাজনৈতিক পরিবারে বিচিত্র মানুষের আনাগোনা বেশি হওয়াটাই স্বাভাবিক। এজন্য বড় বোনের সন্তানদের দেখাশোনা ও নিজের পড়ার কাজের সুবিধার জন্য মাতৃনির্দেশ পালন করে বিদেশ পাড়ি দেন তিনি। রাষ্ট্রপতি হয়েও বঙ্গবন্ধু একটি ছোট বাড়িতে থাকতেন। কারণ বেগম মুজিবের বিশ্বাস ছিল বিলাসবহুল জীবনযাপনে অভ্যস্ত হয়ে গেলে তার সন্তানরা নষ্ট হয়ে যাবে। এজন্য কখনো রাষ্ট্রপতি ভবনে বসবাসের উদ্দেশ্যে যাননি বরং সাদামাটা জীবনযাপন করেছেন।

দেশে ফিরতে না পেরে ১৯৭৬ সালে রেহানা লন্ডনে পৌঁছান। বিয়ে করেন পিতার পছন্দের পাত্রকেই। ১৯৭৭ সালে শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে তিনি প্রথম রাজনৈতিক বক্তব্য দেন সুইডেনে একটি কনফারেন্সে। ১৯৮০ সালে শেখ হাসিনা লন্ডনে বক্তব্য রাখেন। এ সময় দুই বোন বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা নিয়ে সোচ্চার হন। ১৯৮১ সাল থেকে শেখ হাসিনা পার্টির জন্য নিরলস কাজ করেছেন; নেতৃত্ব দিয়েছেন; সততার পরাকাষ্ঠা দেখিয়েছেন। আর প্রেরণা জুগিয়েছেন ছোট বোন শেখ রেহানা। লন্ডন প্রবাসী শেখ রেহানা বাংলাদেশের স্থপতি ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বোন, তারপরও তাঁকে চাকরি করে চলতে হয়। একটা গাড়ি নেই, তার বিরুদ্ধেও মামলা করে জোট সরকার এবং পরবর্তীতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অথচ তারা কোনো দুর্নীতি খুঁজে পায়নি। যাদের গায়ে কালি নেই তাদের কালি দিয়ে ষড়যন্ত্র করেছে বিএনপি-জামায়াতসহ মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা। সৎ ও যোগ্য হয়েও শেখ রেহানা হয়রানির শিকার হয়েছেন বহুবার।

আন্তিগোনের পথ সন্ত্রাসের পথ ছিল না।তার আহ্বান ছিল রাজার প্রতি, রাজশক্তির মধ্যে দয়া ও পারিবারিক নীতিকে মান্য করতে বলেছিল সে।অথচ রাজা নিজের রাজ্যভার ছাড়তে রাজি হন নি।তাই শেষে তারও যন্ত্রণা সাম্রাজ্যের ভগ্নদশায় উচ্চকিত হয়ে ওঠে। নিজের পুত্র আন্তিগোনের পথে যাত্রা করে। তিনি শূন্যতার শোকসভায় আসীন হন। শেখ রেহানা জনগণের ভালোবাসা পেয়ে নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন, নিরলসভাবে খেটেছেন দল ও মানুষের জন্য।

পাঁচ.

মূলত এ দেশে মানুষের ভালোবাসা ছাড়া বঙ্গবন্ধু পরিবার কিছুই পায়নি। উপরন্তু শেখ রেহানা রাষ্ট্রের কাছে থেকে কিছুই নেননি। রাষ্ট্রপতি পরিবার হিসেবে তো রাষ্ট্রের কাছ থেকে সবাই পায় শুধু তাঁরাই কিছু নেননি। কারণ তাঁর ব্যক্তিগত উচ্চাভিলাষ নেই; ছিল না কখনো। এজন্য জনগণের স্বার্থ রক্ষা করেছেন; জনগণের দিকে তাকিয়েছেন; জনগণের জন্য কিছু করেছেন। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রাষ্ট্রীয় সম্পদে জনগণের অধিকার নিশ্চিত করা কর্তব্য মনে করে নিজের বরাদ্দকৃত বাড়িটি পুলিশকে দিয়ে দিয়েছেন। কেবল নিজের বাড়ি দেওয়া নয় এদেশের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা গেছে সবসময়, প্রতিটি দুর্যোগে। শেখ রেহানার মহানুভবতার তুলনা নেই। মানব দরদি ও মহৎ বলেই নতুন প্রজন্মের আদর্শ তিনি।

আন্তিগোনের লড়াই ছিল সুন্দর, তার মধ্যে ন্যায়ের প্রতিভাস ছিল।সে মৃত ভাইয়ের প্রতি কর্তব্য পালন করেছিল পারিবারিক দায় থেকে, মৃত্যুদণ্ডকে মেনে নিয়ে। শেখ রেহানাও দেশ ও জনগণের দায় থেকে খুনি চক্রের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। নিজের বোনের পাশে থেকে ন্যায় প্রতিষ্ঠা করে চলেছেন। তাঁর লড়াই সত্য-সুন্দর ও মহিমান্বিত।

লেখক : কবি, কলামিস্ট, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ এবং অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]

এইচআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]