ব্যাটিংয়ের রাজা কোহলি, বোলিংয়ে বুমরাহ-রাবাদা

শাহাদাৎ আহমেদ সাহাদ
শাহাদাৎ আহমেদ সাহাদ শাহাদাৎ আহমেদ সাহাদ , স্পোর্টস রিপোর্টার
প্রকাশিত: ০৫:২২ পিএম, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮

দেখতে দেখতে শেষ হয়ে এলো ২০১৮ সাল। বছরের শেষভাগে এসে জয়-পরাজয়ের হার কিংবা সাফল্য-ব্যর্থতার পরিসংখ্যানে সবার চেয়ে এগিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট দল। বছরজুড়ে নানান সাফল্যের পাশাপাশি দুই তৃতীয়াংশের বেশি ম্যাচ জিতেছে বিরাট কোহলির দল।

স্বাভাবিকভাবেই দলের সাফল্য এনে দিতে প্রয়োজন ব্যক্তিগত নৈপুণ্য। ব্যাট-বল হাতে ঠিক সেই কাজটিই করেছেন বিরাট কোহলি, শিখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, জাসপ্রিত বুমরাহ, কুলদ্বীপ যাদভরা। চলতি বছরে ভারতের অভাবনীয় সাফল্যের মূল কারিগর তারাই

শুধু তাই নয় ২০১৮ সালে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক কিংবা উইকেটশিকারীর তালিকাতেও জয়জয়কার ভারতীয় ক্রিকেটারদেরই। বছরের সেরা পাঁচ রান স্কোরারের মধ্যে তিনজনই ভারতের, সর্বোচ্চ উইকেটশিকারীদের তালিকায় ভারতের রয়েছেন দুইজন। বলা বাহুল্য উভয়দিকেই শীর্ষস্থানে রয়েছেন ভারতের দুই ক্রিকেটার বিরাট কোহলি এবং জাসপ্রিত বুমরাহ।

ঘরে বাঘ, বিদেশে বেড়াল। ভারতের সঙ্গে এই প্রবাদটা একদম আঠার মতো জুড়ে গিয়েছিল। সমালোচকরা সুযোগ পেলে তো বলবেই! ২০১৮ সালে এই সমালোচকদের একেবারে দাঁতভাঙা জবাব দিয়ে দিয়েছে ভারত। ঘরে আর ঘরের বাইরে, কোনো জায়গাতেই পিছিয়ে ছিল না বিরাট কোহলির দল। ব্যাট হাতে পিছিয়ে ছিলেন না কোহলি নিজেও।

বছর জুড়ে তিন ফরম্যাট মিলে কোহলি ম্যাচ খেলেছেন ৩৭টি, ব্যাটিং করেছেন ৪৭ ইনিংসে। ১১টি সেঞ্চুরি ও ৯টি হাফসেঞ্চুরিতে রান করেছেন ২৭৩৫। সর্বোচ্চ রানের ইনিংস অপরাজিত ১৬০, ব্যাটিং গড় ছিলো ৬৮.৩৭।

এখানে উল্লেখ্য, চলতি বছর কোহলি ব্যতীত আর কেউই তিন ফরম্যাট ২০০০ রানও করতে পারেননি। এছাড়াও ২০১৮ সালে তিন ফরম্যাট মিলে কমপক্ষে ১০০০ রান করাদের মধ্যে কোহলি ব্যতীত আর কেউই ৫০ গড়ে রান করতে পারেননি। এতেই স্পষ্ট চলতি বছরে ব্যাট হাতে একাই রাজত্ব করেছেন ভারতীয় অধিনায়ক।

তবে বোলিংয়ে জাসপ্রিত বুমরাহর রাজত্বে হানা দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার তরুণ পেসার কাগিসো রাবাদা। ২০১৮ সালে তিন ফরম্যাট মিলে দুজনেরই উইকেটসংখ্যা ৭৭টি। রাবাদা এগিয়ে রয়েছেন টেস্টে, বুমরাহ ছড়ি ঘুরিয়েছেন তিন ফরম্যাটেই।

চলতি মেলবোর্ন টেস্টের চতুর্থ দিন পর্যন্ত সাদা পোশাকের ক্রিকেটে এ বছরেই অভিষেক হওয়া বুমরাহর উইকেটসংখ্যা ৪৭টি। যা কি-না অভিষেক বছরে টেস্ট ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট নেয়ার রেকর্ড। তবে এবছর টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করেছেন রাবাদা, তার উইকেট ৫২টি।

তবে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে রাবাদার সমানেই রয়েছেন বুমরাহ। তবে বুমরাহর সামনে সুযোগ রয়েছে রাবাদাকে ছাড়িয়ে একাই শীর্ষে ওঠার। মেলবোর্ন টেস্টের পঞ্চম দিনে অস্ট্রেলিয়ার বাকি থাকা ২ উইকেটের অন্তত ১টি পেলেও বছরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হবেন তিনি।

২০১৮ সালে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকা

১/ বিরাট কোহলি (ভারত) : ৩৭ ম্যাচে ২৭৩৫ রান (টেস্ট ১৩২২, ওয়ানডে ১২০২ রান, টি-টোয়েন্টি ২১১ রান)
২/ জো রুট (ইংল্যান্ড) : ৪০ ম্যাচে ১৯৩৮ রান (টেস্ট ৯৪৮, ওয়ানডে ৯৪৬ রান, টি-টোয়েন্টি ৪৪ রান)
৩/ শিখর ধাওয়ান (ভারত) : ৪৩ ম্যাচে ১৮৮৭ রান (টেস্ট ৩০১ রান, ওয়ানডে ৮৯৭ রান, টি-টোয়েন্টি ৬৮৯ রান)
৪/ রোহিত শর্মা (ভারত) : ৪২ ম্যাচে ১৮০৪ রান (টেস্ট ১৮৪ রান, ওয়ানডে ১০৩০ রান, টি-টোয়েন্টি ৫৯০ রান)
৫/ জনি বেয়ারস্টো (ইংল্যান্ড) : ৩৭ ম্যাচে ১৭০১ রান (টেস্ট ৬০৯ রান, ওয়ানডে ১০২৫ রান, টি-টোয়েন্টি ৬৭ রান)

এছাড়া বছরজুড়ে তিন ফরম্যাট মিলে ১৬৫৭ রান (টেস্ট ৪৯০, ওয়ানডে ৭৭০, টি-টোয়েন্টি ৩৯৭) করে তালিকার আট নম্বরে রয়েছে বাংলাদেশের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম।

২০১৮ সালে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীদের তালিকা

১/ জাসপ্রিত বুমরাহ (ভারত) : ৩০ ম্যাচে ৭৭ উইকেট (টেস্ট ৪৭ উইকেট, ওয়ানডে ২২ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ৮ উইকেট)
কাগিসো রাবাদা (দক্ষিণ আফ্রিকা) : ২৬ ম্যাচে ৭৭ উইকেট (টেস্ট ৫২ উইকেট, ওয়ানডে ২৩ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ২ উইকেট)
২/ কুলদ্বীপ যাদভ (ভারত) : ৩১ ম্যাচে ৭৬ উইকেট (টেস্ট ১০ উইকেট, ওয়ানডে ৪৫ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ২১ উইকেট)
আদিল রশিদ (ইংল্যান্ড) : ৪১ ম্যাচে ৭৬ উইকেট (টেস্ট ২২ উইকেট, ওয়ানডে ৩৭ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ১৭ উইকেট)
৩/ রশিদ খান (আফগানিস্তান) : ২৯ ম্যাচে ৭২ উইকেট (টেস্ট ২ উইকেট, ওয়ানডে ৪৮ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ২২ উইকেট)
৪/ ট্রেন্ট বোল্ট (নিউজিল্যান্ড) : ২৭ ম্যাচে ৬৪ উইকেট (টেস্ট ৩১ উইকেট, ওয়ানডে ২২ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ১১ উইকেট)
৫/ মঈন আলি (ইংল্যান্ড) : ৩৪ ম্যাচে ৬২ উইকেট (টেস্ট ৩২ উইকেট, ওয়ানডে ২৯ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ১ উইকেট)
আকিলা ধনঞ্জয় (শ্রীলঙ্কা) : ২৮ ম্যাচে ৬২ উইকেট (টেস্ট ২৭ উইকেট, ওয়ানডে ২৮ উইকেট, টি-টোয়েন্টি ৭ উইকেট)

এছাড়া বছরজুড়ে তিন ফরম্যাট মিলে ৩৩ ম্যাচে ৬১ উইকেট (টেস্ট ৪১, ওয়ানডে ১৮, টি-টোয়েন্ট ২) নিয়ে এ তালিকার ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের তরুণ অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ।

*ভারত-অস্ট্রেলিয়া এবং শ্রীলঙ্কা-নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার চলমান বক্সিং ডে টেস্টের চতুর্থ দিন পর্যন্ত পরিসংখ্যান দেয়া হয়েছে এখানে।

এসএএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :