বিশ্বনবির আকিকা যেভাবে সম্পন্ন হয়েছিল

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ২৯ অক্টোবর ২০১৯

আকিকা করা সুন্নাত। নবজাতক শিশুর জন্য পশু জবেহের মাধ্যমে তা করতে হয়। এটি এমন এক সুন্নাত, যা প্রত্যেক শিশুর জন্মের পর করলে শিশুর অনেক উপকার হয়। কেননা আকিকা হলো (সম্পদ) সাদকা দেয়ার মতো।

হজরত জাফর সাদিক রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত এক হাদিস থেকে জানা যায় যে, ‘আকিকা সম্পাদনের কারণে শিশু সন্তানের জীবন থেকে বেশিরভাগ কষ্টদায়ক জিনিস (রোগ-ব্যাধি) সরিয়ে দেয়া হয়।’

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্মের সপ্তম দিনে তাঁর আকিকা করা হয়েছিল। মুহাম্মদ ইবনে ইয়াকুব আল-কুলাইনির তথ্য মতে বিশ্বনবির চাচা আবু তালিব এ আকিকা সম্পাদন করেছিলেন। তার ভাষায়-
‘আবু তালিব রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আকিকা সম্পাদন করেছিলেন। তখন তার বয়স হয়েছিল মাত্র ৭ দিন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আকিকা উপলক্ষে আবু তালিব তার পরিবারের সব সদস্যকে খাওয়ার দাওয়াত করেছিলেন। পরিবারের সদস্যরা যখন জিজ্ঞাসা করলেন এটা কী? তখন আবু তালিব বললেন, ‘এটা আহমদের জন্য আকিকা’।

তারপর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জন্মের ৭দিন পর হজরত হাসান ইবনে আলি এবং হজরত হুসাইন ইবলে আলি রাদিয়াল্লাহু আনহুমার আকিকা সম্পাদন করেছিলেন। প্রত্যেকের জন্য একটি করে তিনি দুটি বকরি কুরবানি করেছিলেন। তিনি আকিকার বকরি থেকে একটি পা তাদের দিয়েছিলেন, যারা তাদের মায়ের গর্ভ থেকে ভূমিষ্ট হওয়ার সময় সাহায্য করেছিলেন।

আকিকার নিয়ম
- জন্মের ৭ দিন পর আকিকা করা সুন্নাত।
- যদি জন্মের ৭ দিন পর আকিকা করা সম্ভব না হয় তবে, ১৪ অথবা ২১ দিনের সময় আকিকা করা। আর্থিকভাবে সাবলম্বী না হয় তবে শৈশব থেকে সাবালক হওয়ার মধ্যবর্তী কোনো এক সময়ে আকিকা করলেও হবে। তবে বর্তমান সময়ে ১৯ থেকে ২৪ বছরের আগেই আকিকা করে নেয়া।
- আকিকা করা মোস্তাহাব এবং সুন্নাত। এটি একেবারে বাধ্যতামূলক নয়। যদি কেউ আকিকা না করে তবে তার গোনাহ হবে না।
- আকিকার জন্তুর বয়স ১৩ মাস থেকে ১৫ মাসের হতে হবে। এর নিচে হলে আকিকা হবে না।

আকিকা সম্পর্কে হাদিসের বর্ণনায় এসেছে-
- হজরত সামুরা ইবনে জুনদুব রাদিয়াল্লাহু আনহু রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেছেন তিনি বলেছেন যে, নবজাতক নিজ আকিকার সাথে বন্ধক থাকে। তার জন্মের সপ্তম দিন তার নামে একটি আকিকার পশু জবেহ করবে।’ (তিরমিজি, আবু দাউদ)

- হজরত সালমান ইবনে আমের রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি যে, সন্তানের সঙ্গে ‘আকিকা সম্পর্কিত। ‎সুতরাং তার পক্ষ হতে রক্ত প্রবাহিত করো এবং তার থেকে কষ্টদায়ক বস্তু দূর কর।’ (আবু দাউদ)

মুসলিম উম্মাহর উচিত শিশুর জন্মের সপ্তম দিনে আকিকা দেয়া। আর এটি বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাত। এতে শিশু অনেক কষ্টদায়ক বিপদাপদ থেকে মুক্ত থাকে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সঠিকভাবে আকিকা করার তাওফিক দান করুন। সুন্নাতের উপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/জেআইএম