আগামী বিপিএলেও নেই বরিশাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২৮ পিএম, ১৩ আগস্ট ২০১৮

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আগামী আসর কতটি দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে, তা নিয়ে এখনই আলোচনা শুরু হয়েছে। আর্থিক সমস্যার কারণে গত আসর থেকে বাদ দেয়া হয়েছিল বরিশাল বুলসকে। তারা এবার খেলতে পারবে কি পারবে না- সেটা নিয়েও চলছে আলোচনা। গুঞ্জন রয়েছে সাতটি না আটটি দল- তা নিয়েও।

তবে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক, মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান এবং বিপিএলের টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান জালাল ইউনুসের কথায় যেটা বোঝা গেলো, সেটা হচ্ছে- আগামী বিপিএলও অনুষ্ঠিত হচ্ছে সাত দল নিয়ে। আগামী আসরেও বরিশালকে রাখা হচ্ছে না বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

বিপিএলের গত আসরই আট দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আর্থিক সমস্যার কারণে গত আসর থেকে শেষ মুহূর্তে বাদ দেয়া হয় বরিশাল বুলসকে। সেই একই কারণে, এই আসরেও অন্তর্ভূক্ত করা হচ্ছে না বরিশালকে। সুতরাং, গতবারেরমত এবারও সাত দল নিয়েই আয়োজন হবে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর।

বিপিএল নিয়ে টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস আজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘বরিশাল বুলস এবারও মনে হয় না থাকবে। আগের বছরের মতো সাতটা দলই থাকবে। আমাদের হাতে সময় খুব কম। একটা দল বাড়ালে ম্যাচ অনেকগুলো বেড়ে যাবে। আগামী বিপিএল শেষ হতে না হতেই ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফরে রওনা দেবে বাংলাদেশ দল। নতুন একটি দল বাড়ালে টুর্নামেন্ট লম্বা হবে। কাজেই বরিশালের সম্ভাবনা নেই।’

২০১৭ সালে বিপিএলের পঞ্চম আসরে খেলেছিলো- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস, ঢাকা ডায়নামাইটস, খুলনা টাইটানস, রংপুর রাইডার্স, সিলেট সিক্সার্স, রাজশাহী কিংস ও চিটাগং ভাইকিংস। সিলেট সিক্সার্স নতুন মালিকানা এবং নতুন নাম নিয়ে গত আসরে অংশ নিয়েছিল। ঢাকাকে হারিয়ে ওই আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মাশরাফি বিন মর্তুজার রংপুর রাইডার্স।

বিপিএলের আগামী আসর নির্ধারিত সময় নভেম্বরে শুরু হচ্ছে না- এটা জানা গিয়েছিল আরও আগেই। এবারও একই কথা জানালেন জালাল ইউনুস। জানুয়ারির ৫ তারিখ শুরু হবে পরবর্তী আসর।

জালাল ইউনুস বলেন, ‘যেটি আমরা ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছি যে, বিপিএল ৫ই জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে। সেই তারিখটিই থাকছে। এখন আমাদের আর কিছু করার নেই। আপনারা জানেন যে, নিউজিল্যান্ডে যাবে দল। এর আগে কোন স্লট নেই। এর মধ্যে হয়তো আপনারা জানেন যে, নভেম্বর থেকেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হবে। ঠিক কবে নির্বাচন হবে তার সঠিক তারিখও আমরা জানি না। এই কারণে একটি সেফ সাইড চিন্তা করে আমরা ৫ই জানুয়ারি ঠিক করেছি। একটা অসুবিধা হতে পারে যে আমরা অনেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারকে পাচ্ছি না। তাদের অনেকের ব্যস্ত সূচি থাকতে পারে। তবে এর মধ্যেই আমাদের মানিয়ে নিতে হবে।’

আইএইচএস/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]