যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১১:৪৯ এএম, ২৬ মে ২০১৯

দেখতে অনেকটা গোলাপের মতো মনোমুগ্ধকর ফুল নন্দিনী। ডগাসহ টিউলিপের মতো দেখায়। বিদেশে ৪৫ রঙের ফুল থাকলেও বাংলাদেশে ১৪ রংয়ের ফুল ফোটানো সম্ভব হয়েছে। অন্য ফুল যেখানে ফুলদানিতে রাখলে সর্বোচ্চ ২-৩ দিন পরই পাপড়ি ঝরে পড়ে; সেখানে নন্দিনী ফুলদানিতে ১০-১৫ দিন রাখলেও পাপড়ি ঝরে না। পানিতে সামান্য সুক্রোজ মিশিয়ে দিলে ২০-২৫ দিন সতেজ থাকে। এ ছাড়া নন্দিনী ফুলের কলি ফুলদানিতে রাখলে ধীরে ধীরে ফোটে এবং রঙিন হয়।

বিদেশে ‘সিলিয়েন্থাস’ নামে পরিচিত এ বিশেষ ফুলটির ব্যাপক অর্থনৈতিক সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু সরকারি সহযোগিতার অভাবে ফুলটি কৃষক পর্যায়ে পৌঁছতে পারেনি।

southeast

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দিন দীর্ঘ ২০ বছর এ ফুল নিয়ে গবেষণা করেছেন। তিনিই বাংলাদেশে প্রথম নন্দিনীর চাষ করতে সফল হন। যেহেতু এ ফুলের বীজ অনেক ছোট এবং বাংলাদেশের আবহাওয়া এ বীজ অঙ্কুরোদগমের জন্য সহায়ক নয়। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহায়তায় একটি কক্ষে আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ করে বীজ অঙ্কুরিত করতে সফল হন তিনি।

> আরও পড়ুন- শীতে বাহারি রঙের জিনিয়া ফুল

নন্দিনী ফুলের অর্থনৈতিক গুরুত্ব বলতে গিয়ে এ বিজ্ঞানী জানান, একটি ফুলের মূল্য নির্ধারিত হয় এর রং এবং স্থায়িত্বের ওপর। এক্ষেত্রে নন্দিনী ফুলের স্থায়িত্ব অন্য যে কোন ফুল থেকে বেশি। যেখানে প্রতিটি গোলাপের দাম ৫-১০ টাকা, সেখানে প্রতিটি নন্দিনীর দাম ১৪০-১৫০ টাকা। তাছাড়া বাজারে প্রচলিত গোলাপ শীতকালে পাওয়া যায়। কিন্তু নন্দিনী ফুল বারো মাসই চাষ করা যায়। একটি গাছ থেকে ৭০-৮০টি ফুল পাওয়া যায়।

nandini-cover.jpg

গবেষণার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ ফুলের বীজ খুব ছোট হওয়ায় বিশেষ পদ্ধতিতে অঙ্কুরোদগম করতে হয়। অঙ্কুরোদগমে সময় লাগে সাধারণত ১০-১২ দিন। চারায় চার জোড়া পাতা গজানোর পর তা মাঠে রোপণ করা যায়। আর চার জোড়া পাতা হতে ৮০-৯০ দিন সময় লাগে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অঙ্কুরোদগম হয়ে গেলে স্বাভাবিক পরিচর্যায় বড় হয়। বীজ থেকে চারা উৎপাদনে দীর্ঘ সময় ও কারিগরি দক্ষতার প্রয়োজন হয়। জনবলের অভাবে যথেষ্ট বীজ থাকলেও চারা উৎপাদন করতে পারছি না।’

southeast

> আরও পড়ুন- অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে

কৃষক পর্যায়ে বাণিজ্যিকভাবে নতুন ফুল সম্প্রসারণের উদ্যোগ হিসেবেই যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংগঠন ইউএসএইডের সহায়তায় যশোরের ২০ জন কৃষককে প্রশিক্ষণ দিয়ে চারা দেওয়া হয়। তারা এ ফুল চাষ করে লাভবান হয়েছিলেন। তবে পরবর্তীতে সরকারি উদ্যোগের অভাবে কৃষক পর্যায়ে চারা পৌঁছানো সম্ভব হয়নি।

মো. রাকিব খান/এসইউ/এমএস