আজকের কৌতুক : স্বামী-স্ত্রীর ফেসবুক সংলাপ

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৪৩ এএম, ১০ মে ২০১৮

কৌতুক- এক : স্বামী-স্ত্রীর ফেসবুক সংলাপ
অফিস থেকে ফিরেই রাকিব সাহেব স্ত্রীকে বললেন-
রাকিব : হ্যালো ডিয়ার, ঘরে লগড ইন হইলাম, কেমন আছো?
স্ত্রী : তুমি কি বাজার করে আনোনি?
রাকিব : দুঃখিত, বিষয়টি মাথায় ট্যাগ করতে মনে ছিল না।
স্ত্রী : তোমার যে আমার জন্য নতুন একটা শাড়ি ডাউনলোড করার কথা ছিল, সেটাও কি ভুলে গেছ?
রাকিব : দোকানে গিয়েছিলাম, কিন্তু কোনো শাড়িতেই লাইক দিতে পারিনি।
স্ত্রী : তাহলে ক্রেডিট কার্ডটা দাও, আমিই কেনাকাটা করে নেব।
রাকিব : কিন্তু আমি তো প্রাইভেসি সেটিংসের অপশনটা ব্লক করে রেখেছি। কীভাবে তোমাকে দেই?
স্ত্রী : তোমাকে আমার বিয়ে করাটাই উচিত হয়নি। কী পেলাম তোমাকে বিয়ে করে?
রাকিব : নট ফাউন্ড? তাহলে ট্রাই অ্যাগেইন!
স্ত্রী : তোমার কাছে আমার কি কোনোই মূল্য নেই।
রাকিব : অবশ্যই আছে, সেটা আমি বাইরে বলে বেড়াই না। আমার ইনবক্সে ঢুকলেই বুঝতে পারতে।
স্ত্রী : এভাবে চলতে থাকলে আমি কিন্তু বাপের বাড়ি চলে যাব বলে দিচ্ছি।
রাকিব : কমেন্ট করার সাহস হচ্ছে না।
স্ত্রী : আমি চলে গেলে তুমি একা থাকতে পারবে? কোনো কষ্ট পাবে না?
রাকিব : অবশ্যই, দু’জনে তখন চ্যাট করতে পারব, খুব মজা হবে।
স্ত্রী : কী বললে? আর তোমাকে কিন্তু একবিন্দুও সহ্য করতে পারছি না!
রাকিব : তাহলে ব্লক করে দাও।
স্ত্রী : না, এভাবে কথা চালানো যায় না, অসম্ভব।
রাকিব : তাহলে লগ আউট করে দাও।

> আরও পড়ুন- আজকের কৌতুক : আমার বউ চলে আসবে

****

কৌতুক- দুই : স্ত্রীরা প্রতিদিন দশ হাজার শব্দ করে!
পত্রিকার পাতায় চোখ রেখে স্বামী স্ত্রীকে বললেন-
স্বামী : কী লিখেছে দেখো?
স্ত্রী : বলো, দেখতে হবে না।
স্বামী : স্বামীরা যেখানে গড়ে প্রতিদিন পাঁচ হাজার শব্দ ব্যবহার করে, সেখানে স্ত্রীরা করে দশ হাজার শব্দ!
স্ত্রী : ঠিকই তো আছে!
স্বামী : ঠিক আছে কিভাবে?
স্ত্রী : স্ত্রীদের যে প্রতিটা কথা দু’বার করে বলতে হয়।
স্বামী : কী বললে?

> আরও পড়ুন- আজকের কৌতুক : এই মাইয়া সুবিধার না

****

কৌতুক- তিন : বাবা-ছেলের দুষ্টুমি
বাবা : আমার জন্য একটা ড্রিঙ্কস নিয়ে আসো তো দোকান থেকে।
ছেলে : বাবা, ঠান্ডা নাকি গরম?
বাবা : ঠান্ডা অফকোর্স!
ছেলে : বাবা প্রাণআপ নাকি প্রাণ জুস?
বাবা : প্রাণআপ।
ছেলে : বাবা, বোতলের নাকি টিনের?
বাবা : বোতলের।
ছেলে : বড় বোতল নাকি ছোট বোতল?
বাবা : ছোট বোতল।
ছেলে : আচ্ছা বাবা, নরমাল না ডায়েট?
বাবা : ধুর, লাগবে না। যা পানি নিয়ে আয় একটা।
ছেলে : বাবা, ঠান্ডা নাকি গরম?
বাবা : অফকোর্স ঠান্ডা।
ছেলে : বাবা, খাওয়ার পানি নাকি ব্যবহার করার জন্য?
বাবা : মাইর খাবি এখন!

এসইউ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :