ডিসেম্বর নয়, জানুয়ারিতে আসছে ই-পাসপোর্ট

আদনান রহমান
আদনান রহমান , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২২ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট) চালু করতে গত ১৯ জুলাই জার্মানির ভেরিডোস কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর। সেদিন ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, ডিসেম্বরের মধ্যেই বাংলাদেশে পৌঁছাবে ই-পাসপোর্ট। এখন ডিসেম্বরে ই-পাসপোর্ট পাওয়া অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ই-পাসপোর্ট দেশে আসতে পারে আগামী বছরের জানুয়ারিতে।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার কন্ট্রোল (ই-গেট) ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের জন্য ৪ হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা ব্যয় হবে। কিন্তু ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় কিছুটা পেছাতে পারে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম।

এই অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ শিহাব উদ্দিন খান জাগো নিউজকে বলেন, আমরা ডিসেম্বরের মধ্যে ই-পাসপোর্ট তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছি। তবে কাজটা শুরু করা সরকারের বাজেটের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। বাজেট পেতে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। এটা একটি বড় ধরনের কাজ, চার হাজার কোটি টাকার কাজ। বর্তমান অর্থবছরের বাজেট জুনে হয়। সরকার যেহেতু বাজেটে ই-পাসপোর্টের বরাদ্দ রাখেনি, তাই এখন থোক বরাদ্দ হিসেবে আমাদের টাকা দিচ্ছে। পরবর্তীতে বাকি টাকা পাওয়া যাবে।

তিনি বলেন, ডিসেম্বরে যদি না দিতে পারি তাহলে আগামী বছরের জানুয়ারির মধ্যে দিতে পারবো বলে আশা করছি।

অধিদফতর সূত্র জানায়, শুরুতে ২০ লাখ ই-পাসপোর্ট জার্মানি থেকে প্রিন্ট করিয়ে সরবরাহ করা হবে। এরপর আরও ২ কোটি ৮০ লাখ ই-পাসপোর্ট বাংলাদেশে প্রিন্ট করা হবে। সেজন্য রাজধানীর উত্তরায় কারখানা স্থাপন করা হবে। পরে ওই কারখানা থেকে ই-পাসপোর্ট ছাপানো অব্যাহত রাখা হবে।

অপরদিকে জানা গেছে, নির্ধারিত সময়ের (ডিসেম্বর) মাত্র তিন মাস বাকি থাকলেও ই-পাসপোর্ট প্রদানের ফি, দেশের মানুষের কাছে ডেলিভারির সময়কাল ইত্যাদি এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি।

তবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ই-পাসপোর্ট পৌঁছানোর ব্যাপারে এখনো আশাবাদী ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাসুদ রেজওয়ান। তিনি বলেন, এখনো কয়েক মাস বাকি। ইনিশিয়াল মানিটা পেলে আমরা কাজ শুরু করতে পারবো। এ ছাড়া অন্যান্য কাজ চলছে। এখনো ডিসেম্বরে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালুর বিষয়ে আমরা আশাবাদী।

ই-পাসপোর্ট একটি বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট, যাতে একটি এমবেডেড ইলেকট্রনিক মাইক্রোপ্রসেসর চিপ থাকবে। এই মাইক্রোপ্রসেসর চিপে পাসপোর্টধারীর বায়োগ্রাফিক ও বায়োমেট্রিক (ছবি, আঙুলের ছাপ ও চোখের মণি) তথ্য সংরক্ষণ করা হবে, যাতে পাসপোর্টধারীর পরিচয়ের সত্যতা থাকে। ই-পাসপোর্ট চালু হলে জালিয়াতি ও পরিচয় গোপন করা কঠিন হবে বলে দাবি ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের।

ই-পাসপোর্টে ৩৮ ধরনের নিরাপত্তা ফিচার থাকবে। বর্তমানে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) ডেটাবেইসে যেসব তথ্য আছে, তা ই-পাসপোর্টে স্থানান্তর করা হবে। ই-পাসপোর্টের মেয়াদ হবে ১০ বছর।

সূত্র জানায়, ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের পুরো টাকাই বাংলাদেশ সরকার বহন করবে। বর্তমানের পাসপোর্টে সরকারের যে টাকা ব্যয় হয়, সেই অনুপাতে ই-পাসপোর্ট চালু হলে পাসপোর্টপ্রতি প্রায় ৩ ডলার করে সাশ্রয় হবে। তবে যেহেতু এই পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর। তাই ফি বাড়িয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত আসতে পারে শিগগিরই।

অনেকেই শঙ্কায় আছেন, ই-পাসপোর্ট চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এমআরপি বাতিল হবে কি না। এ বিষয়ে অধিদফতর জানায়, কারও পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে তাকে এমআরপির বদলে ই-পাসপোর্ট নিতে হবে। তবে যাদের এমআরপি রয়েছে সেটিও গ্রহণযোগ্য হবে।

এআর/জেডএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :