নাটোরে খ্রিষ্টান ধর্মযাজক নিখোঁজ, ধর্মপল্লীতে আতঙ্ক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নাটোর
প্রকাশিত: ০৩:৪৭ এএম, ২৯ নভেম্বর ২০১৭

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল সেন্ট লুইস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও জোনাইল ক্যাথলিক চার্চের সহকারী ধর্মযাজক ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিও (৪০) হঠাৎ করেই নিখোঁজ হয়েছেন।

সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার বনপাড়া মিশন মার্কেট থেকে জোনাইল ধর্মপল্লীতে ফেরার উদ্দেশে রওনা দেয়ার পর থেকেই তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। এদিকে তার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে বনপাড়া ও জোনাইল ধর্মপল্লীবাসী।

ধর্মযাজক ওয়াল্টার বনপাড়া পৌর শহরের মিশন পাড়া এলাকার মৃত সিলভেস্টার রোজারিওর ছেলে। তার বাড়ি বনপাড়ার আলোচিত জঙ্গি হামলায় নিহত ব্যবসায় সুনীল গোমেজের বাড়ি থেকে মাত্র একশ গজ পশ্চিমে।

ওয়াল্টারের বড় ভাই ব্যবসায়ী প্রেমল রোজারিও জানান, বনপাড়ার একটি প্রেসে বড়দিন উপলক্ষে বিশেষ সংকলন প্রকাশের জন্য কিছু কাজ শেষে তিনি বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে জোনাইলের উদ্দেশে মোটরসাইকেলযোগে রওনা দেন। রাত ৮টার দিকে ওই ধর্মপল্লীর প্রধান পাল-পুরোহিত ফাদার সুব্রত পিউরিফিকেশন তার ফিরে না আসার কথা জানান। পরে আত্মীয়-স্বজনেরা হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্থানে খুঁজে না পেয়ে মঙ্গলবার প্রশাসনকে জানান। এ বিষয়ে বড়াইগ্রাম থানায় ফাদার সুব্রত পিউরিফিকেশন একটি মিসিং ডায়েরি করেন।

এদিকে ফাদার ওয়াল্টারের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় বনপাড়া ধর্মপল্লীসহ উপজেলার ৪টি ধর্মপল্লীবাসীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এসব ধর্মপল্লীর অনেকেই আগামী ৩০ নভেম্বর ঢাকায় পোপের উপস্থিতিতে খ্রিষ্টযাগে অংশ নিতে ঢাকায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ ঘটনার পর পোপের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে চাচ্ছেন না তারা।

বড়াইগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) হারুন-অর-রশিদ জানান, ফাদার ওয়াল্টারকে উদ্ধার করতে ব্যাপক পুলিশি অভিযান শুরু হয়েছে। পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদারসহ পুলিশের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ও তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছেন।

অপরদিকে নাটোরের গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) মো. আব্দুল হাই জানান, ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিওকে খুঁজে বের করতে গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকেও জোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

রেজাউল করিম রেজা/এফএ/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :