খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, দুশ্চিন্তা পরিচ্ছন্নতা নিয়ে

মুরাদ হুসাইন
মুরাদ হুসাইন মুরাদ হুসাইন , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:১৫ এএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২১
নোংরা ও ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ে থাকে বেশিরভাগ বিদ্যালয়ের শৌচাগার

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে টানা ১০ মাস বন্ধ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এতে পিছিয়ে পড়ছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবি তুলেছেন অভিভাবক ও শিক্ষকদের বিভিন্ন সংগঠন। তাদের দাবি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফেব্রুয়ারি থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে হবে।

রোববার (১৭ জানুয়ারি) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) সূত্রে জানা গেছে, আসছে ফেব্রুয়ারি থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে। তবে শুরুতে সব প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের আংশিক উপস্থিতিতে ক্লাস নেয়া হবে। এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। কারণ, করোনার কারণে বন্ধ ঘোষণার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আর সেভাবে পরিষ্কার করা হয়নি। এছাড়া খুলে দেয়ার পর নিয়মিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করা নিয়েও শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়ে বেসরকারি বিদ্যালয়গুলোর অবস্থা কিছুটা ভালো হলেও সরকারি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অবস্থা খুবই খারাপ। বেশিরভাগ বিদ্যালয়ে পরিচ্ছন্নতাকর্মী নেই। ফলে এই পরিস্থিতিতে বিদ্যালয় খুললে শ্রেণিকক্ষ, শৌচাগার ও চারপাশের পরিবেশ নিয়মিত পরিচ্ছন্ন কাজ কীভাবে হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

jagonews24

অধিকাংশ বিদ্যালয়ে স্থায়ী পরিচ্ছন্নতাকর্মী নেই

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সারাদেশে ৬৫ হাজারের বেশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৫ হাজারের বেশি এমপিওভুক্ত ও ৪০০টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। বেশিরভাগ বিদ্যালয়ে স্থায়ী পরিচ্ছন্নতাকর্মী নেই। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শৌচাগারে নিয়মিত পানি ও হাত ধোয়ার সাবান পর্যন্ত থাকে না। নোংরা ও ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ে থাকছে শৌচাগার। এমন পরিস্থিতিতে কীভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা সম্ভব?

শিক্ষকরা বলছেন, বিদ্যালয় খোলার পরে মিড-ডে মিল চালু হলে সেখান থেকে যাতে করোনাভাইরাস সংক্রমণ না ছড়ায়, সেটা গুরুত্ব দিতে হবে। অনেক সময় বিদ্যালয়ে সাবান না থাকায় শুধু পানি দিয়ে কোনো রকমে মিড ডে মিলের (দুপুরের খাবার) থালা-বাসন ধোয়া হয়। সেখান থেকে করোনা সংক্রমণ ছড়াতে বলে মনে করেন তারা।

বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. শামসুদ্দিন মাসুদ জাগো নিউজকে বলেন, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষাব্যবস্থায় একধরনের ভাটা পড়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে বর্তমানে খুলে দেয়া যেতে পারে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চারজন সহকারী ও একজন প্রধান শিক্ষকের পদ থাকলেও মামলাসহ নানা জটিলতার কারণে অনেক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে। এখনো কোনো পরিচ্ছন্নতাকর্মী নেই বলে নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করা কঠিন হয়ে পড়বে।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন জেলার বেশকিছু বিদ্যালয়ে অস্থায়ীভাবে দফতর কাম প্রহরী নিয়োগ দেয়া হলেও, তারা দীর্ঘদিন ধরে স্থায়ীকরণের দাবিতে আন্দোলন করছেন। ফলে অনেকেই দায়িত্ব নিয়ে কাজ করছেন না। নিয়মিত বিদ্যালয়েও উপস্থিত থাকছেন না তারা। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে স্থায়ীভাবে দফতরি নিয়োগের দাবি জানান তিনি।

বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক অনলাইন সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহম্মদ জাগো নিউজকে বলেন, বর্তমানে বিদ্যালয় খুলে দেয়া জরুরি হয়ে পড়লেও করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগের প্রথম ধাপে প্রাথমিকের শিক্ষকদের তালিকাভুক্ত করা হয়নি। শিক্ষকদের ভ্যাকসিন প্রদানের পর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলে দেয়া প্রয়োজন।

jagonews24

অনেক বিদ্যালয়ে শুধু পানি দিয়ে মিড ডে মিলের থালা-বাসন ধোয়া হয়

তিনি বলেন, শুধু বিদ্যালয় খুলে দিলেই হবে না, নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। সেজন্য নীতিমালা তৈরি করা হলেও বাস্তবায়ন করার কেউ নেই। প্রয়োজনে সব বিদ্যালয়ে অস্থায়ীভাবে পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। যেসব বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু রয়েছে, সেখানে যেন প্রতিদিন রান্না ও পরিবেশনের সব উপকরণ ভালোভাবে পরিষ্কার করা যায় সেদিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

রাজধানীর মিরপুরের-১ এর উপশহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক মারুফ হোসেন বলেন, ‘অনেক দিন ধরে স্কুল বন্ধ থাকায় আমার ছেলেটা পড়ালেখার প্রতি অমনোযোগী হয়ে পড়ছে। সে বাড়িতে থেকে পড়ালেখা করতে চায় না। তাই দ্রুত স্কুল খুলে দেয়া দরকার।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও গণসাক্ষরতা অভিযানে নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সময় হয়েছে। দেশের সবকিছু সচল হয়েছে, শিক্ষার্থী-অভিভাবকরাও স্কুল খুলে দেয়ার পক্ষে। দ্রুত সময়ের মধ্যে দেশের বিদ্যালয় খুলে দেয়া প্রয়োজন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি আমাদের এক জরিপে প্রায় ৯০ শতাংশ শিক্ষার্থী ও অভিভাবক স্কুল খুলে দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন। তবে খোলার পর কীভাবে নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা যায়, সরকারকে সে বিষয়ে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে।

jagonews24

বিদ্যালয়ের চারপাশের পরিবেশ নিয়মিত পরিচ্ছন্ন রাখা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাসিবুল আলম জাগো নিউজকে বলেন, অনেক বিদ্যালয়ে পরিচ্ছন্নতাকর্মী সঙ্কট রয়েছে। চাইলে আমরা সেখানে নিয়োগ দিতে পারি না। এ জন্য বড় একটি প্রক্রিয়া ও অনুমোদন প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, নতুন করে বিদ্যালয় খোলার আগে সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে পুনরায় পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে। নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে অস্থায়ীভাবে হলেও কিছু কর্মী নিয়োগের চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

এদিকে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও পরিচ্ছন্নতাকর্মী সঙ্কট রয়েছে। ফলে বিদ্যালয় খোলার পর এসব বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান পরিচালনা কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করেন বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম রনি।

তিনি জাগো নিউজকে বলেন, অধিকাংশ এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিচ্ছন্নতাকর্মী নেই। ক্লাস কার্যক্রম শুরুর পর কীভাবে পরিষ্কার কাজ করবে তা নিয়ে সঙ্কট তৈরি হয়েছে। প্রতিটি বিদ্যালয়ে একজন করে দফতরি বা পরিচ্ছন্নতাকর্মী পদ সৃজনের দাবি জানান তিনি।

শিক্ষানীতি-২০১০ প্রণয়ন কমিটির সদস্য সচিব ও জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমির (নায়েম) সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক শেখ ইকরামুল কবির জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে ভিন্ন মাধ্যমে ক্লাস পরিচালনা করলে শহরের শিক্ষার্থীরা সুবিধা পেলেও মফস্বলের শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে পড়ছে। এ কারণে দ্রুত সময়ের মধ্যে স্কুল খুলে দেয়া প্রয়োজন।

jagonews24

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান পরিচালনা কঠিন হয়ে দাঁড়াতে পারে

তিনি আরও বলেন, যেহেতু আমাদের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিচ্ছন্নতাকর্মী বা দফতরি নেই, এ কারণে অভিভাবক ও এলাকার জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা নেয়ার পরামর্শ দেন অধ্যাপক ইকরামুল কবির।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, সরকারের ওপর সবকিছু নির্ভর করে থাকলে চলবে না, কিছু কাজ ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমেও করতে হবে।

তিনি বলেন, স্কুল তহবিলে একধরনের ফান্ড দেয়া হবে। তার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের নিয়ে শিক্ষকরা তাদের স্কুলে নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কাজ করবে। এতে শিক্ষার্থীরা নিজেদের কাজ কীভাবে করা যায় তা শিখতে পারবে বলেও জানান মাহবুব হোসেন।

এমএইচএম/এমএসএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

১১,৩৫,৮১,৭১৯
আক্রান্ত

২৫,১৯,৭৯৮
মৃত

৮,৯১,৫২,৪৮৬
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ৫,৪৪,৯৫৪ ৮,৩৮৪ ৪,৯৪,৭৫৫
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২,৯০,৫২,২৬২ ৫,২০,৭৮৫ ১,৯৪,৩৫,৪৫৩
ভারত ১,১০,৬৩,৪৯১ ১,৫৬,৮৬১ ১,০৭,৫০,৬৮০
ব্রাজিল ১,০৩,৯৩,৮৮৬ ২,৫১,৬৬১ ৯৩,২৩,৬৯৬
রাশিয়া ৪২,১২,১০০ ৮৪,৮৭৬ ৩৭,৬৭,৬৬৪
যুক্তরাজ্য ৪১,৫৪,৫৬২ ১,২২,০৭০ ২৭,২৭,৪৬৬
ফ্রান্স ৩৬,৮৬,৮১৩ ৮৫,৫৮২ ২,৫৪,৮৬৮
স্পেন ৩১,৮০,২১২ ৬৮,৮১৩ ২৬,১৭,২৩৯
ইতালি ২৮,৬৮,৪৩৫ ৯৬,৯৭৪ ২৩,৭৫,৩১৮
১০ তুরস্ক ২৬,৭৪,৭৬৬ ২৮,৩৫৮ ২৫,৪৬,৫০৩
১১ জার্মানি ২৪,২৬,৮১৯ ৭০,০০৩ ২২,২৬,৫০০
১২ কলম্বিয়া ২২,৪১,২২৫ ৫৯,৩৯৬ ২১,৩৮,১৯৩
১৩ আর্জেন্টিনা ২০,৯৩,৬৪৫ ৫১,৭৯৫ ১৮,৮৬,৭৩২
১৪ মেক্সিকো ২০,৬৯,৩৭০ ১,৮৩,৬৯২ ১৬,২০,০০৮
১৫ পোল্যান্ড ১৬,৭৩,২৫২ ৪৩,০৯৪ ১৩,৯৭,৩৪২
১৬ ইরান ১৬,০৭,০৮১ ৫৯,৮৩০ ১৩,৭২,৩০৮
১৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫,০৯,১২৪ ৪৯,৬৬৭ ১৪,২৪,৪০১
১৮ ইউক্রেন ১৩,৩৩,৮৪৪ ২৫,৭৪২ ১১,৬৩,৫৫৫
১৯ ইন্দোনেশিয়া ১৩,১৪,৬৩৪ ৩৫,৫১৮ ১১,২১,৪১১
২০ পেরু ১৩,০৮,৭২২ ৪৫,৯০৩ ১২,১০,৭৪৯
২১ চেক প্রজাতন্ত্র ১২,১২,৭৮০ ১৯,৯৯৯ ১০,৫৫,০৮৩
২২ নেদারল্যান্ডস ১০,৭৩,৯৭১ ১৫,৪৩৮ ২৫০
২৩ কানাডা ৮,৫৮,২২০ ২১,৮৬৫ ৮,০৬,০১৭
২৪ চিলি ৮,১২,৩৪৪ ২০,৩১০ ৭,৭০,১৯০
২৫ পর্তুগাল ৮,০১,৭৪৬ ১৬,১৮৫ ৭,১১,৭১৩
২৬ রোমানিয়া ৭,৯১,৯৭১ ২০,১৬৭ ৭,৩৩,৬১৬
২৭ ইসরায়েল ৭,৬৯,৯৭১ ৫,৬৯৪ ৭,২৩,৮৩২
২৮ বেলজিয়াম ৭,৬৩,৮৮৫ ২২,০০৬ ৫২,০৯১
২৯ ইরাক ৬,৮৪,৩৬২ ১৩,৩৫১ ৬,২৭,৭১৮
৩০ সুইডেন ৬,৫২,৪৬৫ ১২,৭৯৮ ৪,৯৭১
৩১ পাকিস্তান ৫,৭৭,৪৮২ ১২,৮০৪ ৫,৪২,৩৯৩
৩২ ফিলিপাইন ৫,৬৮,৬৮০ ১২,২০১ ৫,২৪,০৪২
৩৩ সুইজারল্যান্ড ৫,৫৩,৮৬৭ ৯,৯৫৪ ৫,০৫,৬৬৬
৩৪ মরক্কো ৪,৮২,৫১৪ ৮,৫৯৮ ৪,৬৭,৫৪১
৩৫ অস্ট্রিয়া ৪,৫২,৭৬৭ ৮,৪৯৩ ৪,২৫,৭৮৬
৩৬ সার্বিয়া ৪,৪৯,৯০১ ৪,৩৯৮ ৪,০০,৩৪৭
৩৭ জাপান ৪,২৮,৫৫৩ ৭,৬৪৭ ৪,০৫,২৫৭
৩৮ হাঙ্গেরি ৪,১৯,১৮২ ১৪,৭৯৫ ৩,১৭,৮৯৯
৩৯ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৩,৮১,৬৬২ ১,১৮২ ৩,৭৫,০৫৯
৪০ জর্ডান ৩,৮০,২৬৮ ৪,৬২৭ ৩,৪২,৬০০
৪১ সৌদি আরব ৩,৭৬,৩৭৭ ৬,৪৮০ ৩,৬৭,৩২৩
৪২ লেবানন ৩,৬৬,৩১৯ ৪,৫৬০ ২,৮১,১৯৪
৪৩ পানামা ৩,৩৯,৩৮৩ ৫,৮১০ ৩,২৪,১৫৬
৪৪ স্লোভাকিয়া ৩,০০,৭৭৫ ৬,৮৫৯ ২,৫৫,৩০০
৪৫ মালয়েশিয়া ২,৯৩,৬৯৮ ১,১০০ ২,৬৩,৭৬১
৪৬ বেলারুশ ২,৮২,৮৯৮ ১,৯৪৮ ২,৭৩,১৪৬
৪৭ ইকুয়েডর ২,৮১,১৬৯ ১৫,৬৬৯ ২,৩৮,৮১৭
৪৮ নেপাল ২,৭৩,৮৭২ ২,৬৮৫ ২,৭০,২২৩
৪৯ জর্জিয়া ২,৭০,১৩৭ ৩,৪৮৫ ২,৬৪,০৪৭
৫০ বলিভিয়া ২,৪৬,৮২২ ১১,৫৭৭ ১,৯১,০৮১
৫১ বুলগেরিয়া ২,৪৩,৯৪৬ ১০,০৭৯ ২,০২,৬৯৪
৫২ ক্রোয়েশিয়া ২,৪১,৫৯২ ৫,৪৮৯ ২,৩৩,১৭০
৫৩ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ২,৩৭,৬২৯ ৩,০৭৫ ১,৮৮,৩০০
৫৪ আজারবাইজান ২,৩৩,৭৭০ ৩,২০৯ ২,২৮,২৯৯
৫৫ তিউনিশিয়া ২,৩১,২৯৮ ৭,৯১১ ১,৯৫,৭৩৯
৫৬ আয়ারল্যান্ড ২,১৭,৪৭৮ ৪,২৭১ ২৩,৩৬৪
৫৭ কাজাখস্তান ২,১১,২১২ ২,৫৪০ ১,৯৫,১২১
৫৮ ডেনমার্ক ২,০৯,৬৮২ ২,৩৫১ ২,০১,১৫৪
৫৯ কোস্টারিকা ২,০৩,৯১৪ ২,৭৯৬ ১,৭৫,৮৮৩
৬০ লিথুনিয়া ১,৯৬,৬৯০ ৩,২২৫ ১,৮২,২৬৩
৬১ কুয়েত ১,৮৮,০২৪ ১,০৬৭ ১,৭৬,০১৯
৬২ স্লোভেনিয়া ১,৮৭,৭৬২ ৩,৮০৯ ১,৭১,৯০৫
৬৩ গ্রীস ১,৮৬,৪৬৯ ৬,৪১০ ১,৬৫,০৯৫
৬৪ মলদোভা ১,৮১,৮৮৬ ৩,৮৭১ ১,৬৪,৩২১
৬৫ মিসর ১,৮০,৬৪০ ১০,৫৪১ ১,৩৯,৪৯৪
৬৬ ফিলিস্তিন ১,৭৯,২৯৩ ২,০০৮ ১,৬৪,৫৫৭
৬৭ গুয়াতেমালা ১,৭৩,১৪২ ৬,৩৩৪ ১,৬০,০৪৭
৬৮ আর্মেনিয়া ১,৭১,৫১০ ৩,১৮৩ ১,৬৩,১৬৫
৬৯ হন্ডুরাস ১,৬৮,২৪৩ ৪,০৯৯ ৬৫,৪২৫
৭০ কাতার ১,৬২,২৬৮ ২৫৭ ১,৫২,৩২৭
৭১ প্যারাগুয়ে ১,৫৬,১৮৯ ৩,১৩৫ ১,৩০,৫৩১
৭২ ইথিওপিয়া ১,৫৬,১১২ ২,৩২১ ১,৩৩,৬০৭
৭৩ নাইজেরিয়া ১,৫৪,৪৭৬ ১,৮৯১ ১,৩১,৬৯৯
৭৪ মায়ানমার ১,৪১,৮৪১ ৩,১৯৮ ১,৩১,৪১৭
৭৫ ওমান ১,৪০,৫৮৮ ১,৫৬২ ১,৩১,৬৮৪
৭৬ ভেনেজুয়েলা ১,৩৭,৮৭১ ১,৩৩৪ ১,২৯,৯২৭
৭৭ লিবিয়া ১,৩১,৮৩৩ ২,১৫৬ ১,১৮,৭৯১
৭৮ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ১,৩০,৫১০ ৫,০৬২ ১,১৪,৯৯৫
৭৯ বাহরাইন ১,২০,৪৯৫ ৪৩৯ ১,১৩,১৩২
৮০ আলজেরিয়া ১,১২,৬২২ ২,৯৭৩ ৭৭,৬৮৩
৮১ কেনিয়া ১,০৫,০৫৭ ১,৮৪৭ ৮৬,৪৯৭
৮২ আলবেনিয়া ১,০৪,৩১৩ ১,৭৩৬ ৬৭,১৫৮
৮৩ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১,০১,২১৪ ৩,১১১ ৯০,৬৮৫
৮৪ চীন ৮৯,৮৭৭ ৪,৬৩৬ ৮৪,৯৯৭
৮৫ দক্ষিণ কোরিয়া ৮৮,৯২২ ১,৫৮৫ ৭৯,৮৮০
৮৬ কিরগিজস্তান ৮৬,১৪২ ১,৪৯৮ ৮৩,০৬১
৮৭ লাটভিয়া ৮৪,২৫৮ ১,৫৯৩ ৭৩,২৮৫
৮৮ শ্রীলংকা ৮১,৯৩৩ ৪৫৯ ৭৬,৯৬১
৮৯ ঘানা ৮১,৬৭৩ ৫৮৮ ৭৪,৬৮১
৯০ উজবেকিস্তান ৭৯,৮০৪ ৬২২ ৭৮,৩৩৩
৯১ জাম্বিয়া ৭৭,১৭১ ১,০৫৯ ৭০,৮০০
৯২ মন্টিনিগ্রো ৭৪,১৮৩ ৯৮৭ ৬৪,৭৩৭
৯৩ নরওয়ে ৭০,০৪০ ৬২০ ৬৩,৭৮৩
৯৪ এস্তোনিয়া ৬১,৬২৭ ৫৬৭ ৪৭,৪৬০
৯৫ সিঙ্গাপুর ৫৯,৯১৩ ২৯ ৫৯,৭৮৫
৯৬ এল সালভাদর ৫৯,৮৬৬ ১,৮৩২ ৫৫,৩১২
৯৭ মোজাম্বিক ৫৭,৫৯৭ ৬১৩ ৩৮,৬৭৬
৯৮ আফগানিস্তান ৫৫,৬৯৬ ২,৪৪২ ৪৯,২৮১
৯৯ উরুগুয়ে ৫৫,৬৯৫ ৫৯৫ ৪৮,৪৯৬
১০০ ফিনল্যাণ্ড ৫৫,৬৮৭ ৭৪০ ৪০,০০০
১০১ লুক্সেমবার্গ ৫৪,৮৭১ ৬৩৪ ৫১,২৯০
১০২ কিউবা ৪৭,৫৬৬ ৩১২ ৪২,৮০৯
১০৩ উগান্ডা ৪০,৩০০ ৩৩৪ ১৪,৬১৬
১০৪ নামিবিয়া ৩৮,২০৬ ৪১৬ ৩৫,৭৮৮
১০৫ জিম্বাবুয়ে ৩৫,৯৯৪ ১,৪৫৮ ৩২,৪৫৫
১০৬ ক্যামেরুন ৩৫,৭১৪ ৫৫১ ৩২,৫৯৪
১০৭ সাইপ্রাস ৩৩,৯০৯ ২৩১ ২,০৫৭
১০৮ সেনেগাল ৩৩,৭৪১ ৮৫২ ২৮,১১২
১০৯ আইভরি কোস্ট ৩২,২৯৫ ১৮৮ ৩১,২২৪
১১০ মালাউই ৩১,৫০২ ১,০৩৩ ১৮,০৪৫
১১১ অস্ট্রেলিয়া ২৮,৯৫৭ ৯০৯ ২৬,১৬৪
১১২ বতসোয়ানা ২৮,৩৭১ ৩১০ ২৩,২৪৪
১১৩ সুদান ২৮,২৭০ ১,৮৭৮ ২২,৮৪৪
১১৪ থাইল্যান্ড ২৫,৮০৯ ৮৩ ২৪,৯৫২
১১৫ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ২৫,১৪৪ ৭০০ ১৬,১৩৫
১১৬ জ্যামাইকা ২২,২৬৭ ৪১০ ১৩,১৭৩
১১৭ মালটা ২১,৭২৪ ৩১১ ১৮,৯০৫
১১৮ অ্যাঙ্গোলা ২০,৬৯৫ ৫০২ ১৯,২৩৮
১১৯ মাদাগাস্কার ১৯,৮৩১ ২৯৭ ১৯,২৯৬
১২০ মালদ্বীপ ১৯,৩৪৬ ৬০ ১৬,৮৩৮
১২১ রুয়ান্ডা ১৮,৫৫৩ ২৫৮ ১৭,২৭৯
১২২ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৮,৩৭৯ ১৩৯ ৪,৮৪২
১২৩ মৌরিতানিয়া ১৭,১৭৯ ৪৩৯ ১৬,৫২৪
১২৪ ইসওয়াতিনি ১৬,৯৪৬ ৬৫০ ১৪,০৩১
১২৫ মায়োত্তে ১৬,৮৬১ ১০২ ২,৯৬৪
১২৬ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ১৬,৫২৯ ৮৩ ৯,৯৯৫
১২৭ গিনি ১৫,৭৮৯ ৮৮ ১৪,৮২১
১২৮ সিরিয়া ১৫,৪০৫ ১,০১৪ ৯,৫৫৩
১২৯ কেপ ভার্দে ১৫,২০১ ১৪৫ ১৪,৬৯৪
১৩০ গ্যাবন ১৪,২৩৪ ৮০ ১২,৮৪৬
১৩১ তাজিকিস্তান ১৩,৩০৮ ৯০ ১৩,২১৮
১৩২ রিইউনিয়ন ১২,৪১৬ ৫২ ১১,২৭০
১৩৩ হাইতি ১২,৩৯০ ২৪৮ ৯,৬১১
১৩৪ বেলিজ ১২,২৮০ ৩১৫ ১১,৮২৪
১৩৫ বুর্কিনা ফাঁসো ১১,৯১৪ ১৪২ ১১,৩৪০
১৩৬ হংকং ১০,৯২৭ ১৯৮ ১০,৪৭৪
১৩৭ এনডোরা ১০,৭৯৯ ১১০ ১০,৩৫৬
১৩৮ লেসোথো ১০,৪৬৮ ২৯২ ৩,৫৭৭
১৩৯ গুয়াদেলৌপ ৯,৭৪৬ ১৫৯ ২,২৪২
১৪০ সুরিনাম ৮,৯০১ ১৭০ ৮,৩৮৫
১৪১ কঙ্গো ৮,৮২০ ১২৮ ৭,০১৯
১৪২ বাহামা ৮,৪৯৬ ১৭৯ ৭,২৭৪
১৪৩ গায়ানা ৮,৪৮৫ ১৯৫ ৭,৮৯০
১৪৪ মালি ৮,৩৪৯ ৩৪৯ ৬,৩৫২
১৪৫ আরুবা ৭,৮০৪ ৭১ ৭,৪৯৪
১৪৬ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৭,৬৯৭ ১৩৯ ৭,৪৩৬
১৪৭ দক্ষিণ সুদান ৭,৩৪৯ ৮৭ ৪,১০৭
১৪৮ মার্টিনিক ৬,৬৮৭ ৪৫ ৯৮
১৪৯ সোমালিয়া ৬,৬৮৭ ২২৩ ৩,৭৮৪
১৫০ টোগো ৬,৬৩৭ ৮২ ৫,৪৮৯
১৫১ নিকারাগুয়া ৬,৪৪৫ ১৭৩ ৪,২২৫
১৫২ জিবুতি ৬,০৬০ ৬৩ ৫,৮৯২
১৫৩ আইসল্যান্ড ৬,০৪৯ ২৯ ৬,০০৫
১৫৪ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৫,৮৫২ ৯১ ৫,৫৫৯
১৫৫ বেনিন ৫,৪৩৪ ৭০ ৪,২৪৮
১৫৬ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৫,০০৪ ৬৩ ৪,৯২০
১৫৭ নাইজার ৪,৭৪০ ১৭২ ৪,২৫০
১৫৮ কিউরাসাও ৪,৭০৮ ২২ ৪,৬২৪
১৫৯ গাম্বিয়া ৪,৬৭১ ১৪৭ ৪,০৮৯
১৬০ জিব্রাল্টার ৪,২৩৫ ৯২ ৪,১১৯
১৬১ চ্যানেল আইল্যান্ড ৪,০৩২ ৮৬ ৩,৮৯৩
১৬২ চাদ ৩,৯৩৪ ১৩৭ ৩,৪২০
১৬৩ সিয়েরা লিওন ৩,৮৮৪ ৭৯ ২,৬১২
১৬৪ সান ম্যারিনো ৩,৬২১ ৭৩ ৩,২০১
১৬৫ কমোরস ৩,৫৫২ ১৪৪ ৩,২০৩
১৬৬ গিনি বিসাউ ৩,২১৫ ৪৮ ২,৫৮৭
১৬৭ সেন্ট লুসিয়া ৩,১৪৯ ৩৪ ২,৮৭৯
১৬৮ বার্বাডোস ২,৯৪৯ ৩২ ২,১৭১
১৬৯ মঙ্গোলিয়া ২,৮৩১ ২,১৫০
১৭০ ইরিত্রিয়া ২,৮২৬ ২,২২৫
১৭১ সিসিলি ২,৫৬২ ১১ ২,০৪৮
১৭২ লিচেনস্টেইন ২,৫৫৮ ৫৪ ২,৪৮৪
১৭৩ ইয়েমেন ২,৪৩৬ ৬৬০ ১,৫৮০
১৭৪ ভিয়েতনাম ২,৪২১ ৩৫ ১,৮০৪
১৭৫ নিউজিল্যান্ড ২,৩৭১ ২৬ ২,২৭৮
১৭৬ বুরুন্ডি ২,১০৬ ৭৭৩
১৭৭ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২,০৭০ ১৪ ১,৮১৯
১৭৮ সিন্ট মার্টেন ২,০৫১ ২৭ ১,৯৮৮
১৭৯ লাইবেরিয়া ২,০০৯ ৮৫ ১,৮৮৪
১৮০ মোনাকো ১,৯৩২ ২৩ ১,৬৯০
১৮১ সেন্ট মার্টিন ১,৫৪৪ ১২ ১,৩৯৯
১৮২ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ১,৫১৯ ৮৪৮
১৮৩ পাপুয়া নিউ গিনি ১,২২৮ ১২ ৮৪৬
১৮৪ তাইওয়ান ৯৫১ ৯০৬
১৮৫ ভুটান ৮৬৭ ৮৬২
১৮৬ কম্বোডিয়া ৭৪১ ৪৭৭
১৮৭ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
১৮৮ বারমুডা ৭০৫ ১২ ৬৮২
১৮৯ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৭০১ ১৪ ২৭১
১৯০ ফারে আইল্যান্ড ৬৫৮ ৬৫৬
১৯১ মরিশাস ৬১০ ১০ ৫৭১
১৯২ সেন্ট বারথেলিমি ৫৭৩ ৪৬২
১৯৩ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৯৪ আইল অফ ম্যান ৪৭৫ ২৫ ৪৫১
১৯৫ কেম্যান আইল্যান্ড ৪৩৮ ৪০৫
১৯৬ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ৪২৯ ৪০২
১৯৭ ব্রুনাই ১৮৫ ১৭৮
১৯৮ গ্রেনাডা ১৪৮ ১৪৭
১৯৯ ডোমিনিকা ১৪২ ১২৭
২০০ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ১১৪ ৯৫
২০১ পূর্ব তিমুর ১১০ ৮৯
২০২ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৫৭ ৫৫
২০৩ ফিজি ৫৭ ৫৪
২০৪ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৫৪ ৪৬
২০৫ ম্যাকাও ৪৮ ৪৭
২০৬ লাওস ৪৫ ৪২
২০৭ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৪১ ৪০
২০৮ গ্রীনল্যাণ্ড ৩০ ৩০
২০৯ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ১৫
২১০ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ২৪ ১৬
২১১ মন্টসেরাট ২০ ১৩
২১২ এ্যাঙ্গুইলা ১৮ ১৮
২১৩ সলোমান আইল্যান্ড ১৮ ১৪
২১৪ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৫ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৬ ওয়ালিস ও ফুটুনা
২১৭ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৮ সামোয়া
২১৯ ভানুয়াতু
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]