আজকের জোকস : কলকাতার কিপটেমির গল্প

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৩০ এএম, ০৩ জুলাই ২০১৯

বোনের কিপটেমি
এক লোক কলকাতায় গেছে তার বোনের বাসায়। গিয়ে দরজায় নক করল। প্রথমবার কেউ খুলল না। আবার নক করল। কোন সাড়া-শব্দ নেই। তারপরও সে আবার নক করল। কিন্তু না, এবারও দরজা খোলার নাম নেই। শেষমেশ আর না পেরে বলল-
ভাই: দিদি, আমি খেয়ে এসেচি তো।
দিদি: ওরে দুষ্টু, তা আগে বলবি নে?

****

মামার কিপটেমি
এক ব্যক্তি কলকাতায় গিয়ে হোটেলে মালপত্র রেখে বন্ধুর সাথে তার মামার বাড়ি গেছে দেখা করতে। মনে মনে ইচ্ছা ছিল ওই বাড়িতে ওঠার। তো মামা বলে উঠলেন, ‘এইবার তো হোটেলে উঠলে। পরের বার আমাদের এখানে উঠো কিন্তু!’

****

শ্বশুরের কিপটেমি
ক্রেতা: দাদা, মুরগির ওই ঠ্যাঙের পাশ থেকে দুশ’ গ্রাম দিন তো।
বিক্রেতা: সেকি দাদা, বাড়িতে আজ উৎসব নাকি। পুরো দুশ’ গ্রাম মুরগি!
ক্রেতা: সেই রকমই দাদা, দুই জামাই আসবে আজগে। ওদের দু’জনের জন্য একশ’ গ্রাম। আর আমাদের বাকি চারজনের জন্য পুরো একশ’ গ্রাম।

****

স্বামীর কিপটেমি
অফিস থেকে ফিরতে ফিরতে স্বামী ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। ভীষণ মাথাব্যথা করছে। তাই বউকে ডেকে বললেন, ‘হ্যাঁ গো, পাশের বাসার ওদের কাছ থেকে একটু টাইগার বাম নিয়ে আস না।’

কিছুক্ষণ পর বউ রাগে গজগজ করতে করতে ফিরে এসে বললেন, ‘মা গো, কী কিপটের কিপটে? একটুখানি টাইগার বাম, তা-ও দিলো না?’ একথা শুনে দীর্ঘশ্বাস ফেলে স্বামী বললেন, ‘কী আর করবে, যাও আলমারি থেকে আমাদের টাইগার বামটাই বের করে আনো।’

এসইউ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]