আরাফার দিন যে কারণে রোজা রাখবেন

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৫৩ পিএম, ১৯ আগস্ট ২০১৮

হজের বিনিময় শুধুই জান্নাত। তাই হজের সঙ্গে সম্পর্কিত সব ইবাদতেরই মর্যাদা অনেক বেশি। তাইতো হজের সফরে কেউ মৃত্যু বরণ করলে কেয়ামত পর্যন্ত হজের সাওয়াব লাভ করবে মৃতব্যক্তি। শুধু তাই নয় হজের দিন তথা আরাফার দিনের ইবাদত বন্দেগির রয়েছে বিশেষ মর্যাদা ও পুরস্কার।

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, বছরের মধ্যে এমন কোনো দিন নেই যে, আল্লাহ তাআলা আরাফার দিন অপেক্ষা অধিক সংখ্যায় তার বান্দাদেরকে জাহান্নাম থেকে মুক্ত করেন। আর আরাফার দিন আল্লাহ তাআলা বান্দার অধিক নিকটবর্তী থাকেন। অতঃপর ফেরেশতাদের কাছে গৌরব প্রকাশ করে জানতে চান- আমার এ বান্দাগণ কী চায়? (মুসলিম)

সুতরাং ধর্মপ্রাণ মুসলমানের উচিত হজের দিন তথা আরাফার দিন ইবাদত-বন্দেগিতে সময় অতিবাহিত করা। বেশি বেশি নেকির কাজ করা। যাতে আল্লাহর তরফ থেকে পরিপূর্ণ প্রতিদান লাভ করতে পারে।

আরাফার দিন রোজা রাখায় রয়েছে বিশেষ ফজিলত। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু কাতাদাহ আনসারি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আরাফার (হজের দিনের) রোজা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, আরাফার দিনের (হজের দিনের) রোজা বিগত এক বছর এবং আগামী এক বছরের গোনাহের কাফফারা হবে। আর তাকে আশুরার রোজার কথা জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, বিগত এক বছরের গোনাহের কাফফারা হবে।’ (মুসলিম, মুসনাদে আহমদ)

আরও পড়ুন > কুরবানিতে যেসব পশু জবাই করা বিশুদ্ধ ও উত্তম

হজরত সাহল ইবনে সাদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আরাফার দিবসে রোজা রাখে তার একাধারে দুই বছরের গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।’ (আবু ইয়ালা, আত-তারগিব)

তাই ইয়াওমে আরাফা তথা হজের দিন ইবাদত-বন্দেগির সঙ্গে সঙ্গে রোজা পালনে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ফজিলত ও মর্যাদা। সুতরাং আরাফার দিন রোজা রাখা এবং তাসবিহ, তাহলিল, ইবাদত-বন্দেগি করা আবশ্যক।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আরাফার দিন রোজা রাখার পাশাপাশি ইবাদত-বন্দেগিতে অতিবাহিত করার তাওফিক দান করুন। আরাফার দিনের আগের ও পরের বছরের গোনাহ থেকে নাজাত লাভের তাওফিক দান করুন। সর্বোচ্চ প্রতিদান জান্নাত লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :