সিস্টেম জানা আছে কোচ ডোমিঙ্গোর

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৭ পিএম, ২১ আগস্ট ২০১৯

বাংলাদেশের কোচ হওয়ার জন্য সাক্ষাৎকার দিতে এসে বিসিবির কাছে নিজের লক্ষ্য এবং পরিকল্পনা নিয়ে প্রেজেন্টেশন দিয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকান রাসেল ডোমিঙ্গো। তার সেই প্রেজেন্টেশনে যারপরনাই সন্তুষ্ট বিসিবি। এবং শেষ পর্যন্ত সেই প্রেজেন্টেশনের কারণেই শেষ পর্যন্ত টাইগারদের কোচ নিয়োগ করা হলো ডোমিঙ্গোকে। পেছনে পড়ে গেলেন মাইক হেসন, মিকি আর্থারের মত হাই প্রোফাইলরা।

বিসিবির কাছে কি এমন প্রেজেন্টেশন দিয়েছিলেন ডোমিঙ্গো? যেটা বিসিবি কর্মকর্তাদের খুব মুগ্ধ করে দিয়েছিল? এই প্রেজেন্টেশন নিয়েই এখন তুমুল আলোচনা চলছে চারদিকে। বাংলাদেশে আসার পর প্রথম মিডিয়া সেশনেই সেই প্রেজেন্টেশন নিয়ে আলোচনা উঠলো। প্রশ্ন করা হলো প্রেজেন্টেশনে কি ছিলো তা নিয়ে।

বাংলাদেশে যে সেই প্রেজেন্টেশন নিয়ে তুমুল আলোচনা হচ্ছে, সেটা জানা হয়ে গেছে রাসেল ডোমিঙ্গোরও। সে কারণেই তিনি বলেন, ‘এটা নিয়ে আগ্রহটা খুবই ভালো। সবাইকেই দেখছি প্রেজেন্টেশনটা নিয়ে কথা বলছে। দেখুন, আমি যেহেতু বিভিন্ন পর্যায়ের দল নিয়ে কাজ করেছি এবং এ নিয়ে অভিজ্ঞতা আছে- যেমন : অনুর্ধ্ব-১৫, অনুর্ধ্ব-১৭, ঘরোয়া ক্রিকেট, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। সে কারণে আমি মনে করি, ক্রিকেট কোচিয়ের পুরো সিস্টেমটাই আমার জানা আছে।’

সেই সিস্টেমটা কি? কোথা থেকে কাজ করতে চান ডোমিঙ্গো? তিনি নিজেই জানিয়েছেন সেটা। ডোমিঙ্গো বলেন, ‘সিস্টেমটা মূলতঃ ধারণ করে জাতীয় দলকে। কারণ, জাতীয় দলই হচ্ছে আপনার সেরা। আমি শুধু চাই জাতীয় দলের একেবারে নিচের লেভেল থেকে কাজ করতে। আপনি যখন খেলার সুযোগ পাবেন, তখন আপনাকে এই সুযোগটা অবশ্যই নেয়া প্রয়োজন। এটা একজন দু’জনের ক্ষেত্রে নয়, আপনার প্রয়োজন পুরো একটি তরুণ দলকে গড়ে তোলা। তাহলেই আপনি শেষ পর্যন্ত ভালো করতে পারবেন। জাতীয় দল নিয়েই আমার প্রেজেন্টেশনটা ছিল। কিন্তু আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে, যারা জাতীয় দলের খুব কাছাকাছি রয়েছে, তাদেরকেও নার্সিং করা প্রয়োজন। তারাই একদিন বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দেবে।’

তবে কল্পনার ফানুস না উড়িয়ে ডোমিঙ্গো সবাইকে বাস্তববাদী হওয়ারও উপদেশ দিয়ে গেলেন। তিনি বলেন, ‘এখানে পৃথিবী বদলে দিতে আসিনি। উপমহাদেশে সব সময়ই ক্রিকেট খেলা হয়। আমরা আশা করি না বাংলাদেশ ক্রিকেট আমাদের সঙ্গে মানিয়ে নেবে। বরং আমাদের মানিয়ে নিতে হবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সঙ্গে। প্রক্রিয়া তৈরির উপায় আমাদের বের করতে হবে। এখানকার সংস্কৃতির সঙ্গে আমাদের মানিয়ে নিতে হবে।’

আইএইচএস/পিআর