নিজ গুণেই মাহবুবে আলম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন

আহসান রাজীব বুলবুল
আহসান রাজীব বুলবুল আহসান রাজীব বুলবুল , কানাডা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:৩৭ এএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

বাংলাদেশের রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা (অ্যাটর্নি জেনারেল) মাহবুবে আলমের মৃত্যুর খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে কানাডা প্রবাসী বাঙালিদের মাঝেও শোকের ছায়া নেমে আসে।

তাৎক্ষণিকভাবে এক ভার্চুয়াল আলোচনার মাধ্যমে মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন ক্যালগেরির প্রবাসী বাঙালিরা।

প্রবাসী সাংবাদিক আহসান রাজীব বুলবুলের সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালগেরির সভাপতি মো. রশিদ রিপন, সহ-সভাপতি প্রকৌশলী মো. কাদির, প্রকৌশলী ও ব্যবসায়ী আবদুল্লা রফিক, এবিএম কলেজের প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল বাতেন, আলবার্টা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর সেলিম, সিলেট অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালগেরির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রূপক দত্ত, ব্যবসায়ী কিরণ বণিক শংকর, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মাহমুদ হাসান দিপু।

আলোচনার শুরুতেই মরহুমের আত্মার শান্তি কামনা করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। বক্তারা শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করে বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ছিলেন আইনজীবী হিসেবে সর্বজন শ্রদ্ধেয়। অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে তিনি তার দায়িত্ব পালন করে গেছেন।

তিনি অত্যন্ত গুণী, নির্লোভ এবং নির্মোহ ব্যক্তি ছিলেন। দেশে আইনের শাসন এবং ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় তার অবদান অনস্বীকার্য। নিজ কর্মগুণে তিনি দেশের মানুষের কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তার মৃত্যুতে আইন অঙ্গনে এক বিশাল শূন্যতা সৃষ্টি হলো।

বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালগেরির সভাপতি মো. রশিদ রিপন বলেন, মাহবুবে আলম প্রথিতযশা আইনজীবী হিসেবে অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলা দক্ষতার সঙ্গে পালন করেছেন। মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালগেরির সহ-সভাপতি মো. কাদির বলেন, মাহবুবে আলম অত্যন্ত সৎ নম্র ও ভদ্র প্রকৃতির মানুষ ছিলেন। আইনজীবী হিসেবে তার ছিল এক বর্ণাঢ্য জীবন। জাতি এক সুযোগ্য সন্তান কে হারালো। এই শূন্যতা পূরণ হবার নয়। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও ক্যালগেরির এ বি এম কলেজের প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল বাতেন বলেন, বৈশ্বিক মহামারির এই সময়ে তার মৃত্যু এক অপূরণীয় ক্ষতি। আইনজীবী হিসেবে তিনি ছিলেন অত্যন্ত দক্ষ সৎ ও নির্ভীক। তার আত্মার শান্তি কামনা করছি।

ব্যবসায়ী ও প্রকৌশলী আব্দুল্লা রফিক বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যু জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে তার অবদান জাতি মনে রাখবে। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারকার্য সম্পূর্ণ করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছেন এছাড়া জাতির আরেক কলঙ্ক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা ছিল সাধারণ মানুষের কল্পনার বাইরে। সেই কঠিন কাজটিও তিনি করে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছেন। জাতি তাকে অনন্তকাল মনে রাখবে।

আলবার্টা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর সেলিম বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের দীর্ঘতম সময়ের সফল অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জীবনাবসানে সমগ্র জাতির সঙ্গে আমরা ও গভীরভাবে শোকাভিভূত। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দুরূহ বিচারকার্য অত্যন্ত সফলতার সাথে সম্পন্ন করায় বাঙালি জাতির কাছে তিনি চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

সিলেট অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালগেরির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রূপক দত্ত বলেন, তার দীর্ঘ কর্মময় জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলা পরিচালনা করে তিনি বাংলাদেশ তথা সমগ্র বিশ্ববাসীর কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তার আত্মার শান্তি ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

ব্যবসায়ী কিরণ বণিক শংকর বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘতম মেয়াদের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে আমরা খুবই শোকাহত। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সম্পূর্ণ বিশ্বাসী মাহবুবে আলম জাতির পিতা ও জাতীয় চার নেতার হত্যাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মামলার শুনানি করেন। জাতি আজ একজন সংবিধান বিশেযজ্ঞ ও আইনের বাতিঘরকে হারালো।

উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান দীপু বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময়ের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম তার কর্তব্য পালনে ছিলেন অত্যন্ত দৃঢ়চিত্ত ও দ্বিধাহীন। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা, পিলখানা বিদ্রোহ, মানবতা বিরোধী অপরাধের মামলায় অত্যন্ত দক্ষতার পাশাপাশি সংবিধানের পঞ্চম, সপ্তম, ত্রয়োদশ ও ষোড়শ সংশোধনী মামলাসহ অনেক চাঞ্চল্যকর মামলায় রাষ্ট্রের পক্ষে যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন তার জন্য জাতি তার অবদানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।

এমআরএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]